kalerkantho

বুধবার । ১৭ জুলাই ২০১৯। ২ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৩ জিলকদ ১৪৪০

লালখানবাজারে পাহাড়ধস

ঘরের বাসিন্দাদের আগে সরিয়ে নেওয়ায় বিপদ থেকে রক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নগরের লালখানবাজার এলাকায় ভারি বর্ষণের কারণে পাহাড়ধসের ঘটনা ঘটেছে। তবে এতে হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় পোড়া কলোনি সংলগ্ন পাহাড়ের উত্তরাংশে বড় একটি অংশ ধসে পড়ে। এতে পাশের কয়েকটি টিনের বসতঘর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এসব ঘরের লোকজনকে প্রশাসন আগেই সরিয়ে নিয়েছিল। ফলে হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

এ প্রসঙ্গে আগ্রাবাদ সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) শারমিন আখতার বলেন, ‘ভারি বর্ষণের কারণে পাহাড়ধসের আশঙ্কা আগে থেকেই করা হচ্ছিল। ফলে প্রশাসন ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ের পাদদেশে থেকে বেশ কিছু পরিবার সরিয়ে নিয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে গেছে। সেই কারণে পোড়া কলোনির ওই ঘরগুলো খালি ছিল। বৃহস্পতিবার সকালে পাহাড়ধসের ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি।’

তিনি জানান, পোড়া কলোনি থেকে ৩৭ পরিবারকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১২ পরিবার লালখানবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছে। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এসব পরিবারকে খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে। অন্য পরিবারগুলো আত্মীয়স্বজনদের বাসায় আশ্রয় নিয়েছে। তিনি বলেন, ‘ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে কোনো পরিবারের সদস্যদের থাকতে দেবে না প্রশাসন। সেই লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন কাজ করছে।’

জানা গেছে, চট্টগ্রাম নগরের ১৭টি ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে ৮৩৫ পরিবার বসবাস করে। ভারি বর্ষণ অব্যাহত থাকায় তাঁদের সরিয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে যাচ্ছে প্রশাসন। এ ছাড়া ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে উচ্ছেদ কার্যক্রমও চলছে। যা ১৭ জুলাই পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে।

 

মন্তব্য