kalerkantho

শনিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৮ নভেম্বর ২০২০। ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

স্ক্যাম ১৯৯২ ও হানসালের গল্প

২৯ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্ক্যাম ১৯৯২ ও হানসালের গল্প

হানসালের সিরিজ ‘স্ক্যাম ১৯৯২’-এ প্রতীক গান্ধী

সনি লিভে মুক্তি পাওয়া ‘স্ক্যাম ১৯৯২’ নিয়ে এখন তুমুল আলোচনা। এই ওয়েব সিরিজ দিয়ে নতুন করে আলোচনায় পরিচালক হানসাল মেহতা। অন্যদিক তাঁর নতুন ওয়েব ছবি ‘ছালাং’ মুক্তি পাবে সামনের মাসে। ‘স্ক্যাম ১৯৯২’ ও হানসাল মেহতাকে নিয়ে লিখেছেন মামুনুর রশিদ

ভঙ্গুর অর্থনীতি সিস্টেমের ভেতরে ঢুকে এফোঁড়-ওফোঁড় করে দেওয়ার বাসনা নিয়ে নেমেছে এক যুবক। সোজা বাংলায়, তার উদ্দেশ্য জালিয়াতি। অদম্য আরেক যুবক তৈরি জালিয়াতির মুখোশ খুলে দিতে। ১৯৯২ সালে মুম্বাইয়ের স্টক এক্সচেঞ্জ কেলেঙ্কারির ঘটনা নিয়েই সনি লিভ-এর ওয়েব সিরিজ ‘স্ক্যাম ১৯৯২—দ্য হারশাদ মেহতা স্টোরি’। এক হারশাদ মেহতাই গোটা স্টক মার্কেটে জালিয়াতি করে ধস নামিয়েছিল। মেহতা একা কিভাবে অসম্ভবকে সম্ভব করেছিল, ১০ পর্বের সিরিজজুড়ে সেই গল্প। মুক্তির পর থেকেই সমালোচক থেকে শুরু করে সাধারণ দর্শক—সবার ভূয়সী প্রশংসা পাচ্ছে সিরিজটি। এখন পর্যন্ত এটিই ভারতের সেরা ওয়েব সিরিজ, এমন তকমাও দিচ্ছেন কেউ কেউ। সিরিজটিকে দর্শক এতটাই ভালোবেসেছে, আইএমডিবিতেও ৯.৬ রেটিং নিয়ে ইন্ডিয়ার সেরা টিভি সিরিজের তালিকায় শীর্ষে অবস্থান করছে ‘স্ক্যাম ১৯৯২’।

সিরিজের নির্মাতা হানসাল মেহতা। সুচেতা দালাল ও দেবাশিষ বসুর লেখা বই ‘দ্য স্ক্যাম’ অবলম্বনে প্রায় ১০ ঘণ্টা ব্যাপ্তির চিত্রনাট্যও লিখেছেন পরিচালক। হানসাল বরাবরই সমাজের শ্রেণিসংগ্রাম নিয়ে কাজ করেন। এই সিরিজেও সেই বিষয়গুলো উঠে এসেছে ভালোভাবেই। তবে সিরিজটির চিত্রনাট্যে সবচেয়ে বড় বিষয় ছিল তথ্যগুলো ঠিক রাখা। অনেক ভারতীয় সিরিজ বা সিনেমাতেই দেখা যায় সত্য ঘটনাকে বিকৃত বা ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়। এ জন্য সত্য ঘটনা অবলম্বনে বেশির ভাগ সিরিজ প্রচারের পরেই বিতর্ক শুরু হয়। তবে এই সিরিজে হানসাল সত্যগুলো তুলে ধরতে চেষ্টা করেছেন। রাজনৈতিক বাধা আসতে পারে ভেবে পিছু হটেননি। সিরিজের প্রয়োজনে টুকটাক কিছু বিষয় অদল-বদল করলেও মূল বিষয়টি একই আছে। সিরিজে প্রধান চরিত্র হারশাদ মেহতার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন গুজরাটি অভিনেতা প্রতীক গান্ধী। একেবারে অচেনা অভিনেতাকে নিয়েই সফল হানসাল। প্রথম সিরিজের ব্যাপক সাফল্যের পর অভিনেতা এখন পর্যন্ত প্রায় ১০টি নতুন কাজের প্রস্তাব পেয়েছেন। ‘স্ক্যাম ১৯৯২’-এর এত সাফল্যে অবাক পরিচালক নিজেও, ‘আমি তথাকথিত অফট্র্যাকের সিনেমা বানাই, তাই এত সাফল্যের সঙ্গে ঠিক পরিচিত নই।’ সনি লিভ কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে না জানালেও বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, মুক্তির পর প্রথম সপ্তাহে এক কোটি ১৬ লাখ ভিউ হয়েছে সিরিজটির!

এ সাফল্য যেন পরিচালক হিসেবে হানসাল মেহতাকেও নতুন প্রাণ দিয়েছে। গেল কয়েক বছরে দারুণ কিছু সিনেমা উপহার দিলেও বাণিজ্যিক সাফল্য না পাওয়ায় নতুন ছবির জন্য প্রযোজক পাওয়াটাই মুশকিল হয়ে দাঁড়িয়েছিল। সত্য ঘটনা সিনেমার পর্দায় তুলে আনতে বিশেষ সুনাম রয়েছে পরিচালকের। ‘শহিদ’, ‘ওমের্তা’ যার বড় প্রমাণ। এ ছাড়া তাঁর ‘আলীগড়’ ও ‘সিটিলাইটস’ও ব্যাপক প্রশংসিত হয়। ওয়েবে ব্যাপক সাফল্য পেয়ে খুশি হানসাল, ‘এই মাধ্যমে কাজের স্বাধীনতা অনেক বেশি। আমার মতো ইনডিপেনডেন্ট ঘরানার পরিচালকের জন্য এটা বড় সুযোগ।’ পুরো ক্যারিয়ারে রাজকুমার রাওয়ের সঙ্গেই বেশির ভাগ কাজ করেছেন হানসাল। অভিনেতার সঙ্গে তাঁর ষষ্ঠ কাজ ওয়েব ছবি ‘ছালাং’ অ্যামাজন প্রাইমে মুক্তি পাবে ১৩ নভেম্বর। নিজের চেনা গণ্ডির বাইরে এবার ব্ল্যাক-কমেডি বানিয়েছেন পরিচালক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা