kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

ওসিসহ ৭ পুলিশের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নগরের বায়েজিদ বোস্তামি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রিন্টন সরকার ও সাবেক পরিদর্শক আতাউর রহমানসহ সাত পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে হত্যার হুমকি দিয়ে ১১ লাখ টাকা চাঁদা আদায়ের অভিযোগে মামলা হয়েছে।

বুধবার চট্টগ্রামের অতিরিক্ত মহানগর হাকিম মহিউদ্দিন মুরাদের আদালতে মামলাটি দায়ের করা হয়। আদালত এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন ২ এপ্রিলের মধ্যে দাখিলের জন্য নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনাকে (অর্থ ও প্রশাসন) নির্দেশনা দিয়েছেন।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন বায়েজিদ বোস্তামি থানার উপপরিদর্শক মো. আফতাব, সহকারী উপপরিদর্শক মো. ইব্রাহীম, মিঠুন নাথ, কনস্টেবল রহমান ও সাইফুল।

মামলার আর্জিতে বাদী মো. ইয়াছিব (৫৫) উল্লেখ করেন, তিনি নগরের খুলশী থানার পলিটেকনিক্যাল এলাকার মেসার্স ইয়াছিন ইন্টারপ্রাইজের মালিক। গত ২০ নভেম্বর ও ৪ ফেব্রুয়ারি দুই দফা বাদীকে আটক করা হয়। বাদীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা কিংবা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা না থাকা সত্ত্বেও বাদীকে পুলিশ আটক করে গাড়িতে তোলে। এক পর্যায়ে রাতের অন্ধকারে অনন্যা আবাসিক এলাকায় নিয়ে বাদীকে হত্যার হুমকি দেয়। এরপর ১১ লাখ টাকা দাবি করে। প্রাণরক্ষার্থে বাদী তার ভাইসহ বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে ১১ লাখ টাকা সংগ্রহ করে পুলিশ সদস্যদের হাতে তুলে দেন। পরে আসামিরা টাকা গুনে ও বুঝে নিয়ে বাদীর কাছ থেকে দুটি খালি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে ছেড়ে দেয়।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ৪ ফেব্রুয়ারি পুনরায় বাদীকে আটক করে পুলিশ সদস্যরা। এবার তার কাছ থেকে ৫০ লাখ টাকা দাবি করেন। কিন্তু বাদী তাৎক্ষণিক টাকা দিতে পারেননি। পরে ২৭ জনের কাছ থেকে ১২ লাখ টাকা সংগ্রহ করে বায়েজিদ বোস্তামি থানার অফিসার ইনচার্জের রুমে নিয়ে আসামিদের হাতে তুলে দেয়।

এরপর পুলিশ মুক্তিপণের বাকি টাকা পরে পরিশোধ করার শর্ত দিয়ে তাকে ছেড়ে দেয়। আর টাকা না দিলে পুনরায় আটক করা হবে মর্মে হুমকি দেয়। বাদী তাঁর আর্জিতে উল্লেখ করেন, এই বিষয়ে পুলিশের আইজিপি বরাবরে আবেদন করেও কোনো প্রতিকার না পেয়ে তিনি আদালতে মামলা দায়ের করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা