kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

আবাহনীর বড় জয়

রাসেল-জামাল সমানে সমান

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



রাসেল-জামাল সমানে সমান

ক্রীড়া প্রতিবেদক : গোলশূন্যভাবে শেষ হয়েছে ম্যাচ। পয়েন্ট ভাগাভাগি শেখ জামাল-শেখ রাসেলের। রাসেল কোচের কাছে প্রশ্ন গেল পয়েন্টটা হারাল কারা? সাইফুল বারী নির্দ্বিধায় মেনে নিলেন তারাই ‘বিজিত’ দলে, ‘বসুন্ধরা কিংস আবাহনী, শেখ জামাল—দুই দলের বিপক্ষেই জিতেছে। আমাদের পরের ম্যাচ আবাহনীর বিপক্ষে, তার আগে জামালের কাছে আমরাই পয়েন্ট হারালাম, যদি শিরোপা লড়াইয়ের কথা বিচার করি।’

জামাল গতবারের রানার্স-আপ। সাদামাটা দল নিয়েও সেবার তাদের দ্বিতীয় হওয়াতে ছিল চমক। এবারও প্রায় তেমন শক্তিরই একটা দল। তবে এখনো পর্যন্ত শিরোপা লড়াইয়ে তাদের মাপা যাচ্ছে না। সাত ম্যাচে এটি তাদের দ্বিতীয় ড্র, দুটি ম্যাচ হেরেছে। তিন জয়ে ১১ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের ৫ নম্বরে তারা। রাসেল ম্যাচ খেলেছে ছয়টি। আগের পাঁচ ম্যাচের চারটিতেই জয়, ড্র একটি। সাইফের হোম ভেন্যু ময়মনসিংহে সেই পয়েন্ট হারানো ভুলে তারা জয়ের ধারাতেই থাকতে চাইছিল। কিন্তু এদিন প্রত্যাশিত গোলটাই পেল না তারা। গোলের সুযোগ তৈরি হয়েছে একাধিক, কখনো ভাগ্যের বিড়ম্বনা কখনো নিজেদের ভুলেই নষ্ট হয়েছে সেই সুযোগ। সেই আক্ষেপ থাকতে পারে জোসেফ আফুসিরও। কিন্তু শেখ জামাল কোচ ১ পয়েন্টকেও মন্দ ভাবছেন না, ‘আমরা আজ ভালো ফুটবল খেলেছি। সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারলে জিততেও পারতাম। তবে রাসেলের বিপক্ষে ১ পয়েন্টে আমি সন্তুষ্ট।’ ম্যাচের প্রথম সুযোগটা পেয়েছিল জামালই। ডেভিড টিট্টের পাসে লুসিয়ানো পেরেসের শট ফিরে আসে পোস্টে লাগে। প্রথমার্ধের শেষদিকে সলোমন কিংয়ের বাড়ানো থ্রুতে গোলরক্ষককে পেয়েও সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। প্রথমার্ধে রাসেলের আলিশার আজিজভ জামাল গোলরক্ষকের পরীক্ষা নেন জোরালো শটে, খালেকুরজামানের শট লাগে সাইড নেটে।

গোলের জন্য মরিয়া রাসেল দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই পুরো প্রেসিং করে খেলতে থাকে। চোটে থাকা অ্যালেক্স রাফায়েল দ্বিতীয়ার্ধে বদলি নামেন বিপলু আহমেদের জায়গায় নেমেই বুটের ডগায় চমৎকার এক শটে গোল করে ফেলেছিলেন প্রায়। শেষ বাধা হয় ক্রসবার। প্রায় ৩০ গজ দূর থেকে নেওয়া খালেকুরজামানের দূরপাল্লার শটও বেরিয়ে যায় ক্রসবার ছুঁয়ে। স্বাধীনতা কাপের গ্রুপ পর্বের মতোই তাই নিষ্ফলা থেকে যায় অন্যতম বড় দুই দলের এই ম্যাচ।

লিগের দ্বিতীয় ম্যাচেই বসুন্ধরা কিংসের কাছে বিধ্বস্ত হওয়া আবাহনী এদিন টানা পঞ্চম জয় তুলে নিয়েছে ব্রাদার্সকে ৪-০ গোলে হারিয়ে। সাত ম্যাচে তাদের এটি ষষ্ঠ জয়। কিংস এই রাউন্ডে মাঠে না নামা পর্যন্ত ১৮ পয়েন্ট নিয়ে তারাই থাকছে শীর্ষে। পাঁচ ম্যাচের সবগুলোতেই জিতেছে কিংস, আবাহনীর চেয়ে দুই ম্যাচ কম খেলে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে তারা এখন দ্বিতীয় স্থানে। ছয় ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরেই আছে রাসেল।

দিনের অন্য ম্যাচে আবাহনীর বড় জয়ের নায়ক কেরভেন্স বেলফোর্ট, ৪ গোলের দুটিই তাঁর। আবাহনী প্রথম এগিয়ে যায় আত্মঘাতী গোল পেয়ে। ওয়ালি ফয়সালের ক্রসে সানডে চিজোবার হেড ব্রাদার্স গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিলে সেই বল ক্লিয়ার করতে গিয়েই নিজেদের জালে ঠেলেছেন ডিফেন্ডার উত্তম রায়। ১২ মিনিটে ওই গোল পাওয়ার মিনিট পাঁচেকের মধ্যেই ব্যবধান বাড়ান বেলফোর্ট রায়হান হাসানের থ্রো ইনে মাথা ছুঁইয়ে। বিরতির আগেই স্কোরলাইন ৩-০। নাবিব নেওয়াজের শট আবারও ব্রাদার্স গোলরক্ষক সুজন চৌধুরীর হাত হয়ে ফিরলে সেই বলই ফিরতি শটে জালে পাঠিয়েছেন সানডে। বিরতির পর বেলফোর্টের দ্বিতীয় গোলটিরও উৎস রায়হানের থ্রো। জটলার ভেতর থেকে গড়ানো শটে বল জালে পাঠান হাইতিয়ান ফরোয়ার্ড।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা