kalerkantho

রবিবার । ১৪ আগস্ট ২০২২ । ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৫ মহররম ১৪৪৪

ঈদের তিন ছবির কথা

অবশেষে চূড়ান্ত হলো ঈদের ছবির লাইনআপ। আগে মুক্তির ঘোষণা দেওয়া ছবির মধ্যে টিকে আছে বাংলাদেশ-ইরান যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ‘দিন—দ্য ডে’, পরে যুক্ত হয়েছে রায়হান রাফির ‘পরাণ’ ও অনন্য মামুনের ‘সাইকো’। তিন ছবি নিয়ে লিখেছেন সুদীপ কুমার দীপ

৩০ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



ঈদের তিন ছবির কথা

অনন্ত জলিল ও আফিয়া নুসরাত বর্ষা

শতকোটি টাকার ছবি ‘দিন—দ্য ডে’

 

২০১৯ সালের প্রথম দিকের কথা। ‘মোস্ট ওয়েলকাম ২’-এর পাঁচ বছর পর নতুন ছবি নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত নিলেন অনন্ত জলিল। দেশে সিনেমা হলের সংখ্যা তত দিনে তলানিতে ঠেকেছে। তিনি ভাবলেন যৌথ প্রযোজনায় ছবি নির্মাণ করবেন।

বিজ্ঞাপন

তবে এত দিন যৌথ প্রযোজনা বলতে বাংলাদেশের দর্শক মনে করত বাংলাদেশ-ভারত। সেই প্রথা ভাঙতে চাইলেন অনন্ত। যোগাযোগ করলেন ইরানের সঙ্গে। পেয়েও গেলেন পরিচালক মুতর্জা অতাশ জমজমকে। তৈরি হলো পাণ্ডুলিপি। সেই পাণ্ডুলিপি বাংলাদেশের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ১০ সদস্য পড়েছিলেন, কিছু কাটছাঁটের পর শুটিংয়ের অনুমতিও পেয়েছিলেন।

অনন্ত বলেন, ‘শুটিংয়ের প্রথম দিন থেকে আমাদের নানা দিক খেয়াল করতে হয়েছে। বাংলাদেশ ও ইরানের আইন এক নয়, সংবিধানও এক নয়। এমন কোনো দৃশ্য রাখা যাবে না যেটা সেন্সরে আটকে যায়। সত্যি বলতে, আমাদের দেশের সেন্সর বোর্ড ছবিটি কিন্তু একাধিকবার দেখেছে। আমিও কিছুটা ভয়ে ছিলাম। এক শ কোটি টাকার ছবি, না জানি কি কাটিং দেয়! যদিও সেটা হয়নি বরং অভিনন্দন পেয়েছি। এখন শঙ্কায় আছি ইরানের সেন্সর নিয়ে। সেখানে ছবিটি জমা পড়েছে। তবে এখনো কোনো ফল আসেনি। তবে জানিয়ে রাখা ভালো, বাংলাদেশের মতো ইরানের সেন্সর বোর্ড কিন্তু অতটা উদার নয়। তেমন কিছু চোখে পড়লে ছবি ব্যান্ডও করে দিতে পারে। ’

এবার ঈদের সবচেয়ে ব্যয়বহুল ছবি ‘দিন—দ্য ডে’। শতকোটি বাজেটের ছবি বাংলাদেশে আগে কখনো হয়নি। ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ের হিসাবও দিলেন অনন্ত, ‘শুটিংয়ের আগে আমি প্রস্তাব দিয়েছিলাম, বাংলাদেশে যে কয়েকটা দিন শুটিং হবে সেই খরচটা আমি দেব। ইরানে ৪০ দিন শুটিংয়ের পরিকল্পনা থাকলেও পরে ৫৭ দিন শুটিং হয়। খরচটা এখানেই বেড়ে গেছে। ’

ছবিতে অনন্ত জলিলকে আন্তর্জাতিক সংস্থার একজন পুলিশ অফিসারের চরিত্রে দেখা যাবে। বিভিন্ন দেশে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দমনের অভিযানে অংশ নেন তিনি। সঙ্গে আছেন তাঁর স্ত্রী অভিনেত্রী বর্ষাও। আরো অভিনয় করেছেন মিশা সওদাগর, সুমন ফারুকসহ ইরান ও লেবাননের বেশ কয়েকজন শিল্পী।

ছবির প্রচারণায়ও অনন্ত নিয়েছেন অভিনব সিদ্ধান্ত। ঢাকার মধুমিতা সিনেমা হলে ট্রেলার লঞ্চিং করেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্যাম্পাসে পোস্টার বিতরণ করেছেন। ২৮ জুন হেলিকপ্টারে করে ছবির লিফলেট বিলিয়েছেন। এ ছাড়া ঢাকার বাইরেও ছবির প্রচারণায় অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ঈদে মুক্তি পেতে যাওয়া অন্য দুটি ছবি ‘সাইকো’ ও ‘পরাণ’-এর চেয়ে ‘দিন—দ্য ডে’ প্রচারণায় অনেকটা এগিয়ে এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না।

 

শরিফুল রাজ ও বিদ্যা সিনহা মিম

সত্য গল্পের ছায়া ‘পরাণ’

‘পোড়ামন ২’ ছবি দিয়েই বাজিমাত করেছিলেন পরিচালক রায়হান রাফি। চার বছর পর এবার ঈদে বড় পর্দায় তাঁর ছবি ‘পরাণ’ মুক্তি পাবে। রিফাত হত্যাকাণ্ডের মতো আলোচিত ঘটনার ছায়া অবলম্বনে তৈরি হয়েছে ‘পরাণ’। এই ছবির মাধ্যমে প্রথমবার বিদ্যা সিনহা মিমের সঙ্গে জুটি হচ্ছেন শরিফুল রাজ ও ইয়াশ রোহান। মিমেরও তিন বছর পর বড় পর্দায় ছবি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। তাই আনন্দটা একটু বেশিই তাঁর। মিম বলেন, ‘আমি রোমান্টিক ছবির ভক্ত। অথচ আমার ক্যারিয়ারে রোমান্টিক ছবি খুবই কম। এই ছবির প্রস্তাব পেলাম যখন তখন বরগুনার রিফাত হত্যার ঘটনাটা ঘটেছে। গল্পটি শোনার সঙ্গে সঙ্গে কেমন যেন ভয় পেয়ে গেলাম। আবার রোমান্টিক ছবিটা ছাড়তেও মন চাইল না। বিশ্বাস করবেন না, ছবির প্রতিটি দৃশ্য করার সময় আলাদা একটা ভয় কাজ করত। বিশেষ করে শরিফুল রাজের সঙ্গে শুটিং করার সময় মনে হতো এই বুঝি সে আমাকে খুন করবে! আমি হলফ করে বলতে পারি, ছবিটি দেখলে দর্শক অন্য রকম একটা অনুভূতির সম্মুখীন হবে। ’

শরীফুল রাজ বলেন, ‘আমি সব সময় চরিত্রের সঙ্গে মিশে যাওয়ার চেষ্টা করি। মিম যেটা বলেছে সেটা ঠিক। ক্যামেরার সামনে আমি সত্যিই ভয়ংকর হয়ে যেতাম। এটি আমার ক্যারিয়ারে বিশেষ ছবি হয়ে থাকবে। আমি রাফি ভাইয়ের কাছে কৃতজ্ঞ, তিনি এমন একটা গল্পে ও চরিত্রে আমাকে ভেবেছেন। ’ ছবির আরেক অভিনেতা ইয়াশ রোহান। তিনিও ‘পরাণ’ নিয়ে আশাবাদী। বলেন, ‘ডাবিং করার সময় পুরো ছবিটি দেখেছি। অনেক দিন পর এমন ত্রিভুজ প্রেমের ছবি আসছে প্রেক্ষাগৃহে। গত ঈদে মুক্তি পাওয়া তিনটি ছবিই ভালো চলেছে। এবার ঈদেও তিনটি ছবি মুক্তি পাচ্ছে। আমি চাই প্রতিটি ছবিই ভালো করুক। ’

 

পূজা চেরী ও জিয়াউল রোশান

‘সাইকো’ দিয়ে ফের বাণিজ্যিক হবেন মামুন

‘সাইকো’ ছবিতে প্রথমবার জুটি হয়েছেন পূজা চেরী ও জিয়াউল রোশান। ছবির টাইটেল গান মুক্তি পেয়েছে ২৮ জুন। বেশ সাড়াও পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন পরিচালক অনন্য মামুন। এর মধ্যে হল বুকিংও শুরু করেছেন তিনি। বলেন, “মাঝখানে কয়েকটি ভিন্নধারার ছবি নির্মাণ করেছিলাম। ‘সাইকো’ দিয়ে বাণিজ্যিক ধারায় ফিরলাম। আমার ছবির প্রতি হল মালিকদের একটা আলাদা বিশ্বাস থাকে। এবারও তাঁদের কাছ থেকে ভালো সাড়া পাচ্ছি। এর মধ্যে ৩০টি হল নিশ্চিত হয়েছে। আমাদের টার্গেট অন্তত ৭০টা হল। আশা করছি সেটা হয়ে যাবে। ’

পূজা বলেন, “গত ঈদে আমার অভিনীত দুটি ছবি মুক্তি পেয়েছিল। দুটিই উপভোগ করেছে দর্শক। ‘সাইকো’ ছবিতে বেশ কিছু সাহসী দৃশ্যে অভিনয় করেছি। এর আগে এমন অন্তরঙ্গ দৃশ্যে দর্শক আমাকে দেখেনি। শাকিব খান, সিয়ামের পর রোশানের সঙ্গেও দর্শক আমাকে গ্রহণ করবে বলে বিশ্বাস। ”

রোশান বলেন, “এবারের ঈদটা আমার জন্য স্পেশাল। ‘বেপরোয়া’র পর আবার কোনো অ্যাকশন ছবি নিয়ে হাজির হচ্ছি। দর্শক আমার কাছে অ্যাকশন ছবিই আশা করে বেশি। আমিও সম্প্রতি যে ছবিগুলোতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি তার বেশির ভাগই অ্যাকশনধর্মী। পূজা ভালো অভিনেত্রী, অনন্য মামুন ভাইও পরীক্ষিত পরিচালক। সব মিলিয়ে ছবিটি ভালো যাবে বলে আশা করছি। ’



সাতদিনের সেরা