kalerkantho

শনিবার । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭। ১৫ আগস্ট ২০২০ । ২৪ জিলহজ ১৪৪১

ফেসবুক থেকে

লিটল ফায়ারস এভরিহয়ার

৯ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লিটল ফায়ারস এভরিহয়ার

লিটল ফায়ারস এভরিহয়ার

‘দ্য হ্যান্ডমেডস টেল’ ও ‘লুকিং ফর আলাস্কা’র সফল অ্যাডাপ্টেশনের পর হুলু আরেকটি উপন্যাসকে টিভি পর্দায় নিয়ে এসেছে—‘লিটল ফায়ারস এভরিহয়ার’। সাল ১৯৯৭, শেকার হাইট শহর, চার সন্তান আর বিত্তবান উকিল স্বামী নিয়ে এলেনা রিচার্ডসনের সুখের সংসার। সে খুবই লাভিং, কেয়ারিং চটপটে এক মা। নিত্যদিনের সব কিছুই তার প্ল্যান করা। তার এই পারফেক্ট (!) জীবনে পরিবর্তন আসে শহরটিতে মিয়া ওয়ারেন আর তার মেয়ে পার্ল আসার পর। স্বাধীনচেতা আর্টিস্ট মিয়া এলেনার কাছ থেকে এলেনার মায়ের বাসা (যার মালিক বর্তমানে এলেনা) ভাড়া নেয়। ধীরে ধীরে মা-মেয়ে দুজন রিচার্ডসন পরিবারের সঙ্গে মিশে যেতে থাকে আর দুই পরিবারের বাইরের আপাতদৃষ্টে ধরে রাখা মুখোশ উন্মোচিত হতে থাকে।

মাতৃত্ব, প্রেম, বর্ণবাদ, কিশোরী মাতৃত্ব, সমকামিতাসহ সমাজের অনেক সমস্যা, অনেক রকম দৃষ্টিভঙ্গি সিরিয়ালটিতে এত যত্ন করে দেখানোর পরও রেটিং এত কম দেখে বেশ অবাক হয়েছি; যদিও বই পড়া নেই বলে পার্থক্যগুলো বুঝতে পারিনি।

এলেনার চরিত্রে রিজ উইদারস্পুন পুরো ফাটিয়ে দিয়েছেন। কথায় কথায় নিজের সুপ্রবৃত্তি জাহির করা এলেনাকে আমাদের সমাজের খুবই চেনাজানা কোনো রক্ত-মাংসের মানুষ বলেই মনে হবে। ক্যারি ওয়াশিংটনের

সিঙ্গল স্ট্রাগলিং রহস্যময় মায়ের চরিত্র মিয়া ইন্টারেস্টিং হলেও মাঝে মাঝে কেরির অভিনয় একটু ওভারঅ্যাক্টিং মনে হয়েছে।

তবে সিরিজের প্রধান আকর্ষণ ছিল এর বাচ্চাগুলো। পাঁচ টিনএজারই তাদের সেরাটা দিয়েছে। বিশেষ করে ইজির চরিত্রে মেগান স্কট আর পার্ল চরিত্রে লেক্সি আন্ডারউডের ফ্যান হয়ে গেছি। সিরিজের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক এবং প্রতিটি পর্বের শেষের দিকে এত সুন্দর সুন্দর গান ব্যবহার করা হয়েছে যে শুনে মুগ্ধ হয়ে গেছি। সিরিজটিকে মিনি সিরিজ হিসেবে বানানো হলেও সিজন-২ এলে অবশ্যই দেখব ।

তাজিম রহমান নিশীথ

সিরিয়ালখোর গ্রুপের পোস্ট

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা