kalerkantho

বুধবার । ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭। ৩ মার্চ ২০২১। ১৮ রজব ১৪৪২

দক্ষিণী ঝড়ের পূর্বাভাস

২৮ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



দক্ষিণী ঝড়ের পূর্বাভাস

গেল এক মাসে দক্ষিণ ভারতের একঝাঁক তারকা চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন বিভিন্ন হিন্দি ছবিতে। বলিউডের ইতিহাসে আগে এমনটা ঘটেনি। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, দক্ষিণী তারকাদের অন্তর্ভুক্তি নতুন মাত্রা দেবে বলিউডকে। লিখেছেন লতিফুল হক

সমানতালে দক্ষিণ ভারতীয় ও হিন্দি ছবিতে টানা সাফল্যের রেকর্ড আছে শ্রীদেবী, কমল হাসান, রজনীকান্তদের। এরপর অনেক তামিল, তেলেগু তারকা হিন্দি ছবি করেছেন। মাঝেমধ্যে তাঁদের ছবি হিটও হয়েছে, কিন্তু ধারাবাহিক হতে পারেননি কেউই। তবে দৃশ্যপট পুরো বদলে দিয়েছে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম। নেটফ্লিক্স, অ্যামাজন প্রাইমের কল্যাণে এখন সর্বভারতীয় দর্শক খুব সহজেই তামিল, তেলেগু, কন্নড় বা মালয়ালাম ছবি দেখতে পারে। ফলে গেল দুই বছরে জনপ্রিয়তায় দক্ষিণী ছবি ছাপিয়ে গেছে হিন্দি ছবিকেও। প্রতিষ্ঠিত চলচ্চিত্র সমালোচকদের কথা শুনলেই ব্যাপারটা বোঝা যায়। ওটিটি ছাড়াও বলিউডকে দক্ষিণমুখী করতে বড় ভূমিকা রাখেন ‘কবির সিং’। গেল বছরের অন্যতম ব্যবসাসফল ছবিটি ছিল তেলেগু ‘অর্জুন রেড্ডি’র রিমেক। বরাবরই দক্ষিণের ছবি রিমেক হয়ে আসছে বলিউডে। তবে ‘কবির সিং’-এর পর দুই ডজন দক্ষিণী ছবি রিমেকের ঘোষণা আসে। দক্ষিণী তারকাদের নিয়ে হিন্দি ছবি বানানোর হিড়িক পড়ে। চেনা গণ্ডি ছেড়ে আগে বলিউডে আসতে দুবার ভাবতেন দক্ষিণী তারকারা। কিন্তু ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তার কারণে তাঁরা এখন মুখিয়ে আছেন সর্বভারতীয় তারকা হতে।

জনপ্রিয় দক্ষিণী তারকাদের হিন্দি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার সাম্প্রতিক খতিয়ানটা দেওয়া যাক। ‘অর্জুন রেড্ডি’ সুপারহিট হওয়ার পর ছবির নায়ক বিজয় দেবারকণ্ডারের দিকে চোখ পড়ে করণ জোহরের। তাঁর পরের ছবি ‘ডিয়ার কমরেড’-এর স্বত্ব রেকর্ড দামে কিনে নেন। বিজয়কে নিয়ে নিজের পরের ছবিরও পরিকল্পনা করেন। করণের প্রযোজনায় বিজয় অভিনীত সেই ছবি ‘লিগার’ মুক্তি পাবে এ বছরই। নায়ক নির্বাচনে সবচেয়ে বড় চমক দেখিয়েছেন শ্রীরাম রাঘবন। দারুণ সব থ্রিলার ছবি উপহার দেওয়া এই পরিচালকের পরের ছবির প্রধান চরিত্রে দেখা যাবে বিজয় সেথুপথিকে। জনপ্রিয় তামিল তারকার বিপরীতে দেখা যাবে ক্যাটরিনা কাইফকে। গেল দুই বছরের তেলেগু ছবির অন্যতম জনপ্রিয় নাম রাশমিকা মান্দানা। সিদ্ধার্থ মালহোত্রার বিপরীতে প্রথম হিন্দি ছবির কাজ শুরু করেছেন তিনি। সেই ‘মিশন মজনু’ মুক্তির আগে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন নাম ঠিক না হওয়া আরেকটি বলিউড ছবিতে।

দুলকার সালমান খুবই জনপ্রিয় মালয়ালাম অভিনেতা। ইরফান খানের সঙ্গে তাঁর বলিউড অভিষেক হয় ‘কারাওয়া’ দিয়ে। এরপর সোনম কাপুরের সঙ্গে ‘দ্য যোয়া ফ্যাক্টর’ করেন। কোনোটিই ভালো চলেনি। তবে দুলকারে আস্থা হারাননি প্রযোজকরা। আর বালকির নতুন ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন মাম্মুত্থিপুত্র। গেল বছর অ্যামাজন প্রাইমের সিরিজ ‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান’ দারুণ জনপ্রিয় হয়েছিল। যেখানে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে ছিলেন দক্ষিণী অভিনেত্রী প্রিয়ামণি। ১২ ফেব্রুয়ারি আসছে সিরিজটির দ্বিতীয় কিস্তি। যেখানে খল চরিত্রে দেখা যাবে আরেক জনপ্রিয় তারকা সামান্থাকে। এ নিয়ে ভীষণ উচ্ছ্বসিত অভিনেত্রী, ‘এটা অনেক বড় সুযোগ। হিন্দির কল্যাণেই আমি বড় সংখ্যক দর্শকের কাছে পৌঁছতে পারব।’

একের পর এক দক্ষিণী তারকার হিন্দি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হওয়াকে ইতিবাচকভাবেই দেখছেন বলিউড বাণিজ্য বিশেষজ্ঞ তরণ আদর্শ, ‘করোনার কারণে হল মালিকদের আয়-রোজগার বন্ধ, প্রযোজকরাও আছেন বিপদে। বড় তারকার ছবি না হলে এখন হলে আসবে না দর্শক। বিভিন্ন অঞ্চলের তারকাদের নিয়ে ছবিকে সর্বভারতীয় রূপ দিতে চাচ্ছেন নির্মাতারা। এ ছাড়া এখন প্রায় সব ছবিই একসঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ সব আঞ্চলিক ভাষায় মুক্তি পাচ্ছে। সামনে এটা আরো বাড়বে।’

সমালোচক রাজীব মাসান্দ মনে করেন, “দক্ষিণী ছবির বাণিজ্যের পথ খুলে দিয়েছে ‘বাহুবলী’। এই ছবি বিভিন্ন ভাষায় মুক্তি পেয়ে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছিল। ‘বাহুবলী’র কল্যাণে প্রভাস সারা ভারতে পরিচিতি পান। প্রযোজকরাও আস্থা পান। সেই পথ ধরেই একের পর এক দক্ষিণী তারকাকে নিয়ে তৈরি হচ্ছে হিন্দি ছবি।”

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা