kalerkantho

রবিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৮। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৮ সফর ১৪৪৩

পাগল ও সেই পরিব্রাজক

আফজাল হোসেন, কাট্টলী, নেত্রকোনা

৩০ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



পাগল ও সেই পরিব্রাজক

গভীর ঘুম থেকে জেগে উঠে লোকটি দেখল তার সব মুখোশ চুরি হয়ে গেছে। নারী-পুরুষরা তাকে উপহাস করল; কারণ সে পাগল। অথচ সূর্য তাকে মাথা নত করে চুম্বন করল এবং স্বাগত জানাল। লোক-দেখানো মুখোশ ত্যাগ করা লোকটি বিভিন্ন ঘটনায় ও প্রাণীতে অসাধারণ সব বিষয় প্রত্যক্ষ করে, যা আমাদের অনুভূতি ও উপলব্ধিকে নাড়া দেয়। এভাবেই কাহলিল জিবরানের সৃষ্ট পাগল চরিত্রের সূচনা। জিবরানের নিজের খ্রিস্টধর্ম, ইসলাম ধর্ম, আরব, আমেরিকা ও ইউরোপের সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচয় ছিল। জিবরান তাঁর ‘দ্য ম্যাডম্যান ও দ্য ওয়ান্ডারার’ বইতে পারসনিফিকেশনের দারুণ প্রয়োগ করেছেন। এক শ-দুই শ শব্দের আলাদা অণুগল্পরূপ লেখাগুলো পাঠককে আরাম দেয় আর পড়ার পর বারবার ভাবায়। জিবরান তাঁর বক্তব্য ও দর্শন ফুটিয়ে তুলেছিলেন নানাধর্মী চরিত্রের মাধ্যমে। পাগল ও সেই পরিব্রাজকের লেখাগুলো পড়ার পর মনে হয় যেন এগুলো আঁকা ছবি, যা আমাদের চোখের সামনে তুলে ধরা হয়েছে। সামনে থেকে সে লেখা সরে গেলেও ছবি সরছে না। এমনি জাদুতে আবদ্ধ করে জিবরানের লেখা।



সাতদিনের সেরা