kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

বোয়ালখালী

অগ্নিদগ্ধ হয়ে যুবকের মৃত্যু, দুই ঘর ছাই

বোয়ালখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বোয়ালখালীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিজ বসতঘরের আগুনে দগ্ধ হয়ে নুরুল আজিম (৩০) নামে এক যুবকের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার রাত ১২টার দিকে বোয়ালাখালী পৌরসভার পশ্চিম গোমদণ্ডী কোরবান আলী সওদাগর বাড়িতে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুটি বসতঘর পুড়ে গেছে। নিহত নুরুল আজিম স্থানীয় মো. হোসেনের ছেলে। তিনি একটি বেকারিতে চাকরি করতেন। তাঁর আহাদ নামে ৪ বছর বয়সী এক ছেলে রয়েছে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে সকালে মর্গে পাঠিয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, নিহত নুরুল আজিম শান্ত স্বভাবের ছিলেন। কারো সঙ্গে কোনো বিরোধ ছিল না। তবে বিয়ের পর থেকে তাঁদের সংসারে পারিবারিক অশান্তি ছিল। অগ্নিকাণ্ডের সময় ঘর থেকে সবাই বেরিয়ে আসলেও তিনি কম্বল মোড়ানো ঘুমন্ত অবস্থায় মারা যান। ঘুম থেকে না ওঠায় এবং একবারও বাঁচার চেষ্টা না করায় অগ্নিকাণ্ডে তাঁর মৃত্যুকে এলাকাবাসী রহস্যজনক মনে করছে।

নিহত আজিমের মা জাহানারা বেগম জানান, রাতের খাবার সেরে যার যার ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন ঘরের সবাই। মধ্যরাতে নিহতের ছেলে আহাদকে শৌচাগারে নিতে উঠলে হঠাত্ ঘরে আগুন দেখতে পান। মুহূর্তেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে। আজিমের সন্তানকে নিয়ে প্রাণ বাঁচাতে ঘর থেকে বেরিয়ে পড়েন তিনি। বাইরে এসে আজিমকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেন। তাঁর খোঁজ পাওয়া যায়নি। পরে আগুন নিভে গেলে ঘরের ভেতর দগ্ধ অবস্থায় যেখানে ঘুমিয়ে ছিলেন সেখানে তাঁর লাশ পাওয়া যায়।

তাঁর ছেলেকে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে কে বা কারা পরিকল্পিতভাবে ঘরে আগুন দিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

বোয়ালখালী ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের দায়িত্বরত কর্মকর্তা কিরীটি রঞ্জন বড়ুয়া বলেন, ‘বৈদ্যুতিক গোলযোগ থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। অগ্নিকাণ্ডে এক যুবক নিহত হয়েছেন।’

বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নেয়ামত উল্লাহ বলেন, ‘অগ্নিকাণ্ডে নিহত যুবকের মৃত্যু  নিয়ে অভিযোগ ওঠায় তাঁর লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া গেলে মৃত্যুর  আসল কারণ জানা যাবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা