kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

পোশাক খাতে চলতি বছর ১৬ বিলিয়ন ডলার আয়ের সম্ভাবনা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ জানুয়ারি, ২০১১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বর্তমান রপ্তানি প্রবৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে চলতি অর্থবছরে দেশের পোশাক খাতের রপ্তানি আয় ১৬ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে বলে জানিয়েছেন এ খাতের উদ্যোক্তারা। তাঁরা বলেছেন, 'প্রয়োজনীয় গ্যাস, বিদ্যুৎ ও বন্দর সেবা পেলে পোশাক খাত থেকে ৩৫ বিলিয়ন ডলার আয় করা সম্ভব।' গতকাল বুধবার পোশাক শিল্প প্রযুক্তির আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী গার্মেন্টেক মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাঁরা এসব কথা বলেন। গত অর্থবছরে পোশাক খাতের রপ্তানি আয় ছিল ১২ বিলিয়ন ডলার। এ ছাড়া অক্টোবর মাসের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী পোশাক খাতের রপ্তানি আয় আগের বছরের অক্টোবরের তুলনায় ৬৫ শতাংশ বেশি। এসব তথ্য জানিয়ে পোশাক শিল্পমালিকরা বলেন, 'প্রবৃদ্ধি বাড়াতে ব্যবসায়ীদের গ্যাস-বিদ্যুৎ দিতে হবে। বন্দরে সঠিক সেবার নিশ্চয়তা দিতে হবে।' গতকাল রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে গার্মেন্টেক মেলার উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়া। মেলায় ২৫টি দেশের প্রায় ১৫০টি কম্পানি পোশাক খাতের সবচেয়ে আধুনিক প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি প্রদর্শন করছে। মেলাটি যৌথভাবে আয়োজন করেছে জাকারিয়া ট্রেড অ্যান্ড ফেয়ার ইন্টারন্যাশনাল ও এএসকে ট্রেড এঙ্িিবশনস্। মেলা আয়োজনে তাদের সহায়তা করেছে জিটিজি ও ব্রাক ব্যাংক। মেলায় চীন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক, থাইল্যান্ড, হংকং, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, মালয়েশিয়া, ইন্ডিয়াসহ ২৫টি দেশ অংশ নিয়েছে। ওই সব দেশের কম্পানিগুলো নিটিং, সুইং, ফিনিশিং, লন্ড্রি, এমব্রয়ডারি, প্রিন্টিং ও প্যাকেজিংয়ের যন্ত্রপাতি প্রদর্শন করছে। দিলীপ বড়ুয়া বলেন, 'গত ছয় মাসে পোশাক খাতে ব্যাপক প্রবৃদ্ধি হয়েছে। সরকার এ খাতকে সামনে এগিয়ে যেতে সহায়তা দিয়েছে। ভবিষ্যতেও সহায়তা অব্যাহত রাখতে সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।' ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সভাপতি এ কে আজাদ বলেন, 'পোশাক খাতের উন্নয়নের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। গত অর্থবছরে এ খাতের রপ্তানি আয় হয়েছে ১২ বিলিয়ন ডলার। গত অক্টোবর মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬৫ শতাংশ। প্রয়োজনীয় গ্যাস, বিদ্যুৎ, পরিবহন ও বন্দর সেবা পেলে এ খাত থেকে বছরে ৩৫ বিলিয়ন ডলার আয় করা সম্ভব।' পোশাক শিল্পমালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি বলেন, 'পোশাক রপ্তানিতে যে হারে প্রবৃদ্ধি হচ্ছে, তা অব্যাহত থাকলে চলতি অর্থবছরে এ খাত থেকে রপ্তানি আয় ১৬ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। আমরা মেঙ্েিকাকে ছাড়িয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ইতিমধ্যেই আমাদের অবস্থান শক্তিশালী করেছি। আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশের অংশীদারত্ব বাড়াতে আমরা দামি পোশাক রপ্তানি শুরু করেছি।' পোশাক খাতের ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ খাতে বিনিয়োগের ব্যাপক সম্ভাবনা আছে বলে উল্লেখ করে তিনি বিদেশি কম্পানিগুলোকে এ খাতে বিনিয়োগের আহ্বান জানান। মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাকারিয়া ট্রেড অ্যান্ড ফেয়ার ইন্টারন্যাশনালের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাকারিয়া ভূঁইয়া বক্তব্য রাখেন। গার্মেন্টেক মেলার পাশাপাশি মেলার প্রাঙ্গণে 'ইন্টারন্যাশনাল ফেব্রিকস্ অ্যান্ড এঙ্সেরিজ্ সোসিং ফেয়ারের' আয়োজন করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন



সাতদিনের সেরা