kalerkantho

মঙ্গলবার । ৫ জুলাই ২০২২ । ২১ আষাঢ় ১৪২৯ । ৫ জিলহজ ১৪৪৩

মনোযোগী পাঠক না হলে খেই হারাতে হবে

রহিম শেখ, নওগাঁ   

২৭ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মনোযোগী পাঠক না হলে খেই হারাতে হবে

শহীদুল জহির

আখ্যান বর্ণনার প্রচলিত ভঙ্গি থেকে গল্প-উপন্যাসকে মুক্তি দিয়েছিলেন শহীদুল জহির। ঘটনার কালপরম্পরা রক্ষার দায়ও তিনি বহন করেননি। এক কাল থেকে অন্য কালে তাঁর যাতায়াত ছিল অনায়াসসাধ্য। ‘মুখের দিকে দেখি’ উপন্যাসে এসব চারিত্র্য-বৈশিষ্ট্য পারঙ্গমতার সঙ্গে দৃশ্যমান।

বিজ্ঞাপন

আখ্যানভাগ নির্মাণে, বর্ণনাভঙ্গি ও প্রকরণে এই উপন্যাসেও রয়েছে অভিনবত্ব। কালপর্ব প্রায় চার দশক পর্যন্ত বিস্তৃত। এই উপন্যাসের প্রধান চরিত্র একাধিক। খৈমন ও তার ছেলে চান মিঞা, মামুন ও লেদু, আসমানতারা ও ‘খরকোস’, মেরি ক্লার্ক ও তার কন্যা জুলি—কেউই কারো চেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। তাদের দৈনন্দিন জীবনের নানা উত্থান-পতনময় ঘটনাপ্রবাহ আছে, তেমনি আছে সমকালীন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক বাস্তবতা। আছে পুরান ঢাকার মানুষগুলোর বেঁচে থাকার সংগ্রাম, স্বপ্ন ও স্বপ্নভঙ্গ, আশা ও নৈরাশ্য, আনন্দ ও হাহাকার সব। তীক্ষ বিদ্রুপ দিয়ে বিদ্ধ করেছেন সুধীসমাজ, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস ও বেনিয়া বাণিজ্যপ্রবণতাকে। শহীদুল জহির পাঠকদের কাছ থেকে অনেক বেশি মনোযোগ আশা করেন। নিবিষ্ট পাঠক না হলে এই উপন্যাস পড়তে গিয়ে খেই হারিয়ে ফেলতে পারেন।

অনুলিখন : পিন্টু রঞ্জন অর্ক



সাতদিনের সেরা