kalerkantho

সোমবার । ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ১ পোষ ১৪২৬। ১৮ রবিউস সানি                         

চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ

কোনো পদে না থাকার ঘোষণা এমপি জাফরের

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা প্রতিক্রিয়া

ছোটন কান্তি নাথ, চকরিয়া (কক্সবাজার)   

১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কোনো পদে না থাকার ঘোষণা এমপি জাফরের

চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের আসন্ন কাউন্সিলে কোনো পদে প্রার্থী না হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও বর্তমান সভাপতি জাফর আলম। উপজেলা পর্যায়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে এমপির প্রার্থী হতে নিরুৎসাহিত করার বিষয়ে দলের প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনোভাবের পরিপ্রেক্ষিতে দেশের প্রথম এমপি হিসেবে জাফর আলম ওই ঘোষণা দিলেন শনিবার রাতে। এর পর পরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। তৃণমূল থেকে শুরু করে দলের নেতাকর্মী, সমর্থক ও রাজনৈতিক সচেতন ব্যক্তি নানা প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

প্রসঙ্গত, উপজেলা পর্যায়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে সংসদ সদস্যরা প্রার্থী হতে পারবেন না, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার উদ্ধৃতি দিয়ে দলীয় এমপিদের প্রতি গত শুক্রবার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এই আহ্বান জানান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কাকারা ইউপি চেয়ারম্যান শওকত ওসমান, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শহীদুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক কাউছার উদ্দিন কচি বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় থেকে শত নির্যাতন, হামলা-মামলা উপেক্ষা করে চকরিয়াকে আওয়ামী রাজনীতির উর্বর ভূমি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন জাফর আলম। তাঁর নেতৃত্বে আমরা যুদ্ধাপরাধী দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর রায়কে কেন্দ্র করে রাজপথের আগুনসন্ত্রাস মোকাবেলা করেছি। যদি তিনি দলের নেতৃত্বে না থাকেন, তাহলে তৃণমূল নেতাকর্মীরা অনেকটা এতিম হয়ে পড়বে। তাছাড়া নেতৃত্বে জাফর আলমের অনুপস্থিতিতে চকরিয়া-পেকুয়া বিএনপি-জামায়াতের অভয়ারণ্যে পরিণত হবে।

মাতামুহুরী সাংগঠনিক উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বাবলা বলেন, ‘কেন্দ্রীয়ভাবে যদি দল এমন সিদ্ধান্ত নেয়, সেটা ভিন্ন কথা। যদি সেটা বাস্তবায়ন হয় তাহলে দলীয় নেতাকর্মীরা অনেকটা এতিমের মতো হয়ে পড়বেন। তিনিই একমাত্র দলীয় নেতাকর্মীদের খোঁজ-খবর রাখেন, তাদের পাশে দাঁড়ান। তাছাড়া এই সিদ্ধান্তে দল চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এজন্য চকরিয়ার রাজনীতিতে জাফর আলমের বিকল্প ভাবার অবকাশ নেই। কেন্দ্রকে সেই বিষয়টি বুঝতে হবে।’

জানতে চাইলে সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সবসময় আমি দলের প্রধান ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তে অবিচল থাকি। অতএব আমি দৃঢ়তার সঙ্গেই বলছি আগামী কাউন্সিলে কোনো পদে প্রার্থী হব না। আমি যা বলি তা-ই করি।’

জাফর আলম বলেন, ‘দলে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টিতে দলের প্রধানের এমন দূরদর্শী ও সময়োপযোগী সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাচ্ছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা