kalerkantho

শনিবার  । ১৯ অক্টোবর ২০১৯। ৩ কাতির্ক ১৪২৬। ১৯ সফর ১৪৪১         

চট্টগ্রাম ওয়াসা

৫৬ বছরেও নগরবাসীর চাহিদা পূরণে ব্যর্থ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৫৬ বছরেও নগরবাসীর চাহিদা পূরণে ব্যর্থ

অদক্ষ প্রশাসন, স্বজনপ্রীতি, স্বেচ্ছাচারিতা, আত্মীয়করণ ও গ্রাহক স্বার্থকে উপেক্ষা করার কারণে চট্টগ্রাম ওয়াসা ৫৬ বছরেও নগরবাসীর চাহিদা পূরণে ব্যর্থ হয়েছে দাবি করে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ক্রেতা-ভোক্তাদের স্বার্থ সংরক্ষণকারী জাতীয় প্রতিষ্ঠান কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)।

ক্যাবের এক বিবৃতিতে জানানো হয়, গ্রীষ্ম ও পবিত্র মাহে রমজান সমাগত। রমজানে নগরের অধিকাংশ এলাকায় সুপেয় পানির প্রাপ্যতা ও পানির গুণগত মান নিয়ে শঙ্কায় নগরজীবন। গতবছর হালিশহরে পানির লাইনের সঙ্গে স্যুয়ারেজ এর লাইন যুক্ত হয়ে পানি দূষণের কারণে হালিশহর এলাকায় ডায়রিয়া ও জন্ডিস মহামারী আকারে রূপ নিলেও ওয়াসার খামখেয়ালীপনায় কোনো কার্যকর উদ্যোগ না নেওয়ায় এখানে অবস্থার পরিবর্তন হয়নি। ফলে এ বছরও পানিবাহিত রোগ এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই নগরবাসীর পানির প্রাপ্যতা নিশ্চিত, ওয়াসাকে গ্রাহকবান্ধব, সত্যিকারের সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) ন্যায় চট্টগ্রাম ওয়াসায় সামগ্রিক পরিবর্তন আনার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

চট্টগ্রাম ওয়াসার সামগ্রিক ব্যবস্থাপনা ও গ্রাহক সেবার মান উন্নয়ন বিষয়ে এক বিবৃতিতে ক্যাব নেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যখনই পানির সংকট দেখা দেয় ওয়াসা কর্তৃপক্ষ বারংবার বিভিন্ন প্রকল্পের দোহাই দিয়ে থাকে। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের পর তাদের সেই প্রতিশ্রুতির কোনো ফল নগরবাসী পায় না। এর মূল কারণ হল পানির অপচয় রোধ, সরবরাহ লাইনে ত্রুটি, লিকেজ, পানির চুরি বন্ধ, বিলিং ব্যবস্থার ত্রুটি দূর না করে ওয়াসা কর্তৃপক্ষ বারংবার নতুন নতুন প্রকল্পের ওপর জোর দিয়ে আসছে।

১৯৬৩ সালে প্রতিষ্ঠার পর বর্তমান সরকারের আমলেই ১৩ হাজার কোটি টাকার সর্বোচ্চ উন্নয়ন বরাদ্দ পায় এ প্রতিষ্ঠানটি। বয়সের ভারে ন্যুব্জ ব্যবস্থাপনা পরিচালক চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের ১০ বছরেও প্রশাসনে গতিশীলতা আনতে পারেননি।

তাঁরা আরও বলেন, ক্যাব পানির অপচয় রোধ, সেবা সার্ভিসের অব্যবস্থাপনা রোধে গ্রাহকদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি, গ্রাহক সেবার মান ও অনিয়ম রোধে ত্রিপাক্ষিক গণশুনানির আয়োজন করা, গ্রাহক হয়রানি রোধে তাত্ক্ষণিক প্রতিকারের জন্য ডিজিটাল হেলপলাইন চালু ও হেলপডেস্ক আধুনিকায়ন, দাম বাড়ানোসহ সেবার মান উন্নয়নে নীতিমালা প্রণয়নে ভোক্তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার দাবি জানালেও মন্ত্রণালয় ও ওয়াসা কর্তৃপক্ষ এ পর্যন্ত কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। দুদকের নির্দেশে সপ্তাহে একদিন গণশুনানির আয়োজনের কথা বলা হলেও ওয়াসা কর্তৃপক্ষ এ ধরনের কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।

বিবৃতিদাতারা হলেন, ক্যাব কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন, ক্যাব চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক কাজী ইকবাল বাহার ছাবেরী, ক্যাব মহানগরের সভাপতি জেসমিন সুলতানা পারু সাধারণ সম্পাদক অজয় মিত্র শঙ্কু, যুগ্ম সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম ও ক্যাব চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সভাপতি আবদুল মান্নান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা