kalerkantho

সোমবার । ১৪ অক্টোবর ২০১৯। ২৯ আশ্বিন ১৪২৬। ১৪ সফর ১৪৪১       

এত পার্থক্য হওয়াটা ঠিক না

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এত পার্থক্য হওয়াটা ঠিক না

প্রশ্ন : জাতীয় দলেও কাজ করেছেন আপনি। কাজেই দেশি আর বিদেশি কোচের বেতনবৈষম্যের ব্যাপারটি আপনারই সবচেয়ে ভালো জানার কথা।

মোহাম্মদ সালাউদ্দিন : এটা সত্যি কথা যে বেতনের ব্যবধান অনেক। ধরুন জাতীয় দলের একজন দেশি বিশেষজ্ঞ কোচ আছেন। তিনিও একটি বিভাগ দেখাশোনা করেন। হতে পারে সেটি ফিল্ডিং বা স্পিন বিভাগ। তিনিও একজন বিশেষজ্ঞ। সঙ্গে অন্য বিভাগের জন্যও বিদেশি বিশেষজ্ঞ কোচ আছেন। ধরুন পেস বোলিং কোচই। তাঁর সঙ্গে দেশি কোচের বেতনের পার্থক্য তো এত হতে পারে না। দেশি কোচের যোগ্যতা আছে কিংবা তিনি কাজটি পারেন বলেই তো আপনি তাঁকে নিয়োগ দিয়েছেন। সেখানে এত ফারাক হওয়াটা আমার কাছে ভালো জিনিস বলে মনে হয় না।

প্রশ্ন : আপনার নিজের অভিজ্ঞতাও শুনতে চাইছি।

সালাউদ্দিন : একজন পাবে হাজার হাজার ডলার আর আরেকজনের জন্য বরাদ্দ ৭০-৮০ হাজার টাকা। দেশি-বিদেশির এত পার্থক্য হওয়াটা ঠিক নয়। আমরাও একই রকম কষ্ট করি। ক্ষেত্র বিশেষে দেশি কোচরা বরং আরো বেশি কাজ করে। হয়তো সারাক্ষণ থ্রো করে যায় কিংবা বাড়তি কাজেও সময় দেয়। দেশি কোচদের বেতন আসলে আরো অনেক বাড়ানো উচিত।

প্রশ্ন : একই পরিবেশে একই পদমর্যাদার দুজন কোচের বেতনের এমন পার্থক্য কি কাজের পরিবেশের জন্য আদর্শ?

সালাউদ্দিন : এ রকম করে আসলে দেশের একজন কোচকে হীনমন্যতার মধ্যে ফেলে দেওয়া হয়। চাইলেও আমি অনেক সময় আত্মবিশ্বাসী হতে পারব না। যখন দেখবেন দলের একজন বিশেষজ্ঞ কোচ আপনার চেয়ে অনেক বেশি বেতন পাচ্ছে, তখন সে আমার চেয়ে ভালো অবস্থানে থাকবেই। দেশি কোচের মনটা তাই ছোট হয়ে থাকবেই। আমরা দেশি কোচরা অবশ্য এই জিনিসটা উপেক্ষা করেই কাজ করেছি বা করি। আমার কাছে মনে হয় দেশি ও বিদেশি কোচের বেতন সামঞ্জস্যপূর্ণ হওয়া উচিত।

প্রশ্ন : এ জন্যই কি বিসিবির চাকরি এখন আর আপনার কাছে অতটা আকর্ষণীয় নয়?

সালাউদ্দিন : সত্যি কথা বললে, আমি বাইরে এর চেয়েও ভালো পাচ্ছি। সুতরাং কেন আমি এই চাকরি করতে যাব? আগ্রহ যে নেই, তা নয়। জাতীয় দলে কাজ কার না করতে ইচ্ছে করে? কিন্তু যখন দেশি আর বিদেশি কোচের বেতনের আকাশ-পাতাল তফাত দেখবেন, তখন স্বাভাবিকভাবেই আপনি সেই চাকরিটা করতে চাইবেন না। মন থেকেই বাধা আসবে। দেশি কোচদের পেছনে বাড়তি খরচও নেই।

প্রশ্ন : বিদেশিদের পেছনে এটা কোথায় হয়?

সালাউদ্দিন : বিদেশি বিশেষজ্ঞ কোচদের আপনি গাড়িও দিচ্ছেন, দিচ্ছেন ড্রাইভারও। দেশি কোচরা নিজ ব্যবস্থায়ই আসে। বিদেশিদের থাকার জন্য ফ্ল্যাট দিচ্ছেন। স্থানীয় কোচদের দেওয়া লাগে না তাও।

প্রশ্ন : জাতীয় পর্যায়ের দলগুলোতে দেশি কোচের সংখ্যা বাড়ানোর সময় এসেছে কি না?

সালাউদ্দিন : অবশ্যই। সেই সঙ্গে বিদেশিরাও থাকবে। তারাও যোগ্য। তাদের সঙ্গে থাকলে স্থানীয়রাও অনেক কিছু শিখতে পারে। যে শিক্ষা সে জাতীয় দলেই শুধু নয়, অন্যান্য দলেও কাজে লাগাতে পারবে। শেখার পরিবেশ পাওয়াও জরুরি। আমরা যে সবকিছু পারি, তাও বলছি না। ভালো কোচকে আমি সব সময়ই সাধুবাদ জানাই। ভালো কোচ এলে দেশের জন্যই লাভ। তাঁর কাছ থেকে শিখলে আমিও আরো দুজন স্থানীয় কোচকে শেখাতে পারব।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা