kalerkantho

শুক্রবার । ২ আশ্বিন ১৪২৮। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ৯ সফর ১৪৪৩

বেস্ট সেলারস

১৮ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বেস্ট সেলারস

গোল্ডেন গার্ল : এলিন হিল্ডারব্র্যান্ড

এলিন হিল্ডারব্র্যান্ডের ২৭তম উপন্যাস ‘গোল্ডেন গার্ল’। এই উপন্যাসে সদ্যোমৃত একজন ঔপন্যাসিক পরকালের গ্রিনরুম থেকে দেখতে পায় তাকে ছাড়া তার পরিচিতজনের জীবন কেমন চলছে। হিল্ডারব্র্যান্ডের নিজের প্রতিচ্ছবিই দেখতে পাওয়া যায় এই উপন্যাসের প্রধান চরিত্রের মধ্যে। সকালবেলা হাঁটতে বের হয়ে দ্রুতগামী একটা গাড়ির ধাক্কায় মারা যায় ভিভিয়ান হো নামের এই লেখক চরিত্র। তার ছেলের বন্ধু ভিভিয়ানের মৃতদেহ দেখতে পায়। তবে সন্দেহ তৈরি হয়, সে নিজেই দায়ী এ দুর্ঘটনার জন্য। ভিভিয়ান অবশ্য জানতে পারে না আসল কারণটা। সে জানে না, তার মেয়ে উইলার পেটে বাচ্চা এসেছে; জানে না তার আরেক মেয়ে কারসন ভয়াবহ এক প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছে; জানে না তার ছেলে লিও বয়ে বেড়াচ্ছে এক অসহনীয় যন্ত্রণাদায়ক গোপন বিষয় কিংবা জানে না তার স্বামী যে মেয়ের প্রলোভনে পড়ে তাকে ত্যাগ করেছে এখন আর সেই মেয়ের প্রতি তার টান নেই। তবে এ সবকিছুই এখন তার চোখের সামনে ভেসে উঠবে। সব কিছু জানতে পারবে সে।

 

ওয়ান লাস্ট স্টপ : ক্যাসি ম্যাককুইস্টন

রোমান্টিক কমেডি লেখক ক্যাসি ম্যাককুইস্টনের উপন্যাস ‘ওয়ান লাস্ট স্টপ’। ২৩ বছর বয়সী নৈরাশ্যবাদী মেয়ে অগাস্ট মনে করে, বাস্তব জীবনে ম্যাজিক বলে কিছু নেই; সিনেমায় দেখানো প্রেমও বাস্তবে থাকতে পারে না। স্মার্ট জীবন যাপন করতে হলে নিজের মতো চলতে হবে, একাকী চলতে হবে। ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকে এমন একটা হোটেলের টেবিলে ওয়েটারের কাজ করা আর বিচিত্র স্বভাবের রুমমেটদের সঙ্গে থাকা—এমন একটা জীবনে তার স্বচ্ছ বাস্তব ধারণাগুলো কখনো বদলে যেতে পারে এমনটা কল্পনাও করতে পারে না সে। পাতাল ট্রেনে কর্মস্থলে যাওয়া, সেখান থেকে আবার ফিরে আসা—এগুলো তো বিরক্তিকর জীবনের বোঝা টানা ছাড়া আর কিছু নয়। তবে আশ্চর্যের বিষয় হলো, স্বপ্নে দেখা এক মেয়েকে সে নিউ ইয়র্কের পাতাল ট্রেনে দেখতে পায়। নজরকাড়া সৌন্দর্যের অধিকারী রহস্যময়ী মেয়েটার নাম জেন। ট্রেনের ভিড়ভাট্টার সময়টাই যেন দিনের সবচেয়ে সুন্দর মুহূর্ত হয়ে দেখা দেয় অগাস্টের কাছে। এর কারণটা হলো ট্রেনে জেনের উপস্থিতি। তাহলে জীবন সম্পর্কে অগাস্টের বাস্তববাদী ধারণা বদলে যাবে? হ্যাঁ, বদলে যাচ্ছে।

 

ম্যালিবু রাইজিং : টেলর জেনকিনস রিড

টেলর জেনকিনস রিডের বেস্ট সেলিং উপন্যাস ‘ম্যালিবু রাইজিং’। কাহিনিতে বলা হচ্ছে, ১৯৮৩ সালের গ্রীষ্ম শেষের বিশাল অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে যাচ্ছে চার ভাই-বোন। তবে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বদলে যাবে তাদের সবার জীবন। আশপাশের লোক রিভা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গ পাওয়ার জন্য তাদের কাছাকাছি থাকার চেষ্টা করে। কারণ তারা সবাই বিখ্যাত। নিনা রিভা মেধাবী সার্ফার এবং সুপার মডেল; ভাই জে চ্যাম্পিয়ন সার্ফার; আরেক ভাই হাড প্রখ্যাত ফটোগ্রাফার এবং তাদের সবার আদরের ছোট বোন কিট। সবাই তাদের এত পছন্দ করে আরো একটা কারণে : এরা চার ভাই-বোন হলো বিখ্যাত সংগীতজ্ঞ মিক রিভার সন্তান। অনুষ্ঠানের আয়োজন চলছে মহাধুমধামে। তবে তাদের একজন এই আয়োজনটা পছন্দ করছে না। সে হলো নিনা নিজেই। এমনিতেই সে চারপাশের মানুষজনের নজরে থাকতে বিব্রত বোধ করে। তবে হাড, জে ও কিটের আগ্রহ একেবারে বাঁধভাঙা। হাড তার ভাইকে একটা গুরুত্বপূর্ণ কিছু বলতে চায় এই অনুষ্ঠান উপলক্ষে।

দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস অবলম্বনে

দুলাল আল মনসুর



সাতদিনের সেরা