kalerkantho

রবিবার । ৯ মাঘ ১৪২৮। ২৩ জানুয়ারি ২০২২। ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

মেজো বউয়ের সেই প্রশ্নের উত্তর দেবে কে?

সামস্ সাহেলা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়   

১২ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মেজো বউয়ের সেই প্রশ্নের উত্তর দেবে কে?

হাসান আজিজুল হক

হাসান আজিজুল হক ‘আগুনপাখি’ উপন্যাসে বর্ণনার ঢঙের পাশাপাশি ভাষারীতিতেও বৈচিত্র্য এনেছেন। উপন্যাসটির কথক ও কেন্দ্রীয় চরিত্র একজন সাধারণ গ্রাম্য নারী। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাবঞ্চিত। অন্দরমহলের বাইরের পৃথিবীর সঙ্গে অপরিচিত।

বিজ্ঞাপন

ঔপন্যাসিক তাকে ‘মেজো বউ’ বলে সম্বোধন করেছেন। সে তার শাশুড়ির ভাষায় ‘সংসারের পায়া’ হলেও কোথাও মেজো বউয়ের নিজস্ব বক্তব্য নেই। সে পর পর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন সংকট, সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা, একান্নবর্তী পরিবারের ভাঙনের বর্ণনা দিয়েছে রাজনৈতিক তত্ত্বের বাইরে থেকে। দেশ দু-টুকরা হওয়ার আগে সে অবাক দৃষ্টিতে দেখেছে চিরকাল একসঙ্গে বেঁচে থাকা মানুষগুলো কেমন ধর্মের নামে পরস্পরের শত্রু হয়ে যায়। সারা জীবন অস্তিত্বহীন থাকা ‘মেজো বউ’ নিজেকে আবিষ্কার করে একজন ‘ব্যক্তি’ হিসেবে। স্বামী-কন্যা-পুত্রদের সঙ্গে মুসলমানের দেশে যেতে অস্বীকৃতি জানায়, কারণ সে নিজে থেকে বুঝে নিতে চায়—‘আমি সব কিছু শুধু নিজে বুঝে নিতে চেয়েছি। আমাকে কেউ বোঝাইতে পারলে না যে সেই দ্যাশটা আমি মোসলমান বলেই আমার দ্যাশ আর এই দ্যাশটি আমার লয়। আমি আমার সোয়ামি তো একটি মানুষ লয়, আলাদা মানুষ। ’ তবে শেষ পর্যন্ত ‘মেজো বউ’ আশাবাদী—ধর্মের পরিচয়ে মানুষ মানুষকে আর পর করে দেবে না। পূর্বের সুরুজের আলোয় আলোকিত হবে মানুষের অন্তর।

অনুলিখন : পিন্টু রঞ্জন অর্ক



সাতদিনের সেরা