kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

এত ভেজাল খাচ্ছি দেহ পচে কিনা সন্দেহ বিভাগীয় কমিশনারের

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এত ভেজাল খাচ্ছি, আমাদের দেহ পচে কিনা সেটিই দেখার বিষয় বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল মান্নান। গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে ৫০তম বিশ্ব মান দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এই কথা বলেন তিনি।

বিভাগীয় কমিশনার বলেন, ‘বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর বিএসটিআই চট্টগ্রাম বিভাগীয় অফিসের কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু বিএসটি্আইয়ের ৬০০ জনবল দিয়ে ১৭ কোটি মানুষের দেশে পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণ কীভাবে সম্ভব? বিএসটিআই বাধ্যতামূলক পণ্য ও আমদানিকৃত পণ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকার মতো চট্টগ্রামেও উন্নত ল্যাব দরকার।

বিএসটিআইয়ের কার্যক্রম বোঝাতে তিনি বলেন, ‘মিনারেল ওয়াটারের নামে যা বিক্রি হচ্ছে তা আদৌ মিনারেল ওয়াটার? বিএসটিআইয়ের আওতার বাইরে থাকা পণ্যগুলোর কী অবস্থা? এত ভেজাল খাচ্ছি আমাদের দেহ কী সেটিই এখন দেখার বিষয়। সম্রাট নেপোলিয়নের মরদেহ অনেক বছর পর সমাধি থেকে তোলার পর দেখা গেলো পচেনি। তাঁর কারণ তার খাবারে আর্সেনিক ও রাসায়নিক প্রয়োগ করা হয়েছিল। কনফেকশনারিতে ঢুকলে দেখবেন, ৫০ ধরনের পাউরুটি বিক্রি হচ্ছে। চকচকে দেখে আনবেন? কয়টা বিএসটিআই অনুমোদিত? অনুমোদনের পরও শতভাগ মান রক্ষার গ্যারান্টি দিতে পারছি কিনা ভাববার আছে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ‘যেহেতু ৮০ ভাগ পণ্য আনা-নেওয়া করা হয় চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে তাই চট্টগ্রাম বিএসটিআইয়ের লোকবল বৃদ্ধি ও আধুনিকায়নের বিকল্প নেই। এটি সুদূরপ্রসারী চিন্তার মাধ্যমে করতে হবে। কোয়ালিটির ব্যাপারে কোনো ধরনের কম্প্রোমাইজ করা যাবে না।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা