kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পানছড়িতে গৃহবধূকে নির্যাতন, স্বামী গ্রেপ্তার

পানছড়ি (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি   

১৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্বামীর হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছে পানছড়ি উপজেলার ফাতেমানগর গ্রামের এক গৃহবধূ। নির্যাতিতা গৃহবধূর নাম হাসিনা বেগম (২৬)। সে মাটিরাঙা উপজেলার তবলছড়ি ইউপির মোহাম্মদপুর গ্রামের মো. হাসান আলীর মেয়ে। এ ঘটনায় গৃহবধূ মামলা করায় পুলিশ তার স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে।

জানা যায়, হাসিনা বেগমের সঙ্গে পানছড়ি উপজেলা ফাতেমানগর গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে কামাল হোসেনের (৩০) পারিবারিকভবে বিবাহ হয় সাত বছর আগে। তাদের সংসারে রয়েছে তিনটি সন্তান।

হাসিনা অভিযোগ করেন, বিয়ের পর থেকেই বাপের বাড়ি থেকে টাকা এনে দিতে প্রায়ই আমাকে মারধর করা হত। এর আগেও আমার দরিদ্র পিতা আমাকে নির্যাতন না করার জন্য স্বামীর হাতে ত্রিশ হাজার টাকা তুলে দেন। এরই মাঝে আবার পঞ্চাশ হাজার টাকা চাইলে আমার বাবা দিতে পারবে না বলে জানালে কয়েক দফা মারধর করে। গত

রবিবার বিকেলে আমাকে লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে পুরো শরীর জখম করে। পরে প্রতিবেশীরা উদ্ধার করে পানছড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। স্থানীয় ইউপি সদস্য খোকন মিয়া জানায়, কামরুল তার স্ত্রীকে বেধড়ক পিটিয়েছে। সে আসলেই দুষ্ট প্রকৃতির। এ ব্যাপারে হাসিনা বাদী হয়ে পানছড়ি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। হাসিনার বাবা কৃষক হাসান আলী তার মেয়ের ওপর নির্যাতনকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক মো. ইসমাইল হোসেন জানায়, মামলার ১নং আসামিকে পানছড়ি বাজার এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি দু’জনকে আটক করতে পুলিশ কাজ করছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা