kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১২ রজব ১৪৪২

ওয়েবে তাঁরা

নেটফ্লিক্সে ১৫ জানুয়ারি মুক্তি পেয়েছে কাজলের প্রথম ওয়েব ছবি ‘ত্রিভঙ্গ’। অন্যদিকে অ্যামাজন প্রাইমে এসেছে সাইফ আলী খানের সিরিজ ‘তাণ্ডব’। দুই বলিউড তারকার ওয়েব মিশন নিয়ে লিখেছেন লতিফুল হক

২১ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ওয়েবে তাঁরা

ত্রিভঙ্গ

২০১৮ সালের শেষের দিকে এই ছবির ঘোষণা আসে; যদিও ছবিটিতে কাজলের অভিনয়ের কথা ছিল না। ‘ত্রিভঙ্গ’ হওয়ার কথা ছিল ছোট বাজেটের মারাঠি ছবি। পরে নেটফ্লিক্সের সঙ্গে চুক্তি হয়, ভাষা বদলে হয় হিন্দি। পরিচালকের প্রয়োজন ছিল জনপ্রিয় একজন অভিনেত্রীর। সেই ভাবনা থেকেই কাজল যুক্ত হন। ‘ত্রিভঙ্গ’ মূলত একটি ব্যর্থ পরিবারের গল্প, যার সঙ্গে যুক্ত তিন প্রজন্মের তিন নারী। কাজল ছাড়া অন্য দুই চরিত্র করেছেন তানভি আজমি ও মিথিলা পালকার।

‘ত্রিভঙ্গ’র পরিচালক রেনুকা শাহানি। হিন্দি, মারাঠি ছবি ও টিভি সিরিয়ালের নিয়মিত অভিনেত্রী রেনুকা এর আগে ২০০৯ সালে ‘রিটা’ নামে একটি ছবি পরিচালনা করেছিলেন। প্রায় এক যুগ পর ফের তিনি ক্যামেরার পেছনে। ‘মা-মেয়ের সম্পর্কের গল্প নিয়ে ছবিটি। আমার জীবনে মায়ের ভূমিকা দারুণ গুরুত্বপূর্ণ, তাঁর সঙ্গে দারুণ সম্পর্ক। মাতৃত্ব উদযাপন করতে কিছু একটা করতে চাচ্ছিলাম। সেই ভাবনা থেকেই এ ছবি,’ বলেন রেনুকা।

একই রকম বক্তব্য কাজলেরও। অনেক আগেই কাজলের বাবা শমু মুখোপাধ্যায় ও তনুজার মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এর পর থেকেই মা তাঁদের আগলে রেখেছেন। তাই ‘ত্রিভঙ্গ’ করতে গিয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছিলেন অভিনেত্রী, ‘মা আমাকে যেভাবে বড় করেছেন সে জন্য আমি তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ। আমি আজ যা কিছু হতে পেরেছি, সব মায়ের জন্যই। মায়ের শিক্ষার কিছুটা যদি নিজের সন্তানকে শেখাতে পারি, সেটাই হবে অনেক। চরিত্রটি করতে গিয়ে বারবার মায়ের কথা মনে হয়েছে।’

মুক্তির পর দর্শক-সমালোচকদের বেশ প্রশংসা পেয়েছে ‘ত্রিভঙ্গ’। বেশির ভাগ রিভিউতেই ১০-এ ৬.৫ থেকে ৭ রেটিং। সবচেয়ে বেশি প্রশংসা পেয়েছেন কাজল। অনেকে তাঁর পারফরম্যান্সকে সাম্প্রতিক সময়ে ওয়েবের সেরাও বলেছেন।

তাণ্ডব

সাইফ আলী খানের দ্বিতীয় সিরিজ ‘তাণ্ডব’। ৯ পর্বের সিরিজটি বানিয়েছেন বলিউড ছবির হিট পরিচালক আলী জাফর আব্বাস। সিরিজটি মুক্তির পর ভারতে আক্ষরিক অর্থেই ‘তাণ্ডব’ হয়ে গেছে। সিরিজে হিন্দু ধর্মকে অপমান করা হয়েছে—এই অভিযোগে  বিতর্কের শুরু ‘তাণ্ডব’ মুক্তির কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই। সিরিজের একটি দৃশ্য ছিল মঞ্চনাটকের। যেখানে অভিনেতা জিশান আইয়ুব করেন শিবের চরিত্র। ব্যঙ্গাত্মক নাটকটিতে শিবের একটি সংলাপ ছিল, ‘রামের অনুসারী বেড়ে যাচ্ছে, শিবের কিছু করা উচিত।’ এ ছাড়া শিবের মুখে কয়েকটি গালির সংলাপও ছিল, যা নিয়েই ব্যাপক প্রতিবাদের শুরু। উত্তর প্রদেশ, লখনউসহ ভারতের বিভিন্ন প্রদেশে ক্ষমতাসীন বিজেপির সংসদ সদস্য, নেতারা থানায় অভিযোগ করেন ‘তাণ্ডব’ নির্মাতাদের বিরুদ্ধে। অভিনেতার বিরুদ্ধে আসে হুমকি। আগুনে ঘি ঢালেন কঙ্গনা রানাওয়াত, নির্মাতার কঠোর শাস্তি দাবি করেন। অবস্থা বেগতিক দেখে সাইফ আলী খানের নিরাপত্তা বাড়ানো হয়। কিন্তু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসছিল না। অনলাইনে শুরু হয় ‘হ্যাশট্যাগ ব্যান অ্যামাজন’ প্রচারণা।

অবশেষে প্রবল চাপের মুখে গতকাল ক্ষমা চায় অ্যামাজন প্রাইম কর্তৃপক্ষ। সিরিজ থেকে বিতর্কিত দৃশ্য বাদ দেওয়ার কথাও জানায়। এমনিতে ‘তাণ্ডব’ সমালোচকদের প্রশংসা পায়নি। তবে নানা বিতর্ক এটিকে এই মুহূর্তে ভারতের অন্যতম আলোচিত সিরিজে পরিণত করেছে।

‘তাণ্ডব’-এর গল্প সমর প্রতাপকে নিয়ে। তার বাবা দেশের প্রধানমন্ত্রী। বাবার মৃত্যুর পর সেই জায়গা নিতে মরিয়া সমর। কিন্তু আরো প্রতিদ্বন্দ্বী তো আছে! জমে ওঠে লড়াই। সাইফ ছাড়াও ‘তাণ্ডব’-এর গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন ডিম্পল কাপাডিয়া ও সুনীল গ্রোভার।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা