kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

সড়ক অবরোধ করে জনতা ধরল ৪ অপহরণকারীকে

চকরিয়ায় মাদরাসাছাত্রী উদ্ধার

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সড়ক অবরোধ করে চার অপহরণকারীকে ধরে পুলিশে দিল জনতা। মাদরাসায় যাওয়ার পথে সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে মুখ চেপে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যাচ্ছিল ওরা। এক পর্যায়ে তার চিৎকার শুনে স্থানীয় জনতা সড়ক অবরোধ করে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে। তবে মাইক্রোবাসটি পালিয়ে যায়।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চকরিয়া উপজেলার উপকূলীয় বদরখালী ইউনিয়নের এম এস ফাজিল মাদরাসার অদূরে চকরিয়া-বদরখালী সড়কের ফুলতলা স্টেশন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই ছাত্রীকে মাইক্রোতে তুলে চকরিয়া সদরের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। পথিমধ্যে মাইক্রোটি সড়কের সাহারবিল ইউনিয়নের চৌয়ারফাঁড়ি স্টেশন এলাকায় পৌঁছলে মেয়ের চিৎকার শুনে স্থানীয় জনতা সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে গাড়িটি আটকে দেয়। আটক চার বখাটে হল বদরখালী ইউনিয়নের গোঁয়াখালীপাড়ার মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে ঘটনার মূলহোতা নূর হোসেন (১৮), এমদাদুল হকের ছেলে মো. সাগর (১৭), জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে মো. রাশেদ (১৮) ও আবুল হোসেনের ছেলে মো. মোবারক (১৮)।

ওই ছাত্রী চলমান বার্ষিক পরীক্ষায় অংশ নিতে গোঁয়াখালীপাড়ার নিজ বাড়ি থেকে বের হয়। পথিমধ্যে সে মাদরাসার কাছে ফুলতলা স্টেশন এলাকায় পৌঁছলে আগে থেকে ওত পেতে থাকা একদল বখাটে মুখ চেপে ধরে দ্রুত মাইক্রোবাসে তুলে চকরিয়া উপজেলা সদরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। বিষয়টি স্থানীয় জনতা আঁচ করতে পারলে চারদিকে খবর ছড়িয়ে পড়ে। এই অবস্থায় মাইক্রোবাসটি সড়কের চৌয়ারফাঁড়ি স্টেশনে পৌঁছলে আশপাশের মানুষ ছাত্রীর চিৎকার শুনে এগিয়ে যায়। তাঁরা ব্যারিকেড দিয়ে ছাত্রীকে বখাটেদের কবল থেকে উদ্ধার এবং চার বখাটেকে আটক করে। এ সময় মাইক্রোবাসটি দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।

চকরিয়া থানার ওসি মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নেওয়ার সময় স্থানীয় জনতার সহায়তায় ওই ছাত্রীকে উদ্ধার এবং ঘটনার মূল হোতাসহ চারজনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় ছাত্রীর বাবা মামলা করেছেন। অপহরণে ব্যবহৃত মাইক্রোবাসটি জব্দ করার চেষ্টা চলছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা