kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৯ নভেম্বর ২০২২ । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সিরামিকের বাজার ৮ হাজার কোটি টাকা

সজীব আহমেদ   

২৪ নভেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৮ মিনিটে



সিরামিকের বাজার ৮ হাজার কোটি টাকা

একটি দোকানে থরে থরে সাজানো সিরামিকের পণ্য। ছবি : লুৎফর রহমান

বাংলাদেশের সিরামিকশিল্পের সামনে বিরাট সম্ভাবনা। দেশে উৎপাদিত সিরামিক এখন চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে। এতে এটি বৃহৎ শিল্পে রূপ নিয়েছে। দেশে গড়ে উঠেছে ৭০টি প্রতিষ্ঠান।

বিজ্ঞাপন

তাদের বিনিয়োগ প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা।

সিরামিক পণ্যের দেশীয় বাজারের আকার আট হাজার কোটি টাকা। বছরে রপ্তানি হচ্ছে ৫০০ কোটি টাকার বেশি সিরামিক পণ্য। এই খাতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে পাঁচ লাখের বেশি মানুষ জড়িত। গত ১০ বছরে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২০০ শতাংশ। এখন বছরে প্রবৃদ্ধি ১৫ শতাংশ হারে।

খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বলছেন, শৌখিনতা ছাড়িয়ে সিরামিক এখন জীবনের অত্যাবশ্যকীয় অনুষঙ্গ। বাংলাদেশে মূলত এখন তিন ধরনের সিরামিক পণ্য উৎপাদিত হচ্ছে। টেবিলওয়্যার, টাইলস ও স্যানিটারিওয়্যার। সিরামিক দিয়ে তৈরি হচ্ছে বাড়িঘরে ব্যবহারযোগ্য বিভিন্ন ধরনের টাইলস, স্যানিটারিওয়্যার (বেসিন, কমোড), ফুলের টব, মটকা, কিচেনওয়্যার, টেবিলওয়্যার, ডিনার সেট, টি সেট, কফি মগ, বাটি থেকে শুরু করে গৃহস্থালির বিভিন্ন জিনিস।

বাংলাদেশ সিরামিক ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিসিএমইএ) তথ্য মতে, এক যুগ আগেও বিদেশ থেকে আমদানি করতে হতো বিভিন্ন সিরামিক পণ্য। এখন বাংলাদেশে উৎপাদিত সিরামিক পণ্য দেশের বাজারের প্রায় ৮৫-৯০ শতাংশ চাহিদা মিটিয়ে বিশ্বের ৫০টিরও বেশি দেশে রপ্তানি হচ্ছে।

দেশে বর্তমানে ৭০টি প্রতিষ্ঠান সিরামিক পণ্য বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করছে। এর মধ্যে ৩২টি প্রতিষ্ঠান টাইলস উৎপাদন করছে। ২০টি প্রতিষ্ঠান টেবিলওয়্যার (তৈজসপত্র) ও ১৮টি প্রতিষ্ঠান স্যানিটারিওয়্যার উৎপাদন করছে। স্থানীয় বাজারে এখন বছরে আট হাজার কোটি টাকার সিরামিক পণ্য বিক্রি হয়। বছরে এখন রপ্তানিও হচ্ছে ৫০০ কোটি টাকার বেশি সিরামিক। চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরে এ খাতে রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ৮০০ কোটি টাকা। তবে বর্তমানে গ্যাসসংকটের কারণে তা ব্যাহত হচ্ছে।

খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, দেশে উৎপাদিত সিরামিক পণ্যের গুণগত মান ভালো হওয়ায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চাহিদা বাড়ছে। বর্তমানে দেশের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি ইউরোপসহ বিশ্বের ৫০টিরও বেশি দেশে রপ্তানি হচ্ছে। সরকার সিরামিক পণ্য রপ্তানিতে আরো সুনজর দিলে রপ্তানি বাড়বে। দেশের অর্থনীতিতে আরো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে এই খাত।

