kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

মিশার পর্দাবদল

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মিশার পর্দাবদল

মিশা সওদাগর ► ছবি : ‘বিদ্রোহী’ ছবির সৌজন্যে

মিশা সওদাগর—নামটা শুনলেই সিনেমার মন্দ মানুষের চেহারা ভেসে ওঠে। এই অভিনেতা অতীতে টুকটাক টিভি নাটক করেছেন, এবার প্রথমবার অভিনয় করলেন ওয়েব সিরিজে। চরকিতে আজ মুক্তি পাবে তানিম পারভেজের ‘যদি আমি বেঁচে ফিরি’। মিশা সওদাগরের পর্দাবদলের গল্প শুনেছেন  ইসমাত মুমু

কয়েক দিন আগে ফেসবুকে একটা ভিডিও পোস্ট করেন মিশা সওদাগর।

বিজ্ঞাপন

তাতে দেখা যায়, লিফটে আটকা পড়েছেন তিনি। নিজের ধারণ করা ভিডিওতে নিজেকে খারাপ ও দুর্নীতিবাজ মানুষ বলছেন। ভিডিওটি দেখে অনেকেই হকচকিয়ে গেলেন। পরদিন জানা গেল, এটি একটি ওয়েব সিরিজের অংশবিশেষ। প্রথমবারের মতো বড় পর্দার খল অভিনেতাকে পাওয়া যাবে ওয়েবে।

আজ রাতে চরকিতে মুক্তি পাবে সিরিজটি। মিশার সঙ্গে আলাপের শুরুতেই বোঝা গেল, ওটিটির নিয়মিত দর্শক তিনি। দারুণ উপভোগ করেন কনটেন্টগুলো। তাই পর্দাবদলে আগ্রহী হলেন, ‘ওটিটির সবচেয়ে ভালো যে দিক তা হলো, বিভিন্ন প্রেক্ষাপটের গল্প বলা সম্ভব হচ্ছে এখানে। মেধাবী নির্মাতা ও অভিনয়শিল্পীরা এখন পর্যন্ত স্বাধীনভাবে গল্প বলতে পারছেন। আমি সব সময়ই চাই একটা ভালো গল্পের অংশ হতে। তা ছাড়া ওটিটি নায়ক-নায়িকা বেইসড না, গল্প বেইসড। ’

সিনেমা ও ওটিটি কনটেন্টের একটা পার্থক্য টেনে বলেন, ‘সিনেমায় লগ্নি করা টাকা ফেরত পাওয়ার গ্যারান্টি দিয়ে গল্প বলতে হয়। মাল্টিপ্লেক্স, সিঙ্গেল স্ক্রিনে চলবে কি না সেটা মাথায় রাখতে হয়। ওটিটিতে লগ্নি তোলার বোঝা থেকে পরিচালক অনেকটাই মুক্ত থাকেন। ফলে ভিন্ন কিছু চিন্তা করা সহজ হয়ে ওঠে। সিনেমায় কিছু ফর্মুলা আছেই—দুঃখ, কষ্ট, আনন্দ, বেদনা, অন্যায়ের প্রতিবাদ। নায়কের শত্রু মানে সে সব বিষয়েই খারাপ। শেষ দৃশ্যে মন্দ মানুষটা শাস্তি পাবেই। সব মিলে একটা প্যাকেজ হয়ে গেছে। ’

‘যদি আমি বেঁচে ফিরি’র একটা বড় অংশের শুটিং হয়েছে লিফটে। বাস্তবে ভীষণ লিফটভীতি মিশার! জানালেন ক্লাস্টোফোবিয়া আছে তাঁর। পরিচালককে সেটা জানতে দেননি। অতীতে দু-তিনবার লিফটে আটকাও পড়েছেন। লিফটে আটকা পড়লে কী হয় সেটা তাঁর ভালোই জানা। শুটিংয়ে সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়েছেন। মিশা বলেন, ‘আমি যখন লিফটের দৃশ্যের জন্য সেটে ঢুকেছি একেবারে প্যাকআপ করে বের হয়েছি। কারণ আমি জানি যে আবেগ নিয়ে শুরু করব, সেখান থেকে বের হয়ে রেস্ট নিতে গেলে পরের দৃশ্যে আবেগ আর না-ও আসতে পারে। আমার চেহারার কষ্টটা স্পষ্ট হবে না। লিফটে স্যুট পরে ঢুকেছি, বের হয়েছি খালি গায়ে। ’

সিরিজে দুর্নীতিগ্রস্ত প্রকৌশলী রবিউলের চরিত্রে আছেন মিশা। স্ত্রী ও বান্ধবীর সঙ্গে সম্পর্ক ঠিক রাখতে হিমশিম খাচ্ছে এই রবিউল। বান্ধবীকে উপহার দেয় একটি ফ্ল্যাট। একদিন সেই অ্যাপার্টমেন্টের লিফটেই আটকা পড়ে রবিউল। মিশা বলেন, ‘আরাম-আয়েশের একটা জীবনের জন্য আমরা দৌড়াচ্ছি। এর মধ্যেই অনেক অন্যায় করে ফেলছি মা-বাবা, বন্ধু, স্ত্রী, বাচ্চাদের সঙ্গে। এসবের অনেক গুরুত্বপূর্ণ মেসেজ পাবে দর্শক। ’

‘যদি আমি বেঁচে ফিরি’তে অনেক প্রথমের সমন্বয় ঘটেছে। কেননা মিশা সওদাগর বাদেও বিজরী বরকতউল্লাহ, দিলরুবা হোসেন দোয়েল ও পরিচালক তানিম পারভেজের চরকিতে এটাই প্রথম কাজ। বেশির ভাগ কলাকুশলীর সঙ্গে মিশারও প্রথম অভিনয়।

কথায় কথায় উদাহরণ টানলেন বাংলাদেশের আলোচিত প্রায় সব ওটিটি কনটেন্টের। ‘মহানগর’, ‘কারাগার’, ‘আগস্ট ১৪’—প্রতিটি কনটেন্টের ভালো দিক, কী নতুন যোগ করল, সবটাই বিশদে বললেন, ‘আমি যখন ফিল্মের ব্যস্ততায় রাত-দিনের হিসাব করতে পারতাম না, তখন যদি তিন-চার দিন ফুরসত মিলত বাসায় থাকার, সমানে টিভি নাটক দেখতাম। এখন সঙ্গে যোগ হয়েছে ওটিটি। ’

 এদিকে সিনেমা নিয়ে ভীষণ ব্যস্ততায় ডুবে আছেন। শুটিং, ডাবিং মিলিয়ে জানুয়ারি পর্যন্ত তার শিডিউল বুকড। ‘আগুন’, ‘লিডার আমিই বাংলাদেশ’, ‘রিভেঞ্জ’-এর শুটিং সম্পন্ন করেছেন। সামনে করবেন ‘অনাবৃত্ত’, ‘আহারে জীবন’, ‘বিট্রে’, ‘কিল হিম’ ও ‘নাইন এম এম’ সিনেমার শুটিং। এসবের ফাঁকে কিছু ওটিটির কাজও করবেন বলে জানালেন মিশা। মুক্তির অপেক্ষায় আছে আরটিভি প্লাসের ‘পর্দার আড়ালে’। নভেম্বরে শুটিং শুরু করবেন বায়োস্কোপের ‘জ্যাকপট’।



সাতদিনের সেরা