kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

এবার স্তিতিপাস-নাদাল

২৩ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এবার স্তিতিপাস-নাদাল

টেনিস ইতিহাসের সেরা খেলোয়াড়। নিজে যাঁকে আদর্শ মানতেন, সেই রজার ফেদেরারকে হারিয়ে সেমিতে উঠেছেন স্তেফানোস স্তিতিপাস। সেখানে আরো এক মহা ম্যাচ অপেক্ষা করছে তাঁর জন্য। ফেদেরারের ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বেশি সময় ধরে যিনি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এসেছেন, সেই রাফায়েল নাদালের মুখোমুখি যে এবার গ্রিসের ২০ বছর বয়সী তারকা।

এক ম্যাচই স্তিতিপাসকে তারকাখ্যাতি দিয়েছে। আরেকটা অঘটন তাঁকে তুলে দেবে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের স্বপ্নের ফাইনালে। তবে নাদাল এ টুর্নামেন্টে ছুটছেন দুরন্ত ঘোড়ার মতো। কাল আমেরিকার ফ্রান্সেস তিয়াফোকে ৩-০ সেটে হারিয়েছেন মানে এ টুর্নামেন্টে এখনো পর্যন্ত একটাও সেট হারেননি ৩২ বছর বয়সী তারকা। ক্যারিয়ারে এখনো সেরা সময়ই যেন পার করছেন। সিতসিপাসের মতোই টুর্নামেন্টে নতুনদের মধ্যে আলো ছড়িয়েছিলেন তিয়াফো। ২১ বছর বয়সী এ আমেরিকান দ্বিতীয় রাউন্ডেই পঞ্চম বাছাই কেভিন অ্যান্ডারসনকে হারিয়ে আলোচনার জন্ম দেন। তাঁর স্বপ্নযাত্রা শেষ হলো কোয়ার্টার ফাইনালে ৩-৬, ৪-৬ ও ২-৬ গেমে নাদালের কাছে হেরে। ফেদেরারকে হারিয়ে স্তিতিপাস কোয়ার্টার ফাইনালে হারিয়েছেন স্পেনের রবার্তো বাতিস্তাকে। ৭-৫, ৪-৬, ৬-৪ ও ৭-৬ (৭/২) গেমে কঠিন ম্যাচটি জিতেই ১৭টি গ্র্যান্ড স্লামজয়ী নাদালের মুখোমুখি এখন তিনি। গ্রিসের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবেই কোনো গ্র্যান্ড স্লামের এত দূর এলেন এ তরুণ। ২০০৩ সালে অ্যান্ডি রডিকের পর সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মেলবোর্ন পার্কের শেষ চারের লড়াইয়ে নামবেন। যেখানে নাদাল কিনা ওপেন যুগের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ডাবল ক্যালেন্ডার স্লাম পূরণের স্বপ্নে। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে মনে রাখার মতো একটি দ্বৈরথই তাই হতে যাচ্ছে এটি। নাদাল নিজের ফর্ম নিয়ে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী, ‘অস্ট্রেলিয়ান ওপেনটা কখনোই আমার জন্য সহজ ছিল না। তবে আজ যেভাবে খেলেছি, তাতে আমি খুশি। এ পর্যন্ত আসাটাও দারুণ ব্যাপার।’ সিতসিপাসের কাছে সব কিছুই তো স্বপ্নের ঘোর লাগা, ‘আমি স্বপ্নের মধ্যেই, তবে এর জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে।’

অসাধারণ এক মুহূর্ত সঙ্গী হয়েছে কাল পেত্রা কেভিতোভারও। ২০১৬ সালে দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে ক্যারিয়ারই শেষ হতে চলা চেক প্রজাতন্ত্রের এ তারকা ওই ঘটনার পর এবারের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনেই প্রথমবারের মতো কোনো গ্র্যান্ড স্লামের সেমিতে উঠলেন। কাল রড লেভার এরেনায় অ্যাশলে বার্টিকে ৬-১ ও ৬-৪ গেমে হারিয়ে তাই কান্নায় ভেঙে পড়েছেন তিনি। মারিয়া শারাপোভাকে হারানো বার্টি বিদায় নিলেও শেষ চারে ঠিকই পা রেখেছেন অ্যাঞ্জেলিক কেরবারকে বিদায় করা ডেনিয়েলে কলিন্স। কোয়ার্টার ফাইনালে ২-৬, ৭-৫ ও ৬-১ গেমে হারিয়েছেন তিনি আনাস্তাসিয়া পাভলিউচেঙ্কোভাকে। এএফপি

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা