kalerkantho

জোরারগঞ্জে যুবককে কুপিয়ে হত্যা, পুকুরে অচেনা ব্যক্তির লাশ

দীঘিনালায় যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ

মিরসরাই (চট্টগ্রাম) ও দীঘিনালা (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি   

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মিরসরাইয়ে আফজাল হোসেন নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ছাড়া উপজেলার ইছাখালী ইউনিয়ন এলাকার একটি পুকুর থেকে অপুনভ ব্যক্তির (৫৫) মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গত মঙ্গলবার ভোরে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) দুর্বৃত্তদের কোপের আঘাতে আহত আফজালের মৃত্যু হয়। তাঁর বাড়ি উপজেলার জোরারগঞ্জ থানার হিঙ্গুলী ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের মিন্টু মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় মিন্টু মিয়া বাদী হয়ে জোরারগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ এজাহারভুক্ত দুই আসামি নূর হোসেন ও শেখ ফরিদকে গ্রেপ্তার করেছে।

জানা গেছে, গত সোমবার স্থানীয় ইসলামপুর গ্রাম থেকে আফজালকে ধরে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। এর পর ওইদিন দিবাগত রাতে এক কিলোমিটার দূরের পাহাড় থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে পরিবারের লোকজন চমেক হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরদিন ভোরে হাসপাতালেই তাঁর মৃত্যু হয়।

এদিকে গতকাল বুধবার সকাল ১১টার দিকে স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ ইছাখালী ইউনিয়নের ভূঁইয়া গ্রামের একটি পুকুর থেকে এক অজ্ঞাত ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে। ময়নাতদন্তের জন্যে মরদেহটি চমেক মর্গে পাঠানো হয়েছে।

জোরারগঞ্জ থানার সেকেন্ড অফিসার (এসআই) সিরাজুল ইসলাম জানান, আফজাল হত্যার ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। আর ইছাখালী ইউনিয়ন এলাকা থেকে উদ্ধার করা অজ্ঞাত ব্যক্তির মরদেহের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি।

দীঘিনালা : যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার মেরুং ইউনিয়নের মধ্যবেতছড়ি (গোরস্থানপাড়া) থাকার ঘর সংলগ্ন কাঁঠাল গাছ থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

জানা যায়, নিহত রবি মিয়া (৩০) মধ্যবেতছড়ি এলাকার মৃত আবদুল কাদেরের ছেলে। তবে তিনি দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের গোরস্থান পাড়ায় শ্বশুর বাড়িতে থাকত।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গলায় গামছা দিয়ে ঝুলন্ত লাশের হাঁটুবাঁকা পা দুটি মাটিতে লাগানো ছিল। এতে হত্যা না আত্মহত্যা তা নিয়ে সন্দেহ করছেন স্থানীয়রা। পুলিশের কাছে সন্দেহের বিষয়টি নিহতের স্বজনদের পক্ষ থেকেও জানানো হয়েছে।

দীঘিনালা থানার অফিসার ইনচার্জ উত্তম চন্দ্র দেব ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, প্রাথমিকভাবে অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। সব বিষয় বিবেচনায় রেখে পুলিশ গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।

 

মন্তব্য