kalerkantho

শুক্রবার । ৭ কার্তিক ১৪২৭। ২৩ অক্টোবর ২০২০। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

মামলাবাজ মফিজ

বোয়ালখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে মামলায় জড়িয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। মুক্তিযোদ্ধা পরিবার, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষার্থী, দিনমজুরও রেহাই পাচ্ছেন না। বোয়ালখালীর চরণদ্বীপ ইউনিয়নের হাজিপাড়ায় মফিজ নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ওই অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা শামসুল আলম বলেন, ‘আমি গরিব মানুষ। পরিবার-পরিজন নিয়ে নানা প্রতিকূলতার মধ্যে জীবনযাপন করি। এখন সংসারের হাল ধরেছে সন্তানরা। কিন্তু স্থানীয় মো. মফিজুল ইসলাম ব্যক্তিগত বিরোধকে কেন্দ্র করে আমার দুই সন্তান এজাবত উল্লাহ (২৩) ও সাইফুল আলমকে (৩০) দুটি মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দিয়েছে। তারা গ্রেপ্তারের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।’

দিনমজুর পেয়ার মোহাম্মদ বলেন, ‘পরিশ্রমের কাজ করে কোনোরকমে পরিবার পরিজন নিয়ে টানাপড়েনে দিন কাটাচ্ছি। কিন্তু মামলাবাজ মফিজ আমাকে সপরিবারে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দিয়েছে।’

কধুরখীল ইউনিয়নের বাসিন্দা কে এম খোরশেদ মিল্টন বলেন, ‘আমি ওই মফিজকে ভালো করে চিনিও না। আমি আলাদা ইউনিয়নের বাসিন্দা। ওই লোক আমাকেও মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে  দিয়েছে।’

চরণদ্বীপ ইউনিয়নের সাবেক সদস্য মো. মোরশেদ আলম বলেন, ‘নিরীহদের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়ার প্রতিবাদ করায় আমাকে ও বর্তমান জনপ্রতিনিধিকে মামলায় জড়িয়ে দেয় মফিজ। সে দীর্ঘদিন ধরে কারণে-অকারণে এলাকার লোকজনদের মামলা দিয়ে হয়রানি ও হেনস্তা করে আসছে। চুন থেকে পান কষলেই সে মামলার ভয় দেখায়। তার মামলার কারণে বাসিন্দাদের অনেকে এলাকাছাড়া।’

চট্টগ্রাম কমার্স কলেজের মাস্টার্স শেষবর্ষের ছাত্র ইউচুফ মিশন বলেন, ‘মফিজ আমাকেও নারী নির্যাতন মামলার আসামি করেছে। আমি গ্রেপ্তারের ভয়ে আছি। এতে পড়ালেখায় ব্যাঘাত ঘটছে।’

অভিযোগ প্রসঙ্গে কথা বলতে মো. মফিজুল ইসলামের ফোনে রবিবার কল করা হলে সংযোগ পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা