kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

ঝালকাঠি ১ ও ২ আসন

আবার আশাহত নবীনরা

ঝালকাঠি ও রাজাপুর প্রতিনিধি   

৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া) ও ঝালকাঠি-২ (সদর ও নলছিটি উপজেলা) আসনে এবারও প্রবীণদের ভিড়ে দলীয় মনোনয়ন থেকে বঞ্চিত হলেন অনেক উঠতি নেতা। আগের দুটি নির্বাচনেও অনেক তরুণ নেতা মনোনয়ন চেয়ে পাননি। আর বিষয়টি নিয়ে কেবল মনোনয়নপ্রত্যাশী নয়, খানিকটা হতাশা আছে ভোটারদের মধ্যেও।

এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি—উভয় দল থেকেই একাধিক তরুণ নেতা মনোনয়ন প্রত্যাশা করেছিলেন। সাবেক ছাত্রনেতা ও বর্তমানে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা এম মনিরুজ্জামান মনির আগের দুই নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চেয়েও পাননি। এবারও তিনি মনোনয়ন চেয়ে আশাহত হয়েছেন। টানা তৃতীয়বারের মতো মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুন। গত সোমবার রাজাপুরে মনিরের কর্মী-সমর্থকরা ব্যাপক বিক্ষোভও করেছে। এ ছাড়াও এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে বঞ্চিত হয়েছেন রাজাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা মুকুল মৃধা, স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান ফাতিনাজ ফিরোজ ও কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগ নেত্রী কেশোয়ারা সুলতানা।

অন্যদিকে বিএনপি থেকে যুক্তরাজ্য বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক তরুণ নেতা ইঞ্জিনিয়ার এ কে এম রেজাউল করিম মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তাঁকে বাদ দিয়ে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও দলের প্রবীণ নেতা ব্যারিস্টার মুহাম্মদ শাহজাহান ওমরকে। এ ছাড়া কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আজম সৈকত মনোনয়ন চেয়ে পাননি। তিনি অবশ্য এবারই প্রথম মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন।

তরুণরা মনোনয়ন না পাওয়ায় হতাশার কথা জানিয়েছেন তরুণ ভোটাররাও। তাঁরা বলছেন, যত দিন পর্যন্ত দেশ পরিচালনায় তরুণদের অংশগ্রহণ না বাড়বে, তত দিন দেশের আমূল পরিবর্তন হবে না।

রাজাপুর সদরে এ বছর নতুন ভোটার হওয়া দিনমজুর মো. আলী বলেন, ‘লেহাপড়া জানা জুয়ানগো চিন্তা-ভাবনাই আলেদা। হেরা বুড়াগো চাইতে দেশ লইয়া অনেক বেশি চিন্তা হরে। আর বুড়ারা হরে (করে) টাহার চিন্তা।’

এদিকে ঝালকাঠি-২ আসনেও একই অবস্থা। আওয়ামী লীগ থেকে এ আসনে মনোনয়ন পেয়েছেন দলের প্রবীণ নেতা ও শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। তিনি ১৯৭৩ সালের নির্বাচনে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এর পর তিনি ২০০০ সালে উপনির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৮ ও ২০১৪ সালেও দল তাঁকে মনোনয়ন দেয়। মনোনয়ন দিয়েছে এবারও। আমির হোসেন আমু মনোনয়ন পাওয়ায় বঞ্চিত হয়েছেন এ আসনের তরুণ মনোনয়নপ্রত্যাশীরা। তাঁদের মধ্যে আছেন দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য গোলাম রব্বানি চিনু, কেন্দ্রীয় যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক মিল্লাত হোসেন, ঝালকাঠি সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুলতান হোসেন খান ও সাবেক পৌর মেয়র আফজাল হোসেন রানা।

এ ছাড়াও এ আসনে ২০০১, ২০০৮ ও একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে টানা মনোনয়ন পেয়েছিলেন ইসরাত সুলতানা ইলেন। তবে এবার মনোনয়ন পেয়েছেন জেবা আমিন খান। এরপরও এ আসনে জেলা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি মিঞা আহমেদ কিবরিয়া, সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম নূপুর, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহসাংগঠনিক সম্পাদক মাহাবুবুল হক নান্নু, বিএনপি নেতা গোলাম মোস্তফা ছালু, কেন্দ্রীয় যুবদল নেতা ফারুক আহম্মেদের মতো অনেক তরুণ নেতা মনোনয়ন থেকে বঞ্চিত হন।

জেলা বিএনপির সহসভাপতি মিঞা আহমেদ কিবরিয়া বলেন, ‘দলের সিদ্ধান্ত মেনেই আমাদের নির্বাচনে অংশ নিতে হচ্ছে। এরপরও দীর্ঘদিন ধরে দলের হাল ধরেও মনোনয়ন না পাওয়ায় আমার সমর্থকরা হতাশ হয়ে পড়েছেন।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা