kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পাকিস্তানের বাঁহাতি পেসারদের নিয়েই ভারতের ভাবনা

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



পাকিস্তানের বাঁহাতি পেসারদের নিয়েই ভারতের ভাবনা

সাফ গেমস বা সাফ ফুটবলকে ছাপিয়ে ভারতের লক্ষ্য যেমন এশিয়ান গেমস, অলিম্পিক, এশিয়ান কাপে; ঠিক তেমনি এশিয়া কাপ ক্রিকেটেও নিয়মিত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে বিশ্রাম দিয়ে বিসিসিআই বুঝিয়ে দিয়েছে, ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথ নিয়ে তাদের তেমন কোনো মাথাব্যথা নেই।

 

ভারত ও পাকিস্তান নিজেদের ভেতর সিরিজ খেলে না, অথচ তৃতীয় পক্ষের উপস্থিতিতে ঠিকই অংশ নেয়! কেন, সেই ধাঁধার সমাধান হয়তো আছে, হয়তো নেই। তবে বাস্তবতা হচ্ছে ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথের সাবেকি সেই বনেদিয়ানা আর নেই। সাফ গেমস বা সাফ ফুটবলকে ছাপিয়ে ভারতের লক্ষ্য যেমন এশিয়ান গেমস, অলিম্পিক, এশিয়ান কাপে; ঠিক তেমনি এশিয়া কাপ ক্রিকেটেও নিয়মিত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে বিশ্রাম দিয়ে বিসিসিআই বুঝিয়ে দিয়েছে, ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথ নিয়ে তাদের তেমন কোনো মাথাব্যথা নেই। না হলে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের আগের দিন হংকংয়ের সঙ্গে খেলছে ভারত, এই দৃশ্য অন্তত দেখা যেত না! মাঠের ক্রিকেটে সামর্থ্যে, ক্রিকেট কূটনীতিতে, ক্রিকেট বাণিজ্যে—সব জায়গাতেই পাকিস্তানকে যোজন যোজন মাইল পেছনে ফেলেছে ভারত। তবু দুবাইতে আরো একটা পাক-ভারত দ্বৈরথ মানেই মরুর দেশের উত্তাপে খানিকটা বৃদ্ধি! বিশেষ করে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে হারের পর আবার যখন পাকিস্তানের সঙ্গে দেখা, তখন তো পুরনো শত্রুতার ঝাঁজ ভদ্রতার পরত ছিঁড়ে বের হয়ে আসবেই।

মহেন্দ্র সিং ধোনি দলে থাকলেও অধিনায়ক রোহিত শর্মা। যাঁর নেতৃত্বে এ বছরের গোড়াতেই শ্রীলঙ্কায় নিদাহাস ট্রফি জিতেছে ভারত। তাঁর সামনে আপাতত সমস্যা তিনটি—অস্থির মিডল অর্ডার, পাকিস্তানের বাঁহাতি পেসার আর নিজের ফর্ম। আম্বাতি রাইডু, কেদার যাদব, দীনেশ কার্তিকরা কেউই ভারতীয় একাদশের নিয়মিত চেহারা নন। কোহলি বিশ্রামে, তবে অন্যদের নিয়ে হয়েছে শুধু পরীক্ষা-নিরীক্ষাই। ফলে কেউই নিশ্চিত নন, রোহিতই বললেন, ‘এটা (মিডল অর্ডার ) ঠিক সুস্থির নয়। আমরা সবাই এটা জানি। এ জায়গাগুলোতে অনেকেই খেলেছে। এটা অনেকের জন্য একটা সুযোগ, এসে পারফরম করে জায়গাটা নিজের করে নেওয়ার। ৩, ৪, ৬—সবগুলো জায়গাই উন্মুক্ত।’ হংকংয়ের বিপক্ষে পাকিস্তানের বাঁহাতি পেসার উসমান খান নিয়েছেন ৩ উইকেট। দলে আমির, জুনাইদ, শাহিন আফ্রিদিসহ মোট চারজন বাঁহাতি পেসার! ভারতের বিপক্ষে একাদশে অন্তত তিনজন খেলতে পারেন, তাই তো শ্রীলঙ্কা থেকে বাঁহাতি থ্রো-ডাউন বিশেষজ্ঞকে উড়িয়ে এনেছে ভারতের টিম ম্যানেজমেন্ট। শুধু তাই নয়, নেটে নিজেদের আনকোরা বাঁহাতি পেসার খলিল আহমেদের বল খেলেও নিজেদের ঝালিয়ে নিচ্ছেন রোহিত-ধোনিরা।

অবশ্য ভারতকে পর পর দুই দিনে দুটো ম্যাচ খেলতে হচ্ছে, পাকিস্তান পেয়েছে বিশ্রাম। পাকিস্তানের পেসার উসমান খান হংকংয়ের বিপক্ষে ৩ উইকেট নেওয়ার পর এখন শিকারির চোখে দেখছেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের, ‘ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে যারা ভালো করে, তাদের সবাই সম্মান করে। আমিও এ ম্যাচটায় ভালো খেলতে চাই। হংকংয়ের বিপক্ষে ৩ উইকেট পেয়েছি, ভারতের বিপক্ষে ৫ উইকেট নিতে চাই।’

ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথ মানেই ভারতের ব্যাটিং বনাম পাকিস্তানের বোলিং। দুবাইতে সেই স্মৃতিই ফিরিয়ে আনতে চাইছেন উসমান, ‘আমাদের বোলিং আক্রমণটা দেখুন। যারা খেলছে তারা বাদেও যারা বেঞ্চে বসে আছে, তাদের দিকে তাকালেই শক্তিটা বুঝতে পারবেন।’ ডানহাতি পেসার, বাঁহাতি পেসার, লেগস্পিন, অফস্পিন, বাঁহাতি স্পিন—সব মিলিয়ে দারুণ বৈচিত্র্যময় বোলিং আক্রমণ পাকিস্তানের। ফখর জামান, ইমাম উল হক, বাবর আজমরা যদি একটু রান করে দিয়ে যান, তাহলে বল হাতে ম্যাচটা জিততে পারবে পাকিস্তান— এমনটাই মনে করেন উসমান, ‘পাকিস্তানের বোলাররা দুবাইয়ের উইকেটের চরিত্র ভালোভাবে বোঝে। এটা আমাদের বাড়তি সুবিধা।’

পাক-ভারত দ্বৈরথ দেখতে চলে আসতে পারেন বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও। সরকারি সফরে সৌদি আরবের উদ্দেশে যাত্রা করা ইমরান যাত্রাপথে দুবাই থামতে পারেন ম্যাচ দেখতে। পিটিআই, ক্রিকইনফো

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা