kalerkantho

রবিবার । ২২ চৈত্র ১৪২৬। ৫ এপ্রিল ২০২০। ১০ শাবান ১৪৪১

বঙ্গবন্ধুর জীবন

জেল থেকে পাওয়া ইতিহাস

আহমাদ শিপন
বঙ্গবন্ধুর জীবন : জেল থেকে জেলে : মুনতাসীর মামুন প্রচ্ছদ : ধ্রুব এষ। মূল্য : ৩০০ টাকা

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জেল থেকে পাওয়া ইতিহাস

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ পূর্ণ হবে এ বছরের ১৭ মার্চ। বেঁচে থাকলে তিনি হয়তো ১০০ বছর জীবন পেতেন না, বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ুর হিসাবের বিবেচনায়। কিন্তু জগতে কিছু মানুষ কাজ ও চরিত্রবৈশিষ্ট্যের কারণে নিজেকে ছাড়িয়ে অমর হয়ে থাকেন। যুগ-যুগান্তরে তিনি মানুষের মধ্যে স্মরণীয় এবং বরণীয় হয়ে ওঠেন সময়ের হাত ধরে। এই প্রাপ্তি বিরল কিছু মানুষের ভাগ্যে ঘটে থাকে। বঙ্গবন্ধু সেই বিরল মানুষদের অন্যতম। যিনি দেশ ও মানুষের জন্য নিজের জীবনকে উৎসর্গ করার ব্রত গ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু তাঁর জীবনের একটি বড় অংশ কেটেছে জেলের অন্ধকারে। তাঁর সেই জীবনের ১৯৫০-১৯৫৫ সময় পর্বে আলো ফেলেছেন লেখক ও গবেষক মুনতাসীর মামুন।

এটা খুব বিস্ময়কর তথ্য যে সাবালক হওয়ার পর বঙ্গবন্ধুর জীবনের বেশির ভাগ সময় কেটেছে জেলে। কিন্তু যেসব কারণে তাঁকে জেলে পোরা হয়েছিল—পূর্ব বাংলার মানুষের, বিশেষ করে বাঙালির জীবনের ন্যায্য অধিকার ও স্বাধীনতার জন্য লড়াইয়ের কারণে, জেলে যাওয়ার পর সেই দাবি ও আন্দোলন আরো তীব্র হয়েছিল। এমনকি ছাত্রজীবনেও একাধিকবার জেলে গেছেন। জেলে থেকে বঙ্গবন্ধু আইন পরীক্ষা দিতে চেয়েছিলেন। এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু ডিআইজিকে চিঠিও লিখেছিলেন।

এ বছর পালিত হবে বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী, যা মুজিববর্ষ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মকে সামনে রেখে গত বছর মুনতাসীর মামুন প্রকাশ করেছিলেন ‘বঙ্গবন্ধুর জীবন’ গ্রন্থসিরিজের প্রথম বই। এ বছর প্রকাশিত হয়েছে সেই গ্রন্থের দ্বিতীয় খণ্ড। মুজিববর্ষ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অনেক গ্রন্থ প্রকাশিত হচ্ছে। কিন্তু সেদিক থেকে মুনতাসীর মামুনের বইটি নানা কারণে বিশিষ্ট ও অভিনব।  গল্প পাঠের আনন্দ নিয়ে বইটি পড়ে শেষ করা যায়। এ বইয়ের এটাই প্রধান শক্তি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা