kalerkantho

শনিবার । ২৭ আষাঢ় ১৪২৭। ১১ জুলাই ২০২০। ১৯ জিলকদ ১৪৪১

লে খা র ই শ কু ল

দাসত্বকে আসলে অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ করা যায় না—উইলিয়াম ওয়েলস ব্রাউন

২৯ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দাসত্বকে আসলে অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ করা যায় না—উইলিয়াম ওয়েলস ব্রাউন

ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, ইতিহাসবিদ এবং দাসপ্রথাবিরোধী আন্দোলনের বক্তা উইলিয়াম ওয়েলস ব্রাউন উনিশ শতকের আফ্রিকান আমেরিকান অগ্রজ লেখকদের অন্যতম। ফ্রেডারিক ডগলাসের মতো তিনিও জন্মগতভাবে ছিলেন ক্রীতদাস। বিশ বছর বয়স হতে হতেই কয়েকবার বদল হয় মালিকানা। ১৮১৪ সালে তাঁর জন্ম কেন্টাকিতে। ১৮৩৪ সালে সেখান থেকে পালিয়ে চলে যান বোস্টনে। লেখালেখি ছাড়াও দাসপ্রথার বিরুদ্ধে সব ধরনের কাজকর্মে যুক্ত হন ব্রাউন। নারীদের ভোটাধিকার, কারাগার সংস্কার ও তামাকবিরোধী আন্দোলনের সঙ্গেও যুক্ত হন। দাসপ্রথাবিরোধী বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে থেকে সভা-সমিতিতে বক্তব্য দেওয়া ছিল তাঁর আন্দোলনের অংশ। বক্তব্য প্রাণবন্ত করার জন্য তিনি সংগীতের ব্যবহার করতেন। কারণ জানতেন, তাঁর সমকালে দাসপ্রথাবিরোধী আন্দোলনে সংগীত বিশেষ ভূমিকা পালন করছে। ১৮৩৬ থেকে ১৮৪৫ সাল পর্যন্ত নিউ ইয়র্কের বাফেলোতে থাকাকালে পালিয়ে আসা দাসদের নৌকায় করে মিশিগানে এবং কানাডায় পার করে দেন। তিনি মোট ৬৯ জন দাসকে এভাবে পালিয়ে যেতে সাহায্য করেন।

১৮৪৯ থেকে ১৮৫৪ সাল পর্যন্ত ইউরোপে থাকাকালে ব্রাউন সেখানকার মানুষদের সংস্কৃতি, ধর্ম এবং ধান-ধারণা বোঝার চেষ্টা করেন। তিনি মনে করেন, যে সমাজে তাঁর বসবাস সেখানে অন্যরা ছোটবেলা থেকে শিক্ষার সুযোগ পেলেও তাঁর মতো মানুষেরা শিক্ষাবঞ্চিত। সে সমাজে চলতে হলে নিজেকে যোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে এবং সব সময় শেখার ওপরই থাকতে হবে। ইউরোপ ভ্রমণের অভিজ্ঞতার কথা লেখার সময় তিনি উল্লেখ করেন, জগতের অন্যদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে চাইলে অন্যরা যখন ঘুমায় তখন তাঁর মতো বিশ বছর বয়সে দাসত্ব থেকে পালিয়ে আসা শিক্ষাবঞ্চিত মানুষের অবশ্যই পড়াশোনায় ব্যস্ত থাকা উচিত। ১৮৪৭ সালে প্রকাশ করেন আত্মজীবনী ‘ন্যারেটিভ অব উইলিয়াম ওয়েলস ব্রাউন’। তাঁর এ বইটি পাঠকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। শুধু ফ্রেডারিক ডগলাসের আত্মজীবনী তাঁর এ বইটির চেয়ে বেশি বিক্রি হয়। ব্রিটেনে থাকাকালে ১৮৫৩ সালে প্রকাশ করেন প্রথম উপন্যাস ‘ক্লোটেল’। সময়ের হিসেবে আফ্রিকান আমেরিকান লেখকদের লেখা প্রথম উপন্যাস ‘ক্লোটেল’। তবে এ উপন্যাসটি লন্ডনে প্রকাশ করা হয় বলে আমেরিকায় প্রকাশিত প্রথম আফ্রিকান আমেরিকান উপন্যাসের মর্যাদা পায় হ্যারিয়েট উইলসনের ১৮৫৯ সালে প্রকাশ করা ‘আওয়ার নিগ’। অনেক পণ্ডিতের মতামত হলো, আফ্রিকান আমেরিকানদের মধ্যে ব্রাউনই প্রথম নাট্যকার। তাঁর ১৮৫৬ সালের নাটক ‘ইকসপিরিয়ন্স: হাউ টু গিভ আ নর্দার্ন ম্যান ব্যাকবোন’ এবং ১৮৫৮ সালের নাটক ‘দি ইস্কেপ: আ লিপ ফর ফ্রিডম’। আমেরিকার বিপ্লবে কৃষ্ণাঙ্গ সেনাদের কথা লেখেন তাঁর ইতিহাসের বই ‘দ্য নিগ্রো ইন দি আমেরিকান রিবেলিয়ন’-এ। তাঁর আরেকটি ইতিহাস বইয়ের নাম ‘দ্য ব্ল্যাক ম্যান: হিজ অ্যানটিসিড্নটস, হিজ জিনিয়াস অ্যান্ড হিজ অ্যাচিভমেন্ট’। দাসপ্রথাবিরোধী আন্দোলনের এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে গতানুগতিক বক্তৃতা না করে তিনি এই দ্বিতীয় নাটকটিই উপস্থিত জনতাকে পড়ে শোনান। ব্রাউন সব সময় দাসত্বের অবস্থার আসল চেহারা প্রকাশ করার চেষ্টা করেন। এ প্রসঙ্গে তাঁর সংগ্রাম কখনো থামেনি। ১৮৮৪ সালে ম্যাসাচুসেটসে ৭০ বছর বয়সে মারা যান উইলিয়াম ওয়েলস ব্রাউন।

দুলাল আল মনসুর

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা