kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

মানুষ

দুলাল সরকার

৫ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



তুমি বৃক্ষের, পাখির বিরক্তির কারণ, তুমি নদী, মাটি

অসহায় বাতাসের হাহাকার তাই নীলাকাশ তোমাকে ভালোবাসে না

ঝর্ণা তোমাকে ভালোবাসে না, পাহাড় আঁতকে উঠে দ্বিধান্বিত হয়

দ্রাবিড় মাটির সহজাত ধ্বনি, দো-আঁশ আস্তরণ

তোমার অশুভ চরণ শুনে ভীতসন্ত্রস্ত হয় রুদ্ধ বাক

                                কাঠালচাঁপার গন্ধ বুক;

 

সাবলীল সন্ধ্যার নদীর হৃদয় সংকুচিত হয়ে মুখ থুবড়ে সৃষ্টি করে

ধু ধু বালুচর—তুমি যেখানেই যাও পায়ের অশ্লীল আওয়াজে

উড়ে যায় রঙিন প্রজাপতি—নববধূর ভীতি নিয়ে

প্রতিটি গোলাপের নম্র কোমল চোখ মুদিত হয়

                                অজানা, অচেনা আতঙ্কে;

 

শ্যামল শস্যক্ষেত তোমাকে চেনে না—পরিচয়ে অনাগ্রহী থই থই

ুদুর্বার ঘনো বুক—মাঠের ’পরে মাঠ তোমার আগমন বার্তায়

শিহরে উঠে অরণ্যের গভীরে থাকা স্বাধীন বিচরিত হরিণ যুগল,

অথচ তোমার সুন্দরের অপেক্ষায় ছিল মেঘমেদুর পুরুষ ময়ূর

তার খোলা পেখমের অন্তস্তলে—হে মানুষ

                        তুমি সুন্দরের স্পন্দন হতে পারো।

মন্তব্য