kalerkantho

বুধবার । ১৬ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৬ সফর ১৪৪১       

গ্রেপ্তার দুজনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

টাকার জন্য ইয়াবা কারবারি খুন

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

২৭ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টাকার জন্য ইয়াবা কারবারি খুন

গ্রেপ্তার সোহেল ও সাহেদুল

চকরিয়ার সাহারবিলে অজ্ঞাত এক ব্যক্তিকে হত্যার ক্লু উদঘাটন করেছে পুলিশ। ওই ঘটনায় গ্রেপ্তার দুই ব্যক্তি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

পুলিশ জানায়, গত ৩ জানুয়ারি রাত সাড়ে ১১টার দিকে সাহারবিল ইউনিয়নের চারঘর পাড়ায় ধানক্ষেত থেকে ৩৫ বছরের অজ্ঞাত এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।  অজ্ঞাত পরিচয় হওয়ায় আদালতের নির্দেশে কক্সবাজার শহরের কবরস্থানে লাশটি দাফন করা হয়। কিন্তু ঘটনার কয়েকদিন পর অজ্ঞাত ব্যক্তিটি ঢাকার ধানমণ্ডি ২১/ডি ব্লকের মাহবুবুল আলম এবং তাঁকে স্বামী বলে শনাক্ত করেন সবুক্তা বেগম নামে এক নারী। পরে ওই নারীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালতের নির্দেশে ১৩ জানুয়ারি কবর থেকে লাশ উত্তোলনের পর হস্তান্তর করা হয়। এর পর পুলিশ মাহবুবের মোবাইল কলের সূত্র ধরে প্রযুক্তির সহায়তায় হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটনে মাঠে নামে। অবশেষে হত্যাকাণ্ডে জড়িত দুজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাঁরা হলেন চকরিয়া উপজেলার পূর্ব বড় ভেওলার অলিবাপেরপাড়ার কফিল উদ্দিনের ছেলে মো. সোহেল (২৪) ও সাহারবিল ইউনিয়নের নয়াপাড়ার ফরিদুল আলমের ছেলে সাহেদুল ইসলাম (২০)।

চকরিয়া থানার ওসি মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই প্রিয়লাল ঘোষ জানান, ইয়াবা কারবারের মামলায় মাহবুব বেশ কয়েকমাস কক্সবাজার কারাগারে ছিলেন, তখন পরিচয় হয় ইয়াবা কারবারি সোহেলের সঙ্গে। সেই সুবাদে ঘটনার দিন মাহবুব আদালতে হাজিরা শেষে মোবাইলে যোগাযোগ করেন সোহেলের সঙ্গে। কথা ছিল সোহেলের কাছ থেকে ইয়াবা কিনে ফের ঢাকায় ফিরবেন ওই রাতেই। সে অনুযায়ী মাহবুব পূর্ব বড় ভেওলায় গেলে সোহেল তাকে নিয়ে যায় চারঘরপাড়ার ধানক্ষেতে। তাঁর ধারণা, মাহবুবের কাছে মোটা অঙ্কের টাকা থাকতে পারে। ওই টাকার জন্য চারজন মিলে মাহবুবকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায় তারা। এসব বিষয় আদালতের বিচারকের কাছে দেওয়া জবানবন্দিতে উল্লেখ করেছেন গ্রেপ্তারকৃতরা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা