kalerkantho



ব্যাটিং প্রস্তুতি ভালোই নিল ক্যারিবীয়রা

১৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ব্যাটিং প্রস্তুতি ভালোই নিল ক্যারিবীয়রা

ক্রীড়া প্রতিবেদক : দিন দুই আগে, নির্বাচক হাবিবুল বাশার জানিয়েছিলেন; চট্টগ্রামে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে চোখ থাকবে তাঁদের। এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে এই ম্যাচ আয়োজনের প্রধান উপলক্ষ নিশ্চিতভাবেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে খানিকটা প্রস্তুতির সুযোগ করে দেওয়া। দুই বোর্ডের সমঝোতা চুক্তিরই অংশ এসব ম্যাচ। মেয়াদই বলে দিচ্ছে, ফলের চেয়ে প্রস্তুতিটাই গুরুত্বপূর্ণ। আর বিসিবি একাদশের অধিনায়ক রুবেল হোসেন যে টেস্ট ভাবনায় নেই, সেটাও স্পষ্ট করেই জানিয়েছিলেন সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল। দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে ভালো-মন্দ দুই-ই প্রাপ্তিযোগ আছে বাংলাদেশের। ভাবনার জায়গাটা হচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা বেশ স্বাচ্ছন্দ্যেই ব্যাট করেছেন আর স্বস্তির জায়গাটা হচ্ছে বেশ ধারালো দেখাচ্ছে উঠতি অফস্পিনার নাঈম হাসানকে।

টসে জিতে ব্যাট করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ শুরুতেই হারায় সদ্য অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়া ক্রেইগ ব্রাথওয়েটকে। তাঁকে বোল্ড করেন শফিউল ইসলাম। টেস্টে এক পেসার নিয়ে খেললেও প্রস্তুতি ম্যাচে বিসিবি একাদশে তিন পেসার! তাঁরা তিনজন মিলে করেছেন মোট ২৮ ওভার আর নাঈম একাই করেছেন ২৬ ওভার।

শফিউলের ব্রেক থ্রুর পর উইকেটের জন্য লম্বা সময়ই অপেক্ষা করতে হয়েছে বাংলাদেশকে। দলীয় ১৭৪ রানে ৭২ রান করা কিয়েরন পাওয়েল ক্যাচ দিয়েছেন উইকেটের পেছনে, ফজলে মাহমুদের বাঁহাতি স্পিনে। শাই হোপ নিজের ইচ্ছেমতো খেলেছেন, মেরেছেন এবং একসময় অন্যদের সুযোগ দিতে সরে গেছেন স্বেচ্ছায়। তাঁর নামের পাশে তখন ৮৮ রান। ২০০৯ সালে বাংলাদেশের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের সময় শীর্ষ ক্রিকেটাররা খেলতে না চাওয়ায় তড়িঘড়ি করে বোর্ড যে দলটাকে নামিয়ে দিয়েছিল, সেই দলটার অধিনায়ক ছিলেন ফ্লয়েড রেইফার। তাঁর চাচাতো ভাই রেমন্ড রেইফার আছেন এই দলটায়, তিনিই দিন শেষে ১৪ রানে অপরাজিত। সঙ্গী কিমো পল অপরাজিত ১৮ রানে। ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান একাদশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ৩০৩ রান।

নাঈম ২৬ ওভার বল করে ৩টি মেডেন পেলেও ১০৪ রান দিয়েছেন, নিয়েছেন সুনীল অ্যাম্বরিস আর শিমরন হেটমায়ারের উইকেট। হেটমায়ার ২০১৬তে ছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের অধিনায়ক, যেবার মিরাজ নেতৃত্বে ছিলেন বাংলাদেশ যুব দলের। নাঈম হাসান তার পরের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপটা খেলার সময় মাঝপথেই দেশে ফিরে এসেছিলেন টেস্ট অভিষেকের সম্ভাবনায়। যদিও শেষ পর্যন্ত টেস্ট ক্যাপ পাননি এই অফস্পিনার। মিরাজ, তাইজুলের সঙ্গে আরেক স্পিনার হিসেবে কি একাদশে জায়গা হয়ে যাবে নাঈমের। কারণ আরেকজন, যাঁর ওপর বেশ চোখ ছিল নির্বাচকদের, সেই লেগস্পিনার ১৫ ওভার বল করে ৫৫ রান দিয়েও যে কোনো উইকেট পাননি। একটি উইকেট পেয়েছেন সৌম্য সরকারও।



মন্তব্য