kalerkantho

শনিবার । ২৫ জুন ২০২২ । ১১ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৪ জিলকদ ১৪৪৩

প্র কৃ তি র ক্ষা র প্র ত্য য়

মাসব্যাপী গাইবান্ধা শাখার বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

অমিতাভ দাশ হিমুন   

২৮ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মাসব্যাপী গাইবান্ধা শাখার বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

‘এসো প্রকৃতিকে রক্ষা করি’ স্লোগানে গাইবান্ধা জেলা শাখার মাসব্যাপী বৃক্ষরোপণ

গাইবান্ধা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. খলিলুর রহমান বলেছেন, মানুষের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের ফলে বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বন্যা, জলোচ্ছ্বাস, ঘূর্ণিঝড়, ভূমিকম্পসহ প্রকৃতি এখন ক্রমাগত পরিবর্তিত হচ্ছে। নির্মল বাতাসে নিঃশ্বাস নিতে না পেরে নানা রোগে  ভুগছে মানুষ। আগামী প্রজন্মের জন্য  বাসযোগ্য পৃথিবী রেখে যেতে হলে সবাইকে নতুন করে ভাবতে হবে। বৃক্ষরোপণ এ ক্ষেত্রে বড় সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে।

বিজ্ঞাপন

গাইবান্ধায় সম্প্রতি শুভসংঘ আয়োজিত বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি উদ্বোধন করতে গিয়ে তিনি এ সব কথা বলেন।

‘এসো প্রকৃতিকে রক্ষা করি’ এই প্রতিপাদ্য সামনে রেখে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ জেলা শাখা গাইবান্ধা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ চত্বরে এ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে অন্যদের মধ্যে শুভসংঘের কর্মীরা ছাড়াও কলেজের শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আসাদুল ইসলাম, অধ্যাপক মিজানুর রহমান, অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মামুন, কালের কণ্ঠের জেলা প্রতিনিধি অমিতাভ দাশ হিমুন ও শুভসংঘের জেলা উপদেষ্টা কুদ্দুস আলম উপস্থিত ছিলেন।

অধ্যক্ষের কার্যালয়সংলগ্ন বাগানে আয়োজিত বৃক্ষরোপণ-পূর্ব আলোচনায় শুভসংঘের জেলা সভাপতি প্রভাষক তৌহিদা মাহমুদের সভাপতিত্বে অতিথিরা ছাড়াও বক্তব্য দেন জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক লতা সরকার, সহসাধারণ সম্পাদক সামিউল ইসলাম সাকিব, সদর শুভসংঘের সভাপতি উম্মে কুলসুম তালুকদার, সম্পাদক স্বজন খন্দকার, সাংগঠনিক সম্পাদক জান্নাতুল মাওয়া, নারীবিষয়ক সম্পাদক তানহা, জেলা সাংস্কৃতিক সম্পাদক দেবী সাহা, সদর শুভসংঘের সহসভাপতি আতিকুর রহমান আতিক প্রমুখ।

অধ্যক্ষ মো. খলিলুর রহমান আরো বলেন, শুভসংঘ একটি কল্যাণকামী সাংস্কৃতিক সংগঠন। এর আগে শুভসংঘ শিক্ষা, সংস্কৃতি ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক নানা আয়োজন করে প্রশংসিত হয়। তিনি বলেন, ‘বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি বর্ষাকালের পুরো সময় অব্যাহত থাকলে তা প্রকৃতিকে সুরক্ষা দেবে এবং আমাদের চারপাশ ফুলে-ফলে সুশোভিত হবে। ’ কলেজের শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আসাদুল ইসলাম চমৎকার কর্মসূচির জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে অভিনন্দন জানান।

কলেজের শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আসাদুল ইসলাম বলেন, শুভসংঘ তার নামের মতোই সুন্দর কাজে সবাইকে মুগ্ধ করেছে। তিনি স্মৃতিচারণা করে বলেন, সম্প্রতি শুভসংঘের জেলা সম্মেলনে এসে এই ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের পরিচালক ও দুই বাংলার প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন বাংলা ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে যে আবেগময় বক্তব্য দেন, তা সবাইকে আলোড়িত করেছিল। তরুণদের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য তাঁর আহ্বান শুভসংঘের মাধ্যমে বাস্তবায়িত হচ্ছে। বৃক্ষরোপণ তারই একটি অংশ।

শুভসংঘের সভাপতি প্রভাষক তৌহিদা মাহমুদ বলেন, ‘শুভসংঘ দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করে। বসুন্ধরা গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় করোনাকালে সাত উপজেলায় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ এবং বিভিন্ন কর্মসূচি তরুণ প্রজন্মকে মানবসেবায় উদ্বুদ্ধ করেছে। প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষ রোপণ করে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করার কাজটিও করতে চাই। ’

শুভসংঘের সাধারণ সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌসি লতা সরকার বলেন, ‘বাংলাদেশে বর্ষাকালে বৃক্ষরোপণের সঠিক সময়। শুভসংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সহযোগিতায়  গাইবান্ধা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ফলদ, বনজ, ঔষধি ও ফুলের ৫০টি গাছ লাগানোর মাধ্যমে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির সূচনা করা হলো। আমরা পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বৃক্ষরোপণের পাশাপাশি সবাইকে সচেতন করার কাজটিও করব। ’

সমগ্র অনুষ্ঠান সমন্বয় করেন সদর শুভসংঘের সহসাংগঠনিক সম্পাদক মোর্শেদ আলম মারূফ, ফুলছড়ি উপজেলা শুভসংঘের সহসভাপতি শেখ ফরিদ, সদস্য তৌফিকুর জামান, জেলা দপ্তর সম্পাদক মিজানুর রহমান নয়নসহ অন্য কর্মীরা।

বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির পর শুভসংঘের সদস্যরা  প্রিয়জন প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলনের রোগমুক্তি কামনায় সবাই সৃষ্টিকর্তার দয়া প্রার্থনা করেন। এটি পরিচালনা করেন জেলা সহসম্পাদক সামিউল ইসলাম সাকিব।



সাতদিনের সেরা