kalerkantho

কোহলির শতরানেও পিছিয়ে ভারত

১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কোহলির শতরানেও পিছিয়ে ভারত

অপ্টাস স্টেডিয়ামের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিয়ান হিসেবে নাম লিখিয়েছেন বিরাট কোহলি। টেস্ট সেঞ্চুরির সংখ্যা হয়েছে ২৫। কিন্তু এমন দিনেও লিড নিতে পারেনি ভারত, ৫ উইকেট নিয়ে ভারতকে ২৮৩ রানে অল আউট করার পেছনে বড় ভূমিকা রেখেছেন নাথান লিওন। প্রথম ইনিংসে পিছিয়ে ৩২৬ রান করা অস্ট্রেলিয়া তৃতীয় দিনের শেষে ব্যবধান বাড়িয়ে নিয়েছে ১৭৫ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে এরই মধ্যে স্বাগতিকরা তুলে নিয়েছে ৪ উইকেটে ১৩২ রান।

ভারতকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছিল কোহলি-রাহানের জুটিটা। দ্বিতীয় দিন শেষে কোহলি ছিলেন ৮২ রানে অপরাজিত, রাহানে ৫১ রানে। কাল কোনো রান যোগ না করেই আউট হয়ে গেছেন রাহানে, দিনের চতুর্থ বলেই। লিওনের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে রাহানে ফেরার পর ক্রিজে আসেন হনুমা বিহারি। ইংল্যান্ডে অভিষেক ইনিংসেই হাফসেঞ্চুরি করা অন্ধ্র প্রদেশের এ ব্যাটসম্যান আউট হয়ে যান ২০ রান করে। অবশ্য ততক্ষণে টেস্টে ২৫তম সেঞ্চুরিটা তুলে নিয়েছেন কোহলি। মাত্র ১২৭ ইনিংস লেগেছে তাঁর এই মাইলফলকে পৌঁছতে। শুধু ডন ব্র্যাডম্যানই কোহলির চেয়ে কম, ৬৮ ইনিংসে করেছিলেন ২৫ সেঞ্চুরি। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে এটা কোহলির ষষ্ঠ টেস্ট সেঞ্চুরি, সেটাও মাত্র ১৯ ইনিংসে। অস্ট্রেলিয়ায় বিদেশি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে এটা তৃতীয় সর্বোচ্চ। কোহলির চেয়ে বেশি, ৯ সেঞ্চুরি আছে জ্যাক হবসের আর ওয়ালি হ্যামন্ডের ৭টি। শচীন টেন্ডুলকার ও বার্ট সাটক্লিফের আছে ৬টি করে সেঞ্চুরি।

অনেক রেকর্ডছোঁয়া শতরানের ইনিংসটা থেমে যায় বিতর্কিত ক্যাচে। প্যাট কামিন্সের বলে দ্বিতীয় স্লিপে বল মাটিতে চুমু খাওয়ার আগে ক্যাচটা ধরেছেন পিটার হ্যান্ডসকম্ব। বল মাটিতে লেগেছিল কি না কিংবা হ্যান্ডসকম্বের হাতের আঙুল নিচে ছিল কি না, তা নিয়ে সামান্য সংশয় থাকলেও টিভি রিপ্লেতে সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে যাওয়ার মতো কোনো প্রমাণ পাননি নাইজেল লং। কোহলির বিদায়ের পর দ্রুতই লেজটা ছেঁটে দিয়েছেন লিওন। নিজের শেষ ওভারে ঋষভ পান্ট ও জসপ্রিত বুমরাহ, দুজনকেই তুলে নিয়েছেন লিওন। মাত্র ৩২ রানের ব্যবধানে ভারতের শেষ ৫ উইকেট তুলে নিয়ে ২৮৩ রানেই আটকে দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার বোলাররা। লিওনের ৫ উইকেট প্রাপ্তির সঙ্গে স্টার্ক ও হ্যাজেলউডের জোড়া শিকার।

৪৩ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা অস্ট্রেলিয়াকে ভরসা দিচ্ছেন উসমান খাজা। ঠিক চা বিরতির আগে আগে, মোহাম্মদ সামির বলে ডান হাতের তর্জনীতে ব্যথা পেয়েছেন অ্যারন ফিঞ্চ। তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় এক্স-রে করতে। বিরতির পর আর ব্যাট করতে নামেননি ফিঞ্চ, মাঠে নামেন খাজা। দিন শেষে তিনি ৪১ রানে অপরাজিত। সঙ্গী ৮ রানে অপরাজিত থাকা টিম পাইন। অস্ট্রেলিয়ার মিডল অর্ডারটা ভেঙে দিয়েছেন ঈশান্ত আর সামি। শন মার্শ ও ট্রাভিস হেড—দুজনকেই আউট করেছেন সামি। আর ঈশান্ত নিয়েছেন হ্যান্ডসকম্বের উইকেট।

অস্ট্রেলিয়ার কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার যদিও দিন শেষে জানিয়েছেন, ফিঞ্চ ব্যাট করতে পারবেন। তার আঙুলে কোনো চিড় ধরা পড়েনি। ফিঞ্চ ব্যাট করতে পারলে সেটা হবে বাড়তি পাওয়া। তার আগের কাজটা করতে হবে খাজা আর পাইনকেই। এ দুজনের বড় জুটিতেই ১৭৫ রানের লিডটাকে বাড়াতে হবে অস্ট্রেলিয়ার। তাহলেই চতুর্থ ইনিংসে ভারতের সামনে বড় একটা লক্ষ্য দাঁড় করাতে পারবে স্বাগতিকরা। না হলে হয়তো এখানেই হয়ে যাবে সিরিজের ফয়সালা। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া

মন্তব্য