kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

হোয়াইটওয়াশ ওয়েস্ট ইন্ডিজ

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হোয়াইটওয়াশ ওয়েস্ট ইন্ডিজ

হ্যামিল্টনে হারটা সময়ের অপেক্ষা ছিল ক্যারিবীয়দের। সেই সময়টা এলো চতুর্থ দিন চা বিরতির আগে। ৪৪৪ রানের জয়ের লক্ষ্যে নেমে নেইল ওয়াগনারের আগুনে বোলিংয়ে ক্রেগ ব্রাথওয়েটের দল গুটিয়ে যায় ২০৩-এ। ২৪০ রানের জয়ে দুই টেস্টের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করল কিউইরা। ওয়েলিংটনের প্রথম টেস্ট তারা জিতেছিল ইনিংস ব্যবধানে। ওয়েলিংটনে ক্যারিয়ার সেরা ৭ উইকেট নেওয়া ওয়াগনার আগুন ঝরিয়েছেন হ্যামিল্টনেও। দ্বিতীয় ইনিংসে একের পর এক বাউন্সারে নিয়েছেন ৩ উইকেট। তাঁর বাউন্সারে আঘাত পেয়ে হাত ভেঙেছে ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যান সুনীল এমব্রিসের। ৫ রানে থাকার সময় মাঠের বাইরে যাওয়া এমব্রিস নামতে পারেননি আর। ওয়ানডে সিরিজেও খেলা হচ্ছে না তাঁর।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ তৃতীয় দিন শেষ করেছিল ২ উইকেটে ৩০ রানে। আশার আলো হয়েছিলেন ১৩ রানে অপরাজিত থাকা অধিনায়ক ক্রেগ ব্রাথওয়েট। আশা মিলিয়ে যায় ব্রাথওয়েট মাত্র ২০ রানে ট্রেন্ট বোল্টের বলে কেন উইলিয়ামসনের তালুবন্দি হয়ে। হ্যামিল্টনের বাউন্স কাজে লাগিয়ে নেইল ওয়াগনার করতে থাকেন টানা শর্ট বল। সাফল্যও আসে তাতে। তিনি একে একে ফেরান শাই হোপ, রস্টন চেস ও শেন ডরউইচকে। তাঁর বাউন্সারে হাতে আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়েন সুনীল এমব্রিস। শেষ দিকে কিছুটা প্রতিরোধ গড়েছিলেন রেমন রেইফার ও কেমার রোচ। তাতে নিউজিল্যান্ডের জয়ের অপেক্ষাটা বেড়েছে একটু। মিচেল স্যান্টনারের বলে বোল্ড হওয়ার আগে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩২ করেন রোচ। রেইফারের ব্যাট থেকে আসে ২৯। এভাবে এক দিন আগে টেস্ট হারায় হতাশা ঝরল ক্যারিবীয় অধিনায়ক ক্রেগ ব্রাথওয়েটের কণ্ঠে, ‘আমাদের ব্যাটিং যাচ্ছেতাই হয়েছে। প্রতিরোধই গড়তে পারিনি। টেস্টে ভালো করতে হলে ব্যাটিংয়ে উন্নতি করতে হবে আরো।’ টেস্টের পর ৩ ম্যাচের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজে ব্যাটিং শক্তি বাড়াতে যোগ দিচ্ছেন ক্রিস গেইল, মারলন স্যামুয়েলস, সুনীল নারিনরা। তখন হয়তো এভাবে একতরফা হার মানতে হবে না ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। ক্রিকইনফো

মন্তব্য