kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

খাগড়াছড়িতে স্ত্রী-সন্তান খুন

স্বামীর ফাঁসি, শ্বশুর ও শাশুড়ির যাবজ্জীবন

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তিন বছর আগে খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারায় নিজ বাড়িতে স্ত্রী ও শিশু সন্তানকে হত্যার দায়ে ছাবের আলীকে (২৯) মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই মামলায় তাঁর বাবা মো. মাহবুব আলী (৫৪) ও মা রেনু আরা বেগমকে (৪৯) যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে তাঁদের প্রত্যেককে অর্থদণ্ড দেওয়া হয়। তবে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় চতুর্থ আসামি ও ছাবের আলীর ভাই মো. শাহজাহানকে (২৪) খালাস দিয়েছেন আদালত। 

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে খাগড়াছড়ির জেলা ও দায়রা জজ রেজা মো. আলমগীর হাসান এই রায় ঘোষণা করেন। এ সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। ছাবের আলীর বাড়ি গুইমারা উপজেলার বড়পিলাক গ্রামে।

জানা গেছে, ২০১৬ সালের ২২ মার্চ জেলার গুইমারা উপজেলার বড়পিলাক এলাকায় ঘুমন্ত স্ত্রী মাজেদা বেগমকে (২২) গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হত্যা করা হয়। মাত্র ৬ মাসের শিশু সন্তান রেদোয়ানকেও পাষণ্ড বাবা গলা টিপে হত্যা করেন।

ঘটনার পরদিন নিহত মাজেদা বেগমের বাবা মো. সাহাব উদ্দিন বাদী হয়ে গুইমারা থানায় মামলা করেন। সেই মামলায় স্বামী ছাবের আলী, তাঁর বাবা মাহবুব আলী, মা রেনু আরা বেগম ও ভাই শাহজাহানকে আটক করে পুলিশ। পরে দীর্ঘ প্রক্রিয়ার পর একই বছরের ২৯ আগস্ট চার্জশিট দেয় পুলিশ। এ ছাড়া আদালতে ১৬ জনের সাক্ষ্য শেষে প্রায় সাড়ে তিন বছরের মাথায় রায় ঘোষণা করা হয়।

খাগড়াছড়ি জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট বিধান কানুনগো রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা