kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

দুর্নীতি দমন কমিশনের অভিযান

সরকারি ১০০ কোটি টাকার জমি বেহাতের দুর্নীতি উদঘাটন

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সরকারি ১০০ কোটি টাকার জমি বেহাতের দুর্নীতি উদঘাটন

নগরের ফিরোজ শাহ এস্টেটের ৩০৮ কাঠা জমি বেআইনিভাবে বন্দোবস্ত দেওয়ার প্রমাণ পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের কার্যালয়ে অভিযান চালিয়েছে দুদক।

দুদক কর্মকর্তারা জানান, জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের চট্টগ্রামস্থ ফিরোজ শাহ হাউজিং এস্টেটের ৫ দশমিক ১৩ একর জমি গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের নয় মর্মে সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী ওম প্রকাশ নন্দী কর্তৃক এনওসি প্রদানের মাধ্যমে বেহাত করা হয়।

নির্বাহী প্রকৌশলী এই অনাপত্তি পত্র অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব), চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন বরাবর প্রেরণ করেন। অনাপত্তিপত্র পাওয়ার পর চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন উক্ত জমির নতুন খতিয়ান সৃষ্টি করে ও সহকারী কমিশনার (ভূমি)-কে ভূমি উন্নয়ন কর আদায়ের জন্য নির্দেশনা প্রদান করে। নির্দেশনা পাওয়ার পর সহকারী কমিশনার উক্ত জমি ২৮ জন বরাদ্দ গ্রহীতার নামে নামজারি করেন। এর ফলে ১০০ কোটি টাকার অধিক মূল্যবান এ সরকারি সমপত্তি বেহাত হয়ে যায়।

দুদক টিম জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ কার্যালয়ের রেকর্ডপত্র পরীক্ষা ও পর্যালোচনা করে এসব তথ্য সমপর্কে অবহিত হয়। সরকারি জমি বেহাত হওয়ার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের করা হবে বলে জানানো হয়।

এ প্রসঙ্গে দুদক এনফোর্সমেন্ট ইউনিটের মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী বলেন, ‘সরকারি সমপত্তি নিয়ে দুর্নীতির ঘটনা রোধে দুর্নীতি দমন কমিশন কঠোরভাবে তৎপর রয়েছে। এক্ষেত্রে এ ঘটনার ওপর দুদক শিগগিরই আরো অনুসন্ধান শুরু করবে এবং দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা