kalerkantho

রবিবার । ২৮ আষাঢ় ১৪২৭। ১২ জুলাই ২০২০। ২০ জিলকদ ১৪৪১

বগুড়া শুভসংঘের দুই উপদেষ্টার উদ্যোগ

১৪ হাজার শিশুর জন্য ঈদের নতুন জামা

লিমন বাসার   

৩০ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



১৪ হাজার শিশুর জন্য ঈদের নতুন জামা

করোনার এই দুর্যোগময় মুহূর্তে হতদরিদ্র শিশুদের দেখে মন কাঁদে তার। সিদ্ধান্ত নিলেন, এই শিশুদের জন্য কিছু একটা করবেন। কিন্তু হাতে তো এত টাকা নেই। তাই শিশুদের উপহার দিতে নিজের শখের গাড়িটিই বিক্রি করে দিলেন। শিশুদরদি এই মানুষটি হলেন বগুড়া শুভসংঘের উপদেষ্টা নাহারুল ইসলাম। তাঁর গাড়ি বিক্রির সাড়ে ৯ লাখ টাকা দিয়ে শুভসংঘের মাধ্যমে শিশুদের ঈদ উপহারসামগ্রী প্রদান করা হয়।

এদিকে বগুড়া শুভসংঘের প্রধান উপদেষ্টা আব্দুল মান্নান আকন্দও ঘোষণা দিলেন, শুভসংঘের মাধ্যমে তিনিও ৯ লাখ টাকার উপহারসামগ্রী শিশুদের মাঝে বিতরণ করবেন। প্রথম দফায় বগুড়ার সরকারি শিশু পরিবারের (বালিকা) শিশুদের মাঝে নতুন জামা বিতরণের মধ্য দিয়ে কর্মসূচি শুরু করা হয়। শিশুদের জন্য এটি ছিল একটি বিশেষ মুহূর্ত। ছয় বছরের সুমাইয়া, মিমসহ সবার হাতে নতুন জামা, পায়ে নতুন স্যান্ডেল। তাদের চোখে-মুখে ফুটে উঠেছে আনন্দ। বগুড়ার কর্মহীন পরিবারের ১৪ হাজার শিশু এবার পাচ্ছে ঈদের নতুন জামা।

ব্যতিক্রমী এই আয়োজনের নাম দেওয়া হয় ‘স্কুলের সোনামণিরা হাসো’। করোনার প্রভাবে কষ্টে থাকা অভাবী পরিবারের শিশুদের মুখে হাসি ফোটাতে এই ব্যতিক্রমী কার্যক্রম চালু করা হয় বগুড়া শুভসংঘের উদ্যোগে। ৫০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১৪ হাজার শিশু শুভসংঘের এই উপহার প্যাকেট পাবে। বগুড়ার সমাজসেবক আব্দুল মান্নান আকন্দের অনুপ্রেরণায় ব্যবসায়ী নাহারুল ইসলাম তাঁর এক্স করোলা সাদা রঙের কারটি বিক্রি করেন। আর ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নান তাঁর ব্যবসার লভ্যাংশ থেকে টাকা দিয়ে শিশুদের জন্য নতুন জামা কিনে দেন। মোট ১৮ লাখ টাকার এসব উপহারসামগ্রীর প্যাকেট পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় গিয়ে স্কুলের শিশুদের বিতরণ করা হবে।

নাহারুল ইসলাম বলেন, ‘হতদরিদ্র শিশুদের দেখে আমার মন কাঁদত। সিদ্ধান্ত নিলাম, এই শিশুদের জন্য কিছু করবই। তাই শখের গাড়িটি বিক্রি করে দিলাম। ভালো কাজে আমি অনুপ্রেরণা পেয়েছি বগুড়া শুভসংঘের প্রধান উপদেষ্টা আব্দুল মান্নান আকন্দকে দেখে। করোনাভাইরাসের প্রভাবের শুরু থেকেই এলাকার অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করেছেন মান্নান ভাই। তাঁর এমন মানবিক কাজই আমাকে উৎসাহ জুগিয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা