kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

শোক-শ্রদ্ধায় জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্মরণ

দ্বিতীয় রাজধানী ডেস্ক   

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



শোক-শ্রদ্ধায় জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্মরণ

নগরের হালিশহরে শহীদ কলোনি মধ্যম নাথপাড়া বধ্যভূমি স্মৃতিস্তম্ভ। উপেক্ষা আর অবহেলায় থাকে সারাবছর। পরিণত হয় ভাগাড়ে (উপরে)। প্রতিবেদন ও ছবি : রাশেদুল তুষার, চট্টগ্রাম

শোক-শ্রদ্ধায় নানা কর্মসূচিতে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণ করেছে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন। আলোচনায় বক্তারা মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা অন্তরে ধারণ করে সৃষ্টিশীল বাংলাদেশ গড়তে আগামী প্রজন্মের প্রতি আহ্বান জানান। বিস্তারিত নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে :

চিটাগাং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি : নগরের জামালখানে ক্যাম্পাসে আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য ড. মাহফুজুল হক চৌধুরী। বক্তব্য দেন অধ্যাপক কাজী মোস্তাইন বিল্লাহ, ড. নাঈম আবদুল্লাহ, ড. আইয়ুব ইসলাম, ড. নুরুল আবসার নাহিদ, ড. আসিফ ইকবাল, মোহাম্মদ আকতারুল আলম চৌধুরী, নসিহ্ উল ওয়াদুদ আলম, রাশেদা ফেরদৌস, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার আনজুমান বানু লিমা প্রমুখ।

পটিয়া (চট্টগ্রাম) : উপজেলা প্রশাসনের আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন হুইপ সামশুল হক চৌধুরী। ইউএনও হাবিবুল হাসানের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী। তথ্য কর্মকর্তা কামরুজ্জামানের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাজেদা বেগম, ওসি বোরহান উদ্দিন, কৃষি কর্মকর্তা কল্পনা রহমান, পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মীর আন-নাজমুস সাকিব, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, সাবেক পৌর চেয়ারম্যান সামশুল আলম মাস্টার, মু্ক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান ইদ্রিচ, মৃণাল বড়ুয়া, তাজুর মুল্লক, সাংবাদিক হারুনুর রশিদ ছিদ্দিকী, সাংবাদিক আবদুল হাকিম রানা প্রমুখ।

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) : উপজেলা পরিষদ মাঠে উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার। প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল বশিরুল ইসলাম, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আবু ছালেহ, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ফয়সাল আলম, সমাজসেবা কর্মকর্তা অনিক রায়, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম প্রমুখ।

বর্ষায় পানিতে ডুবে থাকে স্মৃতিস্তম্ভটি। দেয়ালে স্যাঁতস্যাঁতে সবুজ শ্যাওলায় বীর শহীদদের লেখা নাম খুঁজে পাওয়াই দায়! তাঁদের কান্না শোনার যেন কেউ নেই। তবে জাতীয় বিশেষ দিবস এলেই ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করা হয়। বসে পুলিশের পাহারাও। দুয়েকটা পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। দিন শেষে ফের চোখে পড়ে সেই পুরনো অবহেলা-অনাদরের দৃশ্য। নিচের ছবিটি গতকাল দুপুরের। প্রতিবেদন ও ছবি : রাশেদুল তুষার, চট্টগ্রাম

নোয়াখালী : জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা প্রশাসন, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন সংগঠন কালো পতাকা উত্তোলন, শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি এবং আলোচনাসভাসহ নানা অনুষ্ঠান করে। বিজয়মঞ্চে জেলা প্রশাসনের সভায় সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ইশরাত সাদমিন। প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক তন্ময় দাস। বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন, অধ্যাপক কাজী মুহাম্মদ রফিক উল্লাহ, মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক ও মমতাজুল করিম বাচ্চু, আবুল কাশেম প্রমুখ।

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন উপাচার্য ড. মো. দিদার-উল-আলম। বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাঁর সঙ্গে ছিলেন। এর পর নবনির্বাচিত শিক্ষক সমিতি (নীল দল) শহীদ মিনার ও বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করে। এ সময় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর, সাধারণ সম্পাদক মো. মজনুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

কাউখালী (রাঙামাটি) : অফিসার্স কল্যাণ ক্লাবে উপজেলা প্রশাসনের আলোচনাসভা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নিংবাইউ মারমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার শতরূপা তালুকদার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অংপ্রু মারমা, থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শহিদ উল্লাহ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বাহার মিয়া, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান চৌধুরী  প্রমুখ।

রামগড় (খাগড়াছড়ি) : উপজেলা সম্মেলনকক্ষে আলোচনাসভা ইউএনও উম্মে ইসরাতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। বিশেষ অতিথি ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) সরওয়ার উদ্দিন, ওসি তারেক মো. হান্নান, অধ্যাপক মংসাজাই মারমা ও সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মফিজুর রহমান। বক্তব্য দেন মুক্তিযোদ্ধা মনসুর আহমেদ, আওয়ামী লীগ নেতা শের আলী ভূঁইয়া, সাবেক শিক্ষা কর্মকর্তা রামেশ্বর শীল প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা