kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

করোনা-পরবর্তী প্রচারণায় পিছিয়ে দেশের পর্যটন

বিদেশে আয়োজিত মেলায় অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার পরামর্শ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনা-পরবর্তী প্রচারণায় পিছিয়ে দেশের পর্যটন

দেশের বিশাল সম্ভাবনাময় ট্যুরিজম খাত যে প্রচারণায় পিছিয়ে আছে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ফলে কভিড-পরবর্তী পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, কভিড-পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ ট্যুরিজম খাতের প্রচারণায় তেমন কোনো পদক্ষেপই নেওয়া হয়নি।

পর্যটন বিশেষজ্ঞ কাজী ওয়াহিদুল আলম মনে করেন ট্যুরিজম বোর্ডের দক্ষতা ও সদিচ্ছার অভাব রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এই মুহূর্তে আমাদের যে পর্যটন স্পটগুলো রয়েছে, সেগুলোর প্রচারণা আগে দরকার। বিশ্ব তো জানেই না কভিড-পরবর্তী সময়ে আমরা সব কিছুু খুলে দিয়েছি। সুতরাং আমাদের এখন আগে দরকার ব্রান্ডিং। ’ তিনি আরো বলেন, ‘বিশেষ করে বিদেশে আয়োজিত মেলাগুলোতে আমাদের অংশগ্রহণ আগে দরকার। কারণ বিদেশি পর্যটকদের জানাতে হবে আমাদের দেশ সম্পর্কে। ভুটান, মালদ্বীপের মতো দেশ মেলা করছে সেখানে আমরা যেতে পারছি না। ’

ওয়াহিদুল আলম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘ট্যুরিজমের খাতের প্রচারণা শুধু শোভাযাত্রা দিয়ে করলে হবে না। এতে আমাদের কী উপকার হবে? আমি তো ট্যুরিজম বোর্ডের এই শোভাযাত্রা করা ছাড়া কোনো কাজ দেখি না। ’ তিনি বলেন, ‘আমাদের এখন সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। ’

মেয়াদ শেষ হয় প্রকল্প বাস্তবায়ন হয় না : দেশের পর্যটন খাতকে এগিয়ে নিতে ২০১৬ সালকে পর্যটন বর্ষ ঘোষণা করা হয়। হাতে নেওয়া হয় নানা প্রকল্প ও কর্মসূচি। এসব প্রকল্পের মধ্যে একটি হলো ‘দেশের কতিপয় পর্যটন এলাকায় পর্যটন সুবিধাদির উন্নয়ন প্রকল্প’। স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যটকদের আকৃষ্ট করার জন্য সম্ভাবনাময় পর্যটনকেন্দ্রগুলোর উন্নয়ন ও সৌন্দর্য বাড়ানোই এ প্রকল্পের উদ্দেশ্য; কিন্তু বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের (বাপক) আওতাধীন এই প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হলেও কাজ শেষ না হওয়ায় সুফল পাচ্ছে না পর্যটকরা।



সাতদিনের সেরা