kalerkantho


সিরিজ জিতে ফিরছে ‘এ’ দল

১৯ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



সিরিজ জিতে ফিরছে ‘এ’ দল

গত পরশু ৭ বল বাকি থাকতে তারা ৭ উইকেটের অনায়াস জয়ই শুধু পায়নি, সফরকারীরা তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ ২-১-এ পকেটে পুরে নিয়েই দেশে ফিরছে আজ।

 

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বৃষ্টির বাধায় ১৮ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিং নেওয়া আয়ারল্যান্ড উলভস আবারও ছুড়ে দিয়েছিল বড় লক্ষ্যই। তবে ১৮৪ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নামা বাংলাদেশ ‘এ’ দল মোহাম্মদ মিঠুন আর অধিনায়ক সৌম্য সরকারের ব্যাটে উদ্বোধনী জুটিতে ১১৭ রানের এমন দুর্দান্ত এক ভিত পেল যে জিততে তেমন কোনো বেগই পেতে হলো না আর। গত পরশু ৭ বল বাকি থাকতে তারা ৭ উইকেটের অনায়াস জয়ই শুধু পায়নি, সফরকারীরা তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ ২-১-এ পকেটে পুরে নিয়েই দেশে ফিরছে আজ।

পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ২-২-এ ড্র করা বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচ জিতেই শুরু করেছিল টি-টোয়েন্টি। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিকদের গড়া ২০২ রানের বিশাল স্কোরের চাপে পিষ্ট হওয়ায় সিরিজে ফিরেছিল সমতা। তবে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে আবারও সে রকম ভাগ্য বরণ করে নেওয়ার কোনো সুযোগই রাখেনি মিঠুন-সৌম্যর ব্যাট। এ ম্যাচে ওপেনিং সঙ্গী বদলে নামা বাংলাদেশ ‘এ’ দলের অধিনায়ক সৌম্যর তুলনায় শুরু থেকে একটু বেশিই আক্রমণাত্মক ছিলেন মিঠুন। যে কারণে মাত্র ২৩ বলেই পৌঁছে যান ফিফটিতে। দুজনের ব্যাটে মাত্র ৪.৩ ওভারেই ৫০ পার করে ফেলা সফরকারীরা সেখান থেকে আরো দ্রুত পৌঁছায় তিন অঙ্কে। ৭.৩ ওভারেই দলকে ১০০ পার করে নেওয়া এ দুজনের জুটি ভাঙে একাদশ ওভারের প্রথম বলে। ৩০ বলে ২ বাউন্ডারি ও ৪ ছক্কায় ৪৭ রান করে সিরিজ সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পাওয়া (প্রথম ম্যাচেও খেলেছিলেন ৫৭ রানের ইনিংস) সৌম্যর বিদায়ের পরও ছন্দোময় ছিল মিঠুনের ব্যাট। তাই নাজমুল হোসেন (৪ বলে ৬) এবং জাকির হাসান (৯ বলে ১৩) দ্রুত বিদায় নিলেও জয় নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরির মতো অবস্থা হয়নি। ৩৯ বলে ৭ বাউন্ডারি ও ৬ ছক্কায় ৮০ রান করে মিঠুন যখন আউট হন, তখন জয় থেকে মাত্র ২২ রান দূরে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। ওই সময় যা করার দরকার ছিল, আল-আমিন জুনিয়র (১৩ বলে ২১*) ও মমিনুল হক (৬ বলে ১১*) মিলে করেছেন তাই।

এর আগে টস হেরে বোলিং পাওয়া সফরকারীদের দারুণ শুরুই এনে দিয়েছিলেন মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন। ৪৪ রানে আইরিশদের হারানো ৩ উইকেটের দুটোই তাঁর তুলে নেওয়া। তবে এরপর উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড (৩৯ বলে ৭৮) এবং সিমি সিংয়ের (৪১ বলে ৬৭*) ১১১ রানের চতুর্থ উইকেট পার্টনারশিপে তারা ঘুরে দাঁড়ানোর পর শেষেও দারুণ বোলিং করেছেন সাইফ উদ্দিন, ২৮ রান খরচায় নিয়েছেন ৪ উইকেট।



মন্তব্য