এ ব্যাপারে বিসিএমইএর সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘২০০০ সালের আগে সিরামিকশিল্পে তেমন বিনিয়োগ ছিল না। এই খাতে মূলত ২০০০ সাল থেকে বিনিয়োগ শুরু হলেও ব্যাপকভাবে বিনিয়োগ বৃদ্ধি পেয়েছে ২০০৮ সালের পর। একসময় সিরামিকশিল্পটি আমদানিনির্ভর ছিল, এখন দেশের প্রায় ৯০ শতাংশ চাহিদা দেশে উৎপাদিত সিরামিকেই পূরণ হচ্ছে। এই খাতে বিনিয়োগ এখন ১৫ হাজার কোটি টাকা। ’

তিনি বলেন, ‘একসময় সিরামিক পণ্য আমদানিতে আমাদের বিপুল পরিমাণ বৈদেশি মুদ্রা ব্যয় হতো। এখন আমরা সিরামিক পণ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ায় বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রার সাশ্রয় হচ্ছে। ’

রপ্তানির বিষয়ে সিরাজুল ইসলাম মোল্লা বলেন, ‘আমাদের উৎপাদিত সিরামিক পণ্য এখন ইউরোপসহ বিশ্বের ৫০টিরও বেশি দেশে রপ্তানি হচ্ছে। প্রতিবছরই রপ্তানির পরিমাণ বাড়ছে। একসময় সিরামিক পণ্যের মধ্যে শুধু টেবিলওয়্যার রপ্তানি হতো। গত ২০২০ সাল থেকে টেবিলওয়্যারের পাশাপাশি টাইলস ও স্যানিটারিও রপ্তানি হচ্ছে। টেবিলওয়্যার পণ্য রপ্তানিতে ১০ শতাংশ প্রণোদনা সুবিধা দিয়েছে সরকার। ’ সিরামিকের সব পণ্য রপ্তানিতে ২০ শতাংশ প্রণোদনা সুবিধা দিলে রপ্তানি উল্লেখযোগ্য হারে বাড়বে বলেও তিনি জানান।

কাঁচামাল আমদানির বিষয়ে বিসিএমইএর সভাপতি বলেন, ‘সিরামিক পণ্যের শতভাগ কাঁচামাল আমদানিনির্ভর। মালয়েশিয়া, চীন, ভারত, ব্যাংকক, ইতালি থেকে কাঁচামাল আমদানি করা হয়। সিরামিক পণ্য উৎপাদনে কাঁচামালের মধ্যে উপাদান শুল্ক এখনো ৩০-৩২ শতাংশ। এই উচ্চ শুল্কের কারণে উৎপাদন খরচ বেশি হচ্ছে। শুল্কহার কমানো হলে আমরা আরো কম দামে বাজারে সিরামিক পণ্য সরবরাহ করতে পারব। ’

বিসিএমইএর সাধারণ সম্পাদক ইরফান উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘দেশে সিরামিকশিল্পের সম্ভাবনা অনেক ভালো। দেশের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি ছোট পরিসরে রপ্তানি শুরু হয়েছে। সামনে রপ্তানির পরিমাণ ব্যাপকভাবে বাড়বে। এখন আমরা যদি আমাদের উৎপাদনটি ঠিক রাখতে পারি, তাহলে সামনে আমাদের প্রবৃদ্ধি আরো বাড়বে। গত ১০ বছরেই সিরামিক খাতে ২০০ শতাংশ পর্যন্ত প্রবৃদ্ধি হয়েছে। ’

তিনি বলেন, ‘সিরামিক পণ্যের কাঁচামাল আমাদের আমদানি করে আনতে হয়। কিছু কাঁচামাল আমদানিতে শুল্ক এখনো অনেক বেশি। এগুলোতে যদি শুল্ক কমানো যায়, তাহলে এই খাতটি আরো উন্নতি করবে। ’

দেশে সিরামিকশিল্পের গোড়াপত্তন : ১৯৬০ সালে পোরসেলিন আর সিরামিকের বাসনপত্র উৎপাদনকারী তাজমা সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজের মাধ্যমে এ দেশে ব্যবসা শুরু হয়। এখন বৃহৎ শিল্পগুলোর একটিতে পরিণত হয়েছে। সরাসরি নিয়োজিত কর্মীর পাশাপাশি সংযুক্ত শিল্প মিলিয়ে পাঁচ লাখের ওপর মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। সরকারি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ইনস্যুলেটর অ্যান্ড স্যানিটারিওয়্যার ফ্যাক্টরি (বিআইএসএফ) দেশে ১৯৭৭ সালে প্রথম সিরামিক টাইলস ও স্যানিটারি পণ্য বানানো শুরু করে।

বেসরকারিভাবে ১৯৯৩ সালে মধুমতি সিরামিক প্রথম এ খাতে বিনিয়োগ করে। এরপর তাইওয়ানের বিনিয়োগে ফু-ওয়াং সিরামিক, সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিনিয়োগে আরএকে সিরামিকস, চায়না-বাংলা সিরামিকসহ (সিবিসি) বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান টাইলস উৎপাদন শুরু করে।

ছোট থেকে দ্রুত বৃহৎ শিল্প : দেশে আবাসনশিল্পের বিকাশের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বড় হচ্ছে সিরামিকের বাজার। সাশ্রয়ী মূল্য ও টেকসই হওয়ায় নির্মাণ, গৃহস্থালি এবং শোভাবর্ধক কাজে সিরামিকসের পণ্যসামগ্রীর ব্যবহার বহুগুণ বাড়ছে। ক্রমবর্ধমান চাহিদার কারণে এ খাতে বিনিয়োগ বেড়ে এখন ১৫ হাজার কোটি টাকা। এই শিল্পে এখন দেশের শীর্ষস্থানীয় গ্রুপগুলো বিনিয়োগ করছে। সম্ভাবনাময় এ খাত উদ্যোক্তাদের মধ্যে আশার আলো জাগিয়েছে, যার ফলে ছোট এই খাতটি দ্রুত সময়ের মধ্যে বৃহৎ একটি শিল্পে পরিণত হচ্ছে।

সিরামিকশিল্পে নেতৃত্বে যারা : বিসিএমইএর তথ্য মতে, দেশে সিরামিক খাতে শীর্ষে রয়েছে আকিজ সিরামিক, আরকে সিরামিক, গ্রেটওয়াল সিরামিক, সিবিসি, এক্স, শেলটেক, ডিবিএল, স্টার ও ফার সিরামিক। বর্তমানে সিরামিকশিল্পে মার্কেট শেয়ারের দিক দিয়ে শীর্ষে রয়েছে আকিজ সিরামিক। দ্বিতীয় পর্যায়ে রয়েছে আরকে। তৃতীয় পর্যায়ে রয়েছে এক্স সিরামিক।

পণ্যভেদে বাজার অংশীদারির শীর্ষ প্রতিষ্ঠান বিচার করলে টেবিলওয়্যারে শীর্ষ অবস্থানে আছে বেক্সিমকো গ্রুপের শাইনপুকুর সিরামিকস। এরপর মুন্নু সিরামিকস, ফার সিরামিকসসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের উল্লেখযোগ্য বাজার অংশীদারি রয়েছে।

সিরামিকশিল্পের চ্যালেঞ্জ : সিরামিক খাতে বর্তমানে ৭০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২৫টির বেশি বৃহৎ কারখানা  চার-পাঁচ মাস ধরে গ্যাসসংকটে ভুগছে। টাইলস ও স্যানিটারিওয়্যার কারখানাগুলোতে দৈনিক আট থেকে ১২ ঘণ্টা পর্যন্ত প্রয়োজনীয় গ্যাসের চাপ থাকছে না। ফলে কারখানাভেদে উৎপাদন ৪০-৬০ শতাংশ পর্যন্ত কমেছে, যার কারণে কম্পানিগুলো লোকসান গুনছে।

এই বিষয়ে বিসিএমইএর সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লা বলেন, ‘সিরামিক পণ্য উৎপাদনের প্রধান জ্বালানি হলো গ্যাস। সম্প্রতি গ্যাসসংকটের কারণে আমাদের কারখানার উৎপাদন প্রায় অর্ধেক কমে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে সম্ভাবনাময় এই খাত একসময় হুমকির মুখে পড়ে যাবে। তাই এই খাতের কারখানাগুলোতে নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। ’

তিনি বলেন, ‘রপ্তানি বাজার সম্প্রসারণ ও স্থানীয় বাজার দখলে কাঁচামাল ও উপকরণের ওপর থেকে আমদানি শুল্ক কমানো যেতে পারে। বিদেশ থেকে তৈরি সিরামিক পণ্যের আমদানিতে সম্পূরক শুল্ক বাড়ানো ও সিরামিকের কাঁচামাল আমদানিতে শুল্ক কমাতে হবে। এ ছাড়া এই শিল্পে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও দক্ষ জনবলের অভাব রয়েছে। সরকার প্রকল্পের মাধ্যমে দক্ষ জনবল তৈরি করলে এই শিল্পের আরো প্রসার হতো বলেও তিনি জানান।

স্যানিটারিতে পিছিয়ে দেশীয় ব্র্যান্ড : সম্প্রতি রাজধানীর সিরামিকের সবচেয়ে বড় বাজার বাংলামোটর ঘুরে দেখা গেছে, দেশে উৎপাদিত সিরামিক পণ্যের পাশাপাশি আমদানি করা বিদেশি ব্র্যান্ডের সিরামিক পণ্য বিক্রি হচ্ছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, এখন দেশীয় ব্র্যান্ডের টাইলসের মান ভালো হওয়ায় ৮৫ শতাংশের বেশি ক্রেতা এখন দেশীয় ব্র্যান্ডের টাইলস কিনছেন। তবে স্যানিটারি পণ্যগুলোর মধ্যে এখনো চায়না ব্র্যান্ডের দিকেই নজর বেশি ক্রেতাদের।

রাজধানীর বাংলামোটরের নিউ আরকে টাইলস অ্যান্ড স্যানিটারির দোকানের সেলস এক্সকিউটিভ ইমন আহমেদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিদেশি-দেশি কম্পানির টাইলসের মধ্যে মানের দিক দিয়ে এখন প্রায় সব একই। তবে বিদেশি ব্র্যান্ড থেকে দেশীয় ব্র্যান্ডের দামও কিছুটা কম। এতে দেশীয় ব্র্যান্ডের টাইলস বেশি বিক্রি হচ্ছে। আগে ১০ থেকে ১৫ শতাংশের মতো বিদেশি ব্র্যান্ডের টাইলস বিক্রি হলেও চলমান ডলার পরিস্থিতির কারণে বিদেশি টাইলস আমদানি হচ্ছে না, এতে একতরফাভাবে দেশীয় টাইলস বিক্রি হচ্ছে। ’

তিনি বলেন, ‘দেশীয় কম্পানিগুলো উন্নত মানের স্যানিটারি পণ্য উৎপাদন করলেও, ক্রেতাদের পছন্দ চায়না ব্র্যান্ডের স্যানিটারিতেই। ফলে স্যানিটারি পণ্যগুলো এখনো চায়না ব্র্যান্ডের দখলে আছে। ’ 

বাংলামোটরের নিউ আরকে টাইলস অ্যান্ড স্যানিটারি দোকানে কিনতে আসা গ্রিন রোডের এক ব্যবসায়ী সৈয়দ মামুন রেজা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘নতুন বাড়ি করেছি। এখন ফ্লোরের জন্য টাইলস পছন্দ করতে এসেছি। আগের বাসায় দেশি ব্র্যান্ডের টাইলস ব্যবহার করেছি, মান খারাপ না, তাই নতুন বাসায়ও দেশি ব্র্যান্ডের টাইলস কিনব। ’

তিনি বলেন, ‘স্যানিটারির ক্ষেত্রে চায়নার কিছু ব্র্যান্ড আমার পছন্দ। তাই চায়না কম্পানিগুলোর স্যানিটারি পণ্য কেনার ইচ্ছা। ’



সাতদিনের সেরা