kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ইংল্যান্ডের গল জয়

১০ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইংল্যান্ডের গল জয়

প্রতিপক্ষের মাঠে জিততে ভুলে গিয়েছিল ইংল্যান্ড। টানা ১৩ টেস্ট ফিরতে হয়েছে খালি হাতে। ঐতিহ্যবাহী গলে আবার জয়ের স্বাদই পায়নি কখনো। এখানকার ঘূর্ণি উইকেটে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতাটা ছিল নিয়তি। দুটি আক্ষেপই মিটল গতকাল। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গলে প্রথমবার জো রুটের দল জিতেছে ২১১ রানের বড় ব্যবধানে, যা রানের ব্যবধানে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সর্বোচ্চ তাদের। সবশেষ ২০১৬ সালে চট্টগ্রামে বাংলাদেশের বিপক্ষে ২২ রানে জিতেছিল ইংল্যান্ড। এরপর বিদেশে ১৪তম টেস্টে পেল প্রথম জয়। জয়ের জন্য শ্রীলঙ্কার দরকার ছিল ৪৬২ রান। অথচ সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডই ৪১৮। রানপাহাড়ে চাপা পড়ে গতকাল চতুর্থ দিন দিনেশ চান্ডিমালের দল গুটিয়ে যায় ২৫০ রানে। রঙ্গনা হেরাথের বিদায়ী টেস্টটা বিষাদময় হয়ে রইল লঙ্কানদের। অভিষেক ইনিংসে সেঞ্চুরির পর দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৪ বলে ৩৭ করায় ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার বেন ফোকসের।

গলে সব সময়ই ঘূর্ণি সামলাতে না পেরে ভুগেছে ইংল্যান্ড। তারা প্রথমবার গল জয় করল সেই স্পিন শক্তিতে। মঈন আলী ৪, জ্যাক লিচ ৩ ও আদিল রশিদ নিয়েছেন ১ উইকেট। দ্বিতীয় ইনিংসে ১০ উইকেটের ৮টি স্পিনারদের, একটি রান আউট, অন্য উইকেটটি নিয়েছেন বেন স্টোকস। প্রথম ইনিংসেও ইংল্যান্ডের স্পিন ত্রয়ীর শিকার ছিল ৮ উইকেট, মানে ২০ উইকেটের ১৬টিই স্পিনারদের।

ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে ৩৪২ এর জবাবে শ্রীলঙ্কা অল আউট হয়েছিল ২০৩ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে ইংল্যান্ড ইনিংস ঘোষণা করে ৬ উইকেটে ৩২২-এ। ৪৬২ রানের লক্ষ্য পেয়ে শ্রীলঙ্কা তৃতীয় দিন শেষ করে বিনা উইকেটে ১৫ রানে। রানের পাহাড় টপকাতে যেমন দরকার ছিল বড় জুটি তেমনি কাউকে না কাউকে লড়াই করত হতো বুক চিতিয়ে। কোনোটাই পারেনি শ্রীলঙ্কা। দিমুথ করুনারত্নে ও কুশল সিলভা গড়েন ৫১ রানের জুটি। ৩০ রান করা সিলভাকে এলবিডাব্লিউ করে জুটিটা ভাঙেন জ্যাক লিচ। ১৬ রানে জীবন পাওয়াটা কাজে লাগাতে পারেননি করুনারত্নে। ৮৬ বলে ২৬ করে মঈন আলীর বলে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে ফেরেন এই ওপেনার।

প্রথম ইনিংসে ফিফটি করা অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ ক্যাচ মিসের সুবাদে জীবন পান ১৭ রানে। সেটা কাজে লাগাতে না পেরে ৫৩ রানে মঈন আলীর শিকার তিনি। এ ছাড়া নিরোশান ডিকেলা ১৬ ও দিলরুয়ান পেরেরা করেন ৩০। জীবনের শেষ টেস্ট খেলতে নামা রঙ্গনা হেরাথ শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ফেরেন রান আউট হয়ে। শেষটা নিশ্চয়ই এভাবে করতে চাননি হেরাথ। ক্রিকইনফো

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা