kalerkantho


হারেই শেষ হলো আবাহনীর

১৭ মে, ২০১৮ ০০:০০



হারেই শেষ হলো আবাহনীর

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে আবাহনী খেলেছে হোম ম্যাচ। কিন্তু অ্যাওয়ে ম্যাচের চেয়েও বাজে খেলেছে। বেঙ্গালুরুতে ০-১ গোলে হারা আবাহনী কাল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ৪-০ গোলে হেরে বিদায় নিয়েছে এএফসি কাপ থেকে। এটা নতুন নয়, এএফসির টুর্নামেন্টে আকাশি-নীলদের ভরাডুবি হয় প্রতিবারই। আর এই জয়ে বেঙ্গালুরু এফসি ১৫ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে পৌঁছে গেছে এএফসি কাপের আঞ্চলিক প্লে-অফ সেমিফাইনালে।

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়াটা পুরোপুরি বেঙ্গালুরুর হাতে ছিল না। আবাহনীকে হারালেও তারা ওঠে না। গুয়াহাটির আইজল-নিউ রেডিয়ান্ট ম্যাচের ফলের ওপরও নির্ভর করছিল তাদের গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়া। ওখানে রেডিয়ান্ট জিতলে তারা বাদ পড়ে, কিন্তু অবিশ্বাস্যভাবে আইজল ২-১ গোলে রেডিয়ান্টকে হারিয়ে বেঙ্গালুরু এফসির পরের রাউন্ডের পথ সুগম করেছে। তাতে করে ১২ পয়েন্ট নিয়ে রেডিয়ান্ট গ্রুপ রানার্স-আপ আর ৪ পয়েন্ট পাওয়া আবাহনী তৃতীয় এবং আইজল হয়েছে চতুর্থ।

ম্যাচ শুরু হতে না হতেই আবাহনীর জালে গোলের মহড়া শুরু হয়। ১১ মিনিটে প্রথমে সুনীল ছেত্রীর শটে উত্তাপ ছড়ায় আবাহনী শিবিরে। সেটি গোলরক্ষক শহীদুল পুরোপুরি গ্রিপে নিতে না পারলেও ডিফেন্ডার বাদশা বিপত্মুক্ত করেন। এর পরপরই আবাহনী আক্রমণে ওঠে। কিন্তু ফিরতি আক্রমণে ১২ মিনিটের মাথায় বেঙ্গালুরু এফসি গোল পেয়ে যায়। বাঁ-দিক থেকে থেকে ছেত্রীর বাড়ানো ক্রসে স্প্যানিশ দানিয়েল লুকাসের প্লেসিং শহীদুলকে ফাঁকি দিয়ে পৌঁছে যায় আবাহনীর জালে। ১৬ মিনিটে নিশু কুমারের ডান পায়ের শটে ব্যবধান বাড়ে। এরপর একটুখানি খেলার সুযোগ পায় আবাহনী। কিন্তু বিরতির পর আবার সেই তোপের মুখে তারা। ৫৮ মিনিটে সুনীল ছেত্রী ডিফেন্স লাইনের ওপর দিয়ে বল তুলে দিলে নিশু কুমার বুকে নামিয়ে দারুণ ফিনিশ করেন। মিনিট দুয়েক বাদে ম্যাচের আগের তিন গোলের কারিগর ছেত্রী গোল পেয়ে যান শহীদুলের ভুলে। ডান দিক থেকে পাঠানো ক্রসটি এই গোলরক্ষকের গ্রিপ ফসকে গেলে গোলের খাতা খোলেন বেঙ্গালুরু অধিনায়ক।


মন্তব্য