kalerkantho

শনিবার । ২৫ জানুয়ারি ২০২০। ১১ মাঘ ১৪২৬। ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

পুলিশের পেঁয়াজ বিক্রি কেজি ৪৫ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পুলিশের পেঁয়াজ বিক্রি কেজি ৪৫ টাকা

ভোক্তাদের হাতে কম দামে পেঁয়াজ তুলে দেন চট্টগ্রাম নগর পুলিশ কর্মকর্তারা। গতকাল দুপুরে দামপাড়া পুলিশ লাইন এলাকা। ছবি : কালের কণ্ঠ

এবার কেজি ৪৫ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে পুলিশ কর্মকর্তাদের স্ত্রীদের সংগঠন পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক) চট্টগ্রাম শাখা। গতকাল শনিবার সকালে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) নগরের পাহাড়তলী, কোতোয়ালী, খুলশী, চান্দগাঁও এবং ইপিজেড-এই পাঁচটি থানা প্রাঙ্গণে এই দরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে। আমদানিকারকদের কাছ থেকে পেঁয়াজ কিনে ভর্তুকি দিয়ে এসব পেঁয়াজ বিক্রি করছে সংগঠনটি। পুলিশ সদস্যের পাশাপাশি সাধারণ নাগরিকরাও এই দরে পেঁয়াজ কিনতে পারবেন।

পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারি উদ্যোগে ট্রেডিং করপোরেশন বাংলাদেশ (টিসিবি) সারাদেশের বিভাগীয় শহরে কেজি ৪৫ টাকা দরে ভ্রাম্যমাণ ট্রাকের মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রি করছে। এর পাশাপাশি গত বৃহস্পতিবার থেকে চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলমের ব্যক্তিগত উদ্যোগে কেজি ৪০ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হয়েছে। ব্যবসায়ী এই নেতা নিজস্ব তহবিল থেকে ভর্তুকি দিয়ে ভ্রাম্যমাণ ট্রাকে করে এই পেঁয়াজ বিক্রি করছেন। সর্বশেষ পুনাকের উদ্যোগে কম দামে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হল।

পুনাক চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক শিউলী ভৌমিক বলেন, ‘সংগঠনের সভানেত্রী মীর্জা মাহবুব মোস্তফার সভাপতিত্বে এক সভায় জনগণের কষ্ট লাঘবে সাশ্রয়ী মূল্যে এই পেঁয়াজ বিক্রির সিদ্ধান্ত হয়। নগরের পাঁচটি থানায় প্রাথমিকভাবে আগামী এক সপ্তাহ এই কার্যক্রম চলবে। প্রত্যেক থানা প্রাঙ্গণে একটন করে প্রতিদিন পাঁচটন পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চট্টগ্রামের ভোগ্যপণ্য আমদানির শীর্ষ প্রতিষ্ঠান বিএসএম গ্রুপ আমদানিমূল্যে এসব পেঁয়াজ পুনাককে সরবরাহ করেছে। জানতে চাইলে বিএসএম গ্রুপের চেয়ারম্যান আবুল বশর চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘লাভ-ক্ষতি নয় এই মুহূর্তে যেকোনো উপায়ে জনগণের পাশে দাঁড়ানোই প্রধান লক্ষ্য। আমরা পেঁয়াজ আমদানি করি না। কিন্তু সংকটের সময় নিজেদের উদ্যোগে পেঁয়াজ এনে বাজারে সরবরাহ বাড়িয়েছি। এতে বাজারে বেশ ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে। সরবরাহ আরও বাড়াতে ন্যূনতম লাভে এবং টিসিবির দামের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে পুনাককে পেঁয়াজ দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘যেকোনো মূল্যে পেঁয়াজের সরবরাহ বাড়ানো গেলে বাজার স্থিতিশীল হতে বাধ্য।’

উল্লেখ্য, পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের উদ্যোগে সাড়া দিয়ে কয়েকটি শিল্পগ্রুপ পেঁয়াজ আমদানি করে সরকারি ট্রেডিং করপোরেশনকে (টিসিবি) দিয়েছে। টিসিবি সেই পেঁয়াজ কেজি ৪৫ টাকা দরে সারাদেশে বিক্রি করছে। কিন্তু কোনো ব্যবসায়ী এবং পুলিশের পক্ষ থেকে ভর্তুকি দিয়ে পেঁয়াজ বিক্রির উদ্যোগ দেশে প্রথম।

সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান বলেন, ‘পুলিশ পরিবারের সংগঠন পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে নগরের থানা প্রাঙ্গণে পেঁয়াজ বিক্রি করা হচ্ছে। সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ কমাতে এবং ক্রমাগত বৃদ্ধি পাওয়া পেঁয়াজের দামের লাগাম টানতে পুলিশ পরিবারের পক্ষ থেকে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

পুলিশের এ উদ্যোগকে প্রশংসা করে চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহাবুবুল আলম বলেন, ‘লোকদেখানো বা নিউজ কাভারেজের জন্য নয়; আমি একান্তই নৈতিক দায়বদ্ধতা থেকে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছি। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশও এগিয়ে এসে, সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে। এটা খুবই ভালো উদ্যোগ। আশা করছি অন্য ব্যবসায়ী শীর্ষ শিল্পগ্রুপগুলোও মানুষের জন্য এভাবে এগিয়ে আসবে।’

তিনি বলেন, ‘যারা পেঁয়াজের বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে তারা কখনো ব্যবসায়ী হতে পারে না। আমি তাদের ব্যবসায়ী বলি না। পুলিশের পেঁয়াজ বিক্রির উদ্যোগ তাদের গালে চপেটাঘাত বলে মনে করি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা