kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

পথিক তুমি পথ হারাইয়াছ?

রাকিব ইসলাম, মাদারীপুর

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



পথিক তুমি পথ হারাইয়াছ?

কিছুদিন আগে বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ‘কপালকুণ্ডলা’ পড়ে চমত্কৃত হয়েছি। মানবপ্রেম, সামাজিকতা, ইতিহাস ও অতিপ্রাকৃত উপাদানের মিশেলে এগিয়েছে উপন্যাসের কাহিনি। ‘তুমি অধম তাই বলিয়া আমি উত্তম হইবো না কেন? কিংবা ‘পথিক তুমি পথ হারাইয়াছ?’—এ রকম উক্তির জন্যও বিখ্যাত  উপন্যাসটি। চার খণ্ডে বিভক্ত। প্রতি খণ্ডে আবার কয়েকটি আলাদা আলাদা পরিচ্ছেদে বিভক্ত করে আলাদা আলাদা শিরোনাম দেওয়া হয়েছে। গল্পের শুরু হয়েছে তীর্থযাত্রীদের নৌকায় পথ হারানোর মধ্য দিয়ে। নৌকা ঘাটে ভিড়লে নবকুমার কাঠ সংগ্রহে বনে যায়। দীর্ঘ সময় পরে ফিরছে না দেখে সহযাত্রীরা তাকে বনে রেখে চলে যায়। সে পড়ে এক কাপালিকের হাতে। কাপালিকের পালিতা কন্যা কপালকুণ্ডলার সহযোগিতায় বলিদানের হাত থেকে প্রাণে বেঁচে যায় সে। কপালকুণ্ডলাকে বিয়ে করে স্বদেশের উদ্দেশে যাত্রা করে নবকুমার। পথে দেখা হয় তার প্রথম স্ত্রী মতিবিবির সঙ্গে। শেষ পর্যন্ত মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্ব-সংঘাতের মধ্য দিয়ে নবকুমার আর কপালকুণ্ডলা জীবনের চরম উপসংহারে উপনীত হয়।

মন্তব্য