kalerkantho

শনিবার । ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৪ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

খননকাজ উদ্বোধন

‘বারইপাড়া খাল হবে নয়নাভিরাম’

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২৯ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘বারইপাড়া খাল হবে নয়নাভিরাম’

স্কেভেটরে মাটি খুঁড়ে গতকাল নগরের বারইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত খাল খননকাজ উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। ছবি : কালের কণ্ঠ

নগরের বহদ্দারহাট বারইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত ২ দশমিক ৯ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য এবং ৬৫ ফুট প্রস্থ খাল খননকাজ উদ্বোধন করেছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। গতকাল মঙ্গলবার সকালে তিনি এ প্রকল্পের কাজ উদ্বোধন করেন।

কাউন্সিলর হারুনুর রশিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্যানেল মেয়র জোবাইদা নার্গিস খান, কাউন্সিলর এম আশরাফুল আলম, সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল সোহেল আহমদ, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সিটি করপোরেশনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম মানিক।

অনুষ্ঠানে আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ‘১৯৯৫ সালের ড্রেনেজ মাস্টার প্ল্যান অনুসরণ করে বহদ্দারহাট বারইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত নতুন খাল খনন করার পরিকল্পনা নিয়ে একটি ডিপিপি তৈরি করা হয়েছিল। সেখানে খালের দুপাশে সড়ক নির্মাণ করে খাল খননের বিষয় উল্লিখিত থাকে। কিন্তু একনেক সভায় সংযোজনীসহ প্রকল্পের চূড়ান্ত আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই প্রকল্পকে পর্যটন স্পট হিসেবে রূপায়নের নির্দেশনা দেন। তিনি নান্দনিক দিক বিবেচনায় খালের দুপাশে ওয়াকওয়ে ব্যবস্থা রাখার নির্দেশনা দেন। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে শুলকবহর, ষোলশহর, বাকলিয়াসহ সংশ্লিষ্ট এলাকার জলাবদ্ধতা সমস্যা আর থাকবে না।’

মেয়র বলেন, ‘এটি হবে নয়নাভিরাম একটি খাল। যা দেশের অন্য কোথাও নেই। খালটির দৈর্ঘ্য হবে আনুমানিক ২ দশমিক ৯ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ৬৫ ফুট। খালটির মাটি উত্তোলন, সংস্কার ও নতুন যোগাযোগ ব্যবস্থা সৃষ্টির লক্ষ্যে খালের উভয় পাশে ২০ ফুট করে দুটি সড়ক ও ওয়ার্কওয়ে নির্মাণ এবং সৌন্দর্যবর্ধন করা হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা