kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ঝাঁজালো দ্বৈরথে এগিয়ে কিংস তবে...

২৪ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঝাঁজালো দ্বৈরথে এগিয়ে কিংস তবে...

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সাধারণত অস্কার ব্রুজোনের চেহারা দেখে তাঁর ভালো-মন্দ মেজাজ বোঝার উপায় থাকে না। তাঁর মেজাজ-মর্জি বোঝা বড় দায়। গতকাল ম্যাচ জেতার পরও সেই একই তাঁর চেহারা। যেই পুরনো কথা তোলা হলো অমনি বসুন্ধরা কিংসের এই কোচ ফিক করে হেসে জবাব দিলেন, ‘আমরা দুর্দান্ত একটা ম্যাচ খেলেছি। এ দেশের ফুটবলে আবাহনী একটা নাম, তারা নিজেদের আলাদা উচ্চতায় নিয়ে গেছে। আর আমরা কেবল শুরু করেছি, সেই লক্ষ্যে পৌঁছাতে গেলে পারফরম করতে হবে। আবাহনীর মতো দলের বিপক্ষে এই পারফরম্যান্স অবশ্যই আমাদের নতুন লক্ষ্যে পৌঁছাতে অনুপ্রাণিত করবে।’

ম্যাচের আগের দিন এই স্প্যানিশ কোচ যেকোনো মূল্যে এই ম্যাচ জেতার কথা বলেছিলেন। বলেছিলেন আবাহনীর রাজত্বে ভাগ বসানোর কথা। নানা ঘটন-অঘটনে তিনি বুঝে গেছেন, আবাহনীই হলো এ দেশের ফুটবলের সর্বশেষ মাইলস্টোন। সেটি ছুঁতে আবাহনীর সঙ্গেই যেন নতুন যুগে নতুন প্রতিদ্বন্দ্বিতার বাতাবরণ শুরু হয়েছে বসুন্ধরা কিংসের।  গতকাল দুই দলের তৃতীয়বারের মুখোমুখিতে ৩-০ গোলে জিতে এগিয়েও গেল। দুই দল জিতেছিল আগের দুই ম্যাচ। কিন্তু মাঠের পারফরম্যান্সের দিক থেকে কালকের ম্যাচের সঙ্গে তুলনা হয় না আগের দুটির। তাই স্প্যানিশ কোচ দলের ভেতর কাউকে আলাদা করতে পারছেন না, ‘দলে এমন কোনো খেলোয়াড় নেই, যে খারাপ খেলেছে। সবাই ভালো না খেললে এ রকম একতরফা ম্যাচ হয় না। কলিনড্রেস কিংবা ভিনিসিয়াসের কথা আলাদা করে বলা যাবে না। সম্পূর্ণ দলগত পারফরম্যান্সে কিংসের এমন জয় এসেছে। এই জয়ে আমরা এগিয়ে গেছি, তবে লিগ অনেক লম্বা।’ লম্বা লিগে পারফরম্যান্সের একই ধারা ধরে রাখাটা খুব জরুরি। তাই অতি আবেগে ভেসে যাওয়ার কিছু দেখেন না নাসিরউদ্দিন চৌধুরী। হেডে গোলের খাতা খোলা এই ডিফেন্ডার মনে করেন, ‘আমরা জিতেছি কিন্তু এটাই সব নয়। সামনে অনেক কঠিন চ্যালেঞ্জ আছে, এ রকম খেলে সেগুলো উতরাতে পারলে তবেই লিগ শিরোপা। সেটা এখনো অনেক দূর।’ লিগ মাত্রই শুরু হয়েছে, দুটি জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে কিংস পয়েন্ট তালিকায় এগিয়ে আছে। তার চেয়ে বড় কথা হলো শিরোপার অন্যতম দাবিদার আবাহনী চাপে পড়ে গেছে একটু। 

এই আবাহনীর সঙ্গে তাদের এই দ্বৈরথ শুরু হয়েছিল মৌসুমের প্রথম টুর্নামেন্ট থেকেই। ফেডারেশন কাপে ফাইনাল হারের তিক্ততার পর স্বাধীনতা কাপে নবাগতরা পায় প্রথম শিরোপার স্বাদ। এটিই তাদের আত্মবিশ্বাস, এটিই তাদের সামনে এগোনোর প্রেরণা। অনুপ্রাণিত বসুন্ধরা কিংস প্রিমিয়ার লিগ শুরু করেছে নতুন উদ্যমে। চ্যাম্পিয়নদের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে, শিরোপার স্বপ্ন বুকে নিয়ে। ‘এই দলের স্লোগানেই সব লেখা আছে। দলটির জন্ম হয়েছে হারানোর জন্য। হোম ভেন্যু দিয়েই আমাদের নতুন শুরু হয়েছে’—বলেই ব্রুজোন নিজেদের হোম ভেন্যুর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন। তিনি চেয়েছিলেন নীলফামারীর এমন ঘাসের মাঠ। এটি ছোট ঘাসের সমতল মাঠ যেখানে ভালো ফুটবলারদের খেলা খুলবে। প্রতিপক্ষ আবাহনী কোচেরও এই মাঠ খুব পছন্দ হয়েছে। কিন্তু খেলোয়াড়রা দিতে পারেননি নিজেদের সেরাটা। কোচ এটাকে চিহ্নিত করেছেন, ‘সতর্কতা সংকেত’ হিসেবে, ‘এই ম্যাচটা আবাহনীকে জাগিয়ে তুলতে পারে। জয়ের জন্য আরো ভালো পারফরম করতে হবে।’

দিনের অন্য ম্যাচে গোপালগঞ্জে হেরেছে আরেক জায়ান্ট শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব। বেলো ফামোসার হ্যাটট্রিকে মুক্তিযোদ্ধা ৩-০ গোলে হারিয়েছে গতবারের রানার্স-আপদের।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা