kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সবচেয়ে দামি কোচ কিন্তু রোডস নন

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সবচেয়ে দামি কোচ কিন্তু রোডস নন

চন্দিকা হাতুরাসিংহেই ছিলেন বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে দামি কোচ। ২০১৭-র অক্টোবরে জাতীয় দলের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে থাকা অবস্থায় পদত্যাগ করা এই শ্রীলঙ্কান কোচকে মাসে প্রায় ২৮ হাজার ইউএস ডলার (২৭ হাজার ৭২৩ ডলার) বেতন দিত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে তাঁর উত্তরসূরি হিসেবে গত বছরের ২০ জুন হেড কোচের দায়িত্ব নেওয়া স্টিভ রোডস কিন্তু এখন বাংলাদেশের সবচেয়ে দামি কোচ নন। সবচেয়ে ব্যয়বহুল কোচ এমন একজন, যাঁর সঙ্গে জাতীয় দলের কোনো যোগসূত্রই নেই। তিনি বিসিবির হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) প্রগ্রামের হেড কোচ সায়মন হেলমট। সদ্য সমাপ্ত বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) চিটাগং ভাইকিংসের হেড কোচ হিসেবেও কাজ করা এই অস্ট্রেলিয়ানের পেছনে বিসিবির ব্যয় রোডসের মাসিক বেতনের চেয়েও বেশি।  

জাতীয় দলের ইংলিশ হেড কোচকে মাসে ২১ হাজার ৪২৯ ডলার বেতন দেয় দেশের সর্বোচ্চ ক্রিকেট প্রশাসন। তবে ২০২০ সালের নভেম্বর পর্যন্ত চুক্তিবদ্ধ রোডস আর হেলমটের চুক্তির ধরনও এক নয়। ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত চুক্তি হলেও এইচপির হেড কোচের কার্যকাল বছরজুড়ে নয়। সারা বছরের মধ্যে হেলমট মাত্র ১২ সপ্তাহ অর্থাৎ তিন মাসের মতো কাজ করেন এইচপির ক্রিকেটারদের নিয়ে। চুক্তি অনুযায়ী এই সময় দেওয়ার জন্য তাঁর পারিশ্রমিক ৭৫ হাজার ইউএস ডলার। হিসাবে প্রতি মাসে ২৫ হাজার ডলার (২১ লাখ টাকার বেশি) বেতন দাঁড়ায় এই অস্ট্রেলিয়ানের। যা স্টিভ রোডসের মাসিক আয়ের চেয়ে ঢের বেশি। বেতনের বাইরেও হেলমটের বাড়তি রোজগারের পথ খুলে রাখা আছে চুক্তিতে। প্রয়োজনে ১২ সপ্তাহের বেশি কাজ করতে হলে নির্দিষ্ট করা আছে দিনপ্রতি আলাদা পারিশ্রমিকও। সেই অঙ্কটা প্রতিদিনের জন্য ৬০০ ইউএস ডলার।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা