kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ জানুয়ারি ২০২০। ১০ মাঘ ১৪২৬। ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

৪৮ বছর পর দুই শহীদের স্মৃতিরক্ষা

কক্সবাজারে ফরহাদ-সুভাষ তোরণ

বিশেষ প্রতিনিধি, কক্সবাজার   

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কক্সবাজারে ফরহাদ-সুভাষ তোরণ

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে দুই শহীদ স্মরণে নির্মিত তোরণ। ছবি : কালের কণ্ঠ

দীর্ঘদিন পরে হলেও কক্সবাজারে একাত্তরের দুই শহীদ ছাত্রের নামে তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। ১৯৭১ সালের ৬ মে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরহাদ ও সুভাষকে হানাদার বাহিনী জেলার নুনিয়াছড়া এলাকার বাঁকখালী নদীর তীরে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল।

জেলা প্রশাসক মুক্তিযোদ্ধা সন্তান মো. কামাল হোসেন জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে দুই মাস আগে তাঁর কার্যালয়ের প্রবেশদ্বারে একটি তোরণ নির্মাণ শুরু করেন। চলতি বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে তোরণটির দ্বার উন্মোচন করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। ইতোমধ্যে নির্মাণকাজও শেষ হয়। এতে শহীদ ফরহাদ-সুভাষ তোরণ লিখে তাঁদের ছবি সাঁটানো হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন গত বৃহস্পতিবার ‘ডিসি কক্সবাজার’ ফেসবুক আইডিতে এ বিষয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন। তিনি লিখেছেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধে কক্সবাজার জেলার রয়েছে গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস। পরাধীনতার গ্লানি হতে দেশমাতৃকাকে মুক্ত করার লক্ষ্যে অকাতরে যাঁরা প্রাণ বিলিয়ে দিয়ে অমর হয়েছেন, তাঁদের মাঝে রয়েছেন কক্সবাজারের অহংকার শহীদ ফরহাদ ও শহীদ সুভাষ।

তাঁরা স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন, ছয় দফা আন্দোলন ও ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের ছাত্র টগবগে তরুণ ফরহাদ এম এ ফাইনাল পরীক্ষা ছেড়ে যোগ দেন মুক্তিযুদ্ধে। চট্টগ্রাম শহর ও হাটহাজারী এলাকায় বীরত্বের সঙ্গে যুদ্ধ করে তিনি কক্সবাজারে চলে আসেন। কক্সবাজার ও আরাকান সড়কের পাহাড়ি এলাকায় প্রায় ২০০ ইপিআর ও মুক্তিযোদ্ধাদের তিনি সংগঠিত করে প্রতিরোধ ব্যুহ গড়ে তোলেন।

অপরদিকে কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও কক্সবাজার সরকারি কলেজের ছাত্র সুভাষ দাশ কিশোর বয়স থেকে পাকিস্তানবিরোধী রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। নিঃস্বার্থ, নিবেদিতপ্রাণ এই তরুণ নেতা কক্সবাজারে হানাদার প্রতিরোধে অন্যতম ভূমিকা পালন করেন।

১৯৭১ সালের ৬ মে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরহাদ ও সুভাষকে নুনিয়াছড়া বাঁকখালী নদীর তীরে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। বিজয়ের ৪৮ বছরে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরহাদ-সুভাষের স্মৃতি সংরক্ষণে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ক্ষুদ্র প্রয়াস, ‘শহীদ ফরহাদ-সুভাষ তোরণ’।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা