kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৭ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৭ সফর ১৪৪১       

চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

উন্নীত হচ্ছে ১০০ শয্যায় ২৫ কোটি টাকা বরাদ্দ

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যা থেকে ১০০ শয্যায় উন্নীতকরণের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। এ জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫টি আধুনিক মানের নতুন ভবন। এর মধ্যে আছে সাত তলা ফাউন্ডেশনের চার তলা বিশিষ্ট হাসপাতাল ভবন, তত্ত্বাবধায়কের বাসভবন, পাঁচ তলা বিশিষ্ট স্টাফ কোয়ার্টার, নার্স কোয়ার্টার ও ডক্টরস কোয়ার্টার। ইতোমধ্যে এসব কাজের প্রায় ৫০ শতাংশ কাজ এগিয়ে গেছে বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করেছে। এতে চলতি বছরের মধ্যেই ১০০ শয্যায় উন্নীত হয়ে স্বাস্থ্যসেবার কার্যক্রম শুরু করা হতে পারে বলে আশা সংশ্লিষ্টদের।

১০০ শয্যায় উন্নীতকরণের জন্য নতুন এসব ভবন নির্মাণ কাজের অগ্রগতির বিষয়টি শনিবার উত্থাপন করা হয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ব্যবস্থাপনা কমিটির মাসিক সভায়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কক্সবাজার-১ আসনে নবনির্বাচিত এমপি জাফর আলম।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ শাহবাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির মাসিক সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূরুদ্দীন মুহাম্মদ শিবলী নোমান, স্বাস্থ্য বিভাগ চট্টগ্রামের উপ-পরিচালক ডা. আবদুস সালাম, চকরিয়া থানার ওসি তদন্ত এস এম আতিক উল্লাহ, হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য মো. নুরুল আবছার, সুরাজপুর-মানিকপুর ইউনিয়ন পরিষদ চয়ারম্যান আজিমুল হক আজিম, চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অধ্যাপক মোসলেহ উদ্দিন মানিক, সাধারণ সম্পাদক আতিক উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ নোমান, আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. শোভন দত্ত, উপজেলা পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা বিধান কান্তি রুদ্র, স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর কক্সবাজারের সহকারী প্রকৌশলী মোরশেদুল আলম, সাংবাদিক ছোটন কান্তি নাথ ও এম জিয়াবুল হক, পৌরসভার কাউন্সিলর জিয়াবুল হক প্রমুখ।

সভার প্রধান অতিথি এমপি জাফর আলম বলেন, ‘আমি উপজেলা চেয়ারম্যান থাকাকালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছিলাম, ৬ উপজেলার কেন্দ্রবিন্দু চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যা থেকে ১০০ শয্যায় উন্নীত করে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক চিঠিতেই এই হাসপাতালকে ১০০ শয্যায় উন্নীতকরণের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেন এবং ২৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দেন।’

এমপি বলেন, ‘আজ আমি খুব খুশি, কেননা চকরিয়াসহ আশপাশের উপজেলার অন্তত ১৫ লক্ষ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা যাবে এই হাসপাতালে। যেহেতু ইতোমধ্যে ৫০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে, সেহেতু আর বেশিদিন নেই ১০০ শয্যার কার্যক্রম শুরু করতে।’

এমপি জাফর আলম সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যদের নির্দেশ দেন, এই হাসপাতালের ভবন নির্মাণসহ যাবতীয় কাজের মান বজায় রেখে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে যাতে সম্পন্ন হয় সেজন্য কঠোর নজরদারি রাখতে হবে। এজন্য ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকেও আন্তরিক হতে হবে।

স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর কক্সবাজারের সহকারী প্রকৌশলী মোরশেদুল আলম বলেন, ‘ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ডিসিএল ম্যাগ জয়েন্ট ভেঞ্চারকে কার্যাদেশ দেওয়ার পর ২০১৮ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে হাসপাতালের নতুন অবকাঠামোর নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়। এই প্রকল্পের আওতায় নির্মিত হবে পাঁচটি আধুনিকমানের নতুন ভবন।’

তিনি আরো বলেন, ‘হাসপাতালকে ১০০ শয্যায় উন্নীতকরণে ৭তলা ফাউন্ডেশনে ৪তলা বিশিষ্ট নতুন হাসপাতাল ভবন, হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের বাসা, ৫তলা বিশিষ্ট হাসপাতালের স্টাফ কোয়ার্টার, নার্স কোয়ার্টার ও ডক্টরস কোয়ার্টার রয়েছে। এ ছাড়া নির্মিত হচ্ছে গাড়ি রাখার গ্যারেজ এবং চালক হাউস। কাজের গুণগত মান ঠিক রেখে স্বচ্ছতার মাধ্যমে নির্মাণ কার্যক্রম সমাপ্ত করার জন্য আমাদের পক্ষ থেকে সার্বক্ষণিক নজরদারি রয়েছে।’

চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ শাহবাজ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘৫০ শয্যার হাসপাতালটি ১০০ শয্যায় উন্নীত করতে ২৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এখানে হাসপাতালের সেবা প্রদানের জন্য নতুন ভবনটি হবে চার তলা বিশিষ্ট। ভবনটি নির্মিত হলে চকরিয়াসহ আশপাশের কয়েকটি উপজেলার অন্তত ১৫ লক্ষ মানুষ উন্নত স্বাস্থ্যসেবা পাবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